অ্যান্টার্কটিকায় প্রথমবারের মত দাবদাহ

ঢাকা, সোমবার   ২৫ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪২৭,   ০১ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

অ্যান্টার্কটিকায় প্রথমবারের মত দাবদাহ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৩৭ ১ এপ্রিল ২০২০   আপডেট: ১৭:৫৪ ১ এপ্রিল ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বের সবচেয়ে শীতল মহাদেশ অ্যান্টার্কটিকা বর্তমানে প্রচণ্ড তাপে পুড়ছে। জানুয়ারির শেষ থেকে তাপমাত্রা বৃদ্ধির পরে মহাদেশের প্রথম দাবদাহের রেকর্ড এটি বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। জলবায়ুর এ পরিবর্তনের ফলে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে সেখানকার উদ্ভিদ ও প্রাণীজগত। এ ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন গবেষকরা।

পূর্ব অ্যান্টার্কটিকার ক্যাসি গবেষণা স্টেশনে ২০১৯-২০২০ সালের দক্ষিণ গোলার্ধের গ্রীষ্মে দাবদাহের এ রেকর্ড করেছেন অস্ট্রেলিয়া অ্যান্টার্কটিক প্রোগ্রামের গবেষকরা।

মঙ্গলবার গ্লোবাল চেঞ্জ বায়োলজি জার্নালে এই দলটির অনুসন্ধানগুলো প্রকাশ করা হয়। লেখকরা হুঁশিয়ারি বার্তায় জানান যে, বৈশ্বিক আবহাওয়ার নিদর্শনগুলোকে এই পরিবর্তন প্রভাবিত করতে পারে।

জানুয়ারির ২৩ থেকে ২৬ তারিখের মধ্যে, পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার পার্থের সরাসরি দক্ষিণে সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে ক্যাসির এক গবেষণা দল। সময়টি চলাকালীন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস (৩২ ডিগ্রি ফারেনহাইট) এর চেয়ে বেশি ছিল এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেছে।

২৪ শে জানুয়ারী ক্যাসি দলটি সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে যা ছিল ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই তাপমাত্রা স্টেশনটির গড় সর্বোচ্চের চেয়ে ৬ দশমিক ৯ ডিগ্রি বেশি।

একই সময়ে, মহাদেশের অপর প্রান্তে অ্যান্টার্কটিক উপদ্বীপেও রেকর্ড উচ্চ তাপমাত্রার খবর পাওয়া গেছে। গত মাসে আর্জেন্টিনার গবেষণা স্টেশন এস্পেরঞ্জায় সর্বোচ্চ ১৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি তাপমাত্রার রেকর্ড করা হয়।

সূত্র- ডয়চে ভেলে

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএমএফ/মাহাদী