Alexa মুড সুইং করলে যা করবেন

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ জানুয়ারি ২০২০,   মাঘ ১০ ১৪২৬,   ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

Akash

মুড সুইং করলে যা করবেন

স্বাস্থ্য ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:০৬ ৮ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৪:১৭ ৮ ডিসেম্বর ২০১৯

ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

ঘণ্টাখানেক আগে তানভীরের সঙ্গে কথা হলো বন্ধু জাহিদের। পরিকল্পনা, অফিস শেষে মেলায় যাবেন তারা। সারাদিন বাইরের খাবারে উদরপূর্তি করে আর কেনাকাটায় পকেটের টাকা-পয়সা সব শেষ করে তবেই ঘরে ফেরা হবে। কিন্তু অফিস শেষে তানভীর যেতে নারাজ! জাহিদ হতবাক, এক ঘণ্টা আগেই তো কথা হলো দু’জনের। এখন এমন বিভ্রান্ত হয়ে গেল কী করে তানভীর? তার কাকা হাশেমিও কোনো কারণ জানাতে পারছে না তার এই আচরণের। কী হলো তবে এই এক ঘণ্টার ব্যবধানে? কেন মন পাল্টালো তানভীর?

তানভীর আসলে মন পাল্টায়নি। বরং মনই পাল্টে দিয়েছে তাকে, ওই সময়ের জন্য। আপাতদৃষ্টিতে খুব অল্প সময় ঠেকলেও আপনার মনের অলি-গলিতে মহাযুদ্ধ ঘটে যেতে একটা ঘণ্টা অনেকখানি সময়! এই যে এত দ্রুত মেজাজ বদলে যাচ্ছে, নিয়ন্ত্রণে থাকছে না নিজের মন, এই রোগের নাম জানেন কি? এটি হলো ‘মুড সুইং’, বাংলায় সোজাভাবে একে আপনি ‘দোল খাওয়া মেজাজ’ বলতে পারেন। কিন্তু এই রোগের ওষুধ কি?

ফেসবুকে অনেকেই স্ট্যাটাস দেন ‘হ্যাশট্যাগ ফিলিং মুড অফ’ ‍লিখে। কিন্তু কমেন্টে কোনো সমাধান পান না। বাবা-মা’রাও ছেলেমেয়েদের এই ভাবগতিক ঠিক বুঝে উঠতে পারেন না। ইঁদুর দৌড়ের যুগে দাঁড়িয়ে সবদিকটা সামলে উঠতে নাস্তানাবুদ প্রায় সকলেই, সারাদিনের হাজারও ঝক্কি সামলাতে গিয়ে মুডের দফারফা। আবার কখনো কখনো মুড অফের কারণ খুঁজতে গিয়েই আরো খেই হারিয়ে ফেলছে অনেকেই। এই সমস্যার সমাধানও বেশ সহজ। বিশেষজ্ঞদের মতে গান শুনলে মানসিক চাপ অনেকটা কমে। মনও ভালো থাকে সারাদিন।

সকালে ঘুম থেকে উঠেই অফিসের জন্য প্রস্তুতি, জ্যাম ঠেলে পৌঁছানো, সাংসারিক কাজ; এত কিছুর মধ্যে গানই রাখতে পারে আপনাকে চিন্তামুক্ত। সকালে ঘুম থেকে উঠে রেডিও বা মিউজিক সিস্টেমটা অন করে নিন। বাসের ভিড় বা রাস্তার জ্যামে ইয়ার ফোনটা গুঁজে নিন কানে। রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগেও গান শুনতে পারেন। এতে সারাদিনের মানসিক চাপ অনেকটা হালকা হয়।

কোন গান শুনবেন সেটা আপনার বিষয়। তবে দুঃখের গান শোনা থেকে বিরত থাকুন। ধরুন, আপনার মুড খারাপ, আর তখন দুঃখের গান শুনলেই কিন্তু মুশকিল। মুড বুঝে পছন্দমতো গান শুনুন। তবে চড়া সুরের গান না শোনাই ভালো, এতে চাপ কমার থেকে চাপ ক্রমশ বাড়ে। হালকা টোনের মিউজিক শোনাই এ সময়ে সবচেয়ে ভালো। তবে গান শুনে দুনিয়াকে ভুলে গেলে চলবে না!

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে