বড় বোনের আবেগঘন চিঠি পেয়ে আবেগাপ্লুত ববিতা ও চম্পা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৪ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭,   ১১ শাওয়াল ১৪৪১

Beximco LPG Gas

বড় বোনের আবেগঘন চিঠি পেয়ে আবেগাপ্লুত ববিতা ও চম্পা

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:১৫ ২৪ এপ্রিল ২০২০  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

গোটা পৃথিবীটাই যেন করোনাভাইরাসের কারণে থমকে গেছে। যদি কখনো কোনোদিন হঠাৎ করে দু-এক টুকরো সাদা মেঘ ভেসে আসে, তখন মনে হয়, ওরা যেন বাংলাদেশের বার্তা নিয়ে এসেছে। মেঘ যেন বলছে, আমরা ভালো নেই, ঘরে খাবার নেই, আমরা বড্ড অসহায়, তখন অঝোরে কাঁদি। একটি চিঠিতে ছোট বোন চিত্রনায়িকা ববিতা ও চম্পার উদ্দেশ্যে লিখেছেন বরেণ্য অভিনেত্রী সুচন্দা।

গত ফেব্রয়ারিতে ছেলে অপু রায়হানকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে বেড়াতে গিয়েছিলেন সুচন্দা। এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহেই দেশে ফেরার কথা ছিল তার। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির অবনতির কারণে দেশে ফিরতে পারেননি। বর্তমানে নিউইয়র্কের হাইড পার্ক এলাকায় তার মেজ ভাইয়ের বাসায় অবস্থান করছেন।

সেখান থেকে বুধবার দুই বোনের কাছে আবেগঘন চিঠি লেখেন সুচন্দা। হাতে লেখা সেই চিঠির ছবি তুলে ভাইবারে পাঠিয়ে দিয়েছেন দুই বোনের কাছে। বড় বোনের চিঠি পেয়ে আবেগ আপ্লুত হযে পড়েন ববিতা ও চম্পা।

উপরে উল্লেখিত অংশ ছাড়াও ওই চিঠিতে সুচন্দা লিখেছেন, ভাবছ, বুজির (সুচন্দাকে বুজি বলে ডাকেন ববিতা ও চম্পা) সঙ্গে ফোনে কথা হয়, এরপর আবার চিঠি কেন? আসলে অনেক দিন কাউকে চিঠি লেখা হয় না। হাতের কাছে কাগজ-কলম পেলাম। মনে হলো দু-কলম লিখি, বলা যায় না, এই লেখাটুকুই হয়তো স্মৃতি হয়ে থাকবে।

চিঠিতে সুচন্দা আরো লিখেছেন, প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে দরজার পর্দা সরিয়ে সোফায় বসে সামনের গাছগুলোর দিকে আর আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকি, মনে হয় প্রকৃতি যেন তার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছে। স্তব্ধ মেঘ যেন মুখ কালো করে থমকে আছে। মেঘের চঞ্চলতা নেই। রাস্তায় গাড়ি চলার শব্দ নেই। বাচ্চাদের খেলাধুলা, হইচই নেই। গোটা পৃথিবীটাই যেন করোনাভাইরাসের কারণে থমকে গেছে।

প্রসঙ্গত, সুচন্দা ১৯৬০ এর দশকে অভিনয় জীবন শুরু করেন। তার ছোট বোন ববিতা ও চম্পা ঢালিউডের এক সময়ের সাড়া জাগানো দুই অভিনেত্রী। জনপ্রিয় অভিনেতা রিয়াজ তার চাচাত ভাই।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনএ/টিএএস