প্রতিদিন কয়টি ডিম খাওয়া যাবে জানালেন চিকিৎসক

ঢাকা, রোববার   ২৯ মার্চ ২০২০,   চৈত্র ১৫ ১৪২৬,   ০৪ শা'বান ১৪৪১

Akash

প্রতিদিন কয়টি ডিম খাওয়া যাবে জানালেন চিকিৎসক

জান্নাতুল মাওয়া সুইটি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:০৪ ২৯ জানুয়ারি ২০২০   আপডেট: ১৩:৫৫ ২৯ জানুয়ারি ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ডিম প্রোটিনের অন্যতম এক উৎস। এজন্য ওজন কমানোর প্রয়াসে অনেকেই প্রোটিনের উৎস হিসেবে নিয়মিত ডিম খেয়ে থাকেন। তবে এ নিয়ে অনেক বিতর্ক রয়েছে, প্রতিদিন কয়টি ডিম খাওয়া স্বাস্থ্যসম্মত?

ডিমে রয়েছে সেলেনিয়াম, ভিটামিন ডি, বি ৬ ও ১২, জিঙ্ক, এবং আয়রন উপাদানসমূহ। আপনি জানেন কি? ডিমের স্বাস্থ্য উপকারিতার জন্য খেলোয়াড়রাও নিয়মিত তাদের ডায়েটে এটি রাখেন। শিশুর বিকাশেও ডিম একটি আদর্শ খাবার হিসেবে বিবেচিত।

তবে ডিমে কোলেস্টেরলের উপস্থিতি নিয়ে বরাবরই একটি বিতর্ক রয়েছে। চিকিত্সকদের মতে, প্রতিদিন ৩০০ মিলিগ্রামের বেশি কোলেস্টেরল গ্রহণ করা উচিত। এদিকে ডিমে ৩৭৩ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল থাকে। তবে কি হৃদরোগীদের পুরোপুরি ডিম খাওয়া ছেড়ে দেয়া উচিত?

এক্ষেত্রে গবেষকরা পরামর্শ দেন, দিনে একটি ডিম খাওয়া হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় না। আমেরিকান জার্নাল অব ক্লিনিকেল নিউট্রিশনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই বিষয়টি উঠে এসেছে। প্রতিদিন অন্তত একটি ডিম খাওয়ার অভ্যাস খুবই ভালো।

ডিমের বিভিন্ন পদএতে হৃদরোগ বা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমে। এমনকি যাদের বংশে কার্ডিওভাস্কুলার রোগের ইতিহাস রয়েছে তাদের ক্ষেত্রেও ডিম কোনো প্রকার ঝুঁকি বাড়ায় না। এমনটিই জানিয়েছেন কানাডার ম্যাকমাস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এবং গবেষক মাহশিদ দেহহান।

তিনি আরো বলেন, ডিম খাওয়ার সঙ্গে রক্তে কোলেস্টেরল বাড়ার কোনো লক্ষণ পরিলক্ষিত হয়নি। আমরা সুস্থ ব্যক্তি এবং হৃদরোগী উভয়ের উপরই পরীক্ষা করে দেখেছি। ডিমের মূল্য অনেকটা কম হওয়ায় বিশ্বব্যাপী এর চাহিদা ব্যাপক। তবে হৃদরোগীরা সপ্তাহে তিনটি ডিম খেতে পারবেন বলে জানান এই গবেষক। 

গবেষকরা জনসংখ্যা স্বাস্থ্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (পিএইচআরআই) দ্বারা পরিচালিত তিনটি আন্তর্জাতিক গবেষণা বিশ্লেষণ করেছেন। ২১ টি দেশের এক লাখ ৪৬ হাজার ১১ জনের উপর পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে কার্ডিওভাস্কুলার রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল প্রায় ৩১ হাজার ৫৪৪ জন। 

গবেষণার ফলাফলে জানা যায়, ডিম খাওয়ায় কারো কোনো ক্ষতি হয়নি। বরং তারা সুস্থ রয়েছেন। গবেষণায় বলা হয়েছে, প্রতিদিন একটি বা তার বেশিও ডিম খেতে পারেন যে কেউ। এতে কোনো স্বাস্থ্য ঝুঁকি নেই। তবে দিনে কুসুমসহ তিনটি ডিম খাওয়াই উত্তম। ডিমের সাদা অংশে যেহেতু ক্যালোরি কম তাই এটি বেশি খেলেও সমস্যা নেই, জানান গবেষক সেলিম ইউসুফ।

সূত্র: টাইমসঅবইন্ডিয়া

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস