মারাত্মক যৌন রোগ সিফিলিস-এর লক্ষণ ও প্রতিকার

ঢাকা, রোববার   ১২ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ২৯ ১৪২৭,   ২১ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

মারাত্মক যৌন রোগ সিফিলিস-এর লক্ষণ ও প্রতিকার

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:২৫ ১ জুন ২০২০  

সিফিলিসের লক্ষণ

সিফিলিসের লক্ষণ

মানুষ নানা রকম যৌন রোগে আক্রান্ত হয়। তবে প্রধান যৌন রোগগুলোর মধ্যে সিফিলিস অন্যতম। এটি খুবই জটিল একটি যৌন সংক্রামক রোগ। এ রোগে সংক্রমিত হলে দেহে দীর্ঘকালীন জটিলতা দেখা দেয়। যদি সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা না করা যায়, তবে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে। 

প্রতি বছর পৃথিবীতে প্রায় ১২ মিলিয়ন মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হয়। আমাদের দেশে এ রোগের প্রভাব ব্যাপক। ডা: মো: হুমায়ুন কবীর এই রোগটি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। চলুন জেনে নেয়া যাক সেগুলো- 

সংক্রমণের উৎস কী?

আক্রান্ত ব্যক্তির ত্বক ও শ্লেষ্মাঝিল্লির ক্ষত, ক্ষত হতে নিঃসৃত রস, লালা, যোনি থেকে নিঃসৃত রস, যোনি থেকে নিঃসৃত রক্ত, বীর্য আক্রান্ত ব্যক্তির ঠোঁট ও মুখ। এসব হচ্ছে সিফিলিস রোগে সংক্রমণ হওয়ার উৎস। 

কীভাবে সংক্রমিত হয়?

> আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে সৃষ্ট সিফিলিটিক ক্ষত এর সরাসরি সংস্পর্শে এলে জনান্তরে এ রোগ ছড়িয়ে পড়ে।

> আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে সরাসরি শারীরিক সম্পর্ক, অনিরাপদ  শারীরিক সম্পর্ক, বিশেষ করে পায়ুপথে  শারীরিক সম্পর্ক কিংবা মুখ মৈথুন কিংবা চুম্বন বিনিময় করলে।

> আক্রান্ত ব্যক্তির শরীর থেকে রক্ত গ্রহণ অর্থাৎ রক্তসঞ্চালন বা ইনজেকশনের মাধ্যমেও এ রোগ ছড়ায়।

> আক্রান্ত মা সন্তান জন্মদানের আগেই শিশুর দেহে এই রোগের বিস্তার ঘটিয়ে দেন। তাছাড়া আক্রান্ত মায়ের দুধ পান করলে।

> মনে রাখা প্রয়োজন, এ রোগ কখনোই খাওয়ার পাত্র, চামচ, গামছা, ন্যাপকিন, সুইমিং পুল, বাথটাব কিংবা ব্যবহৃত কাপড়চোপর দিয়ে ছড়ায় না।

সিফিলিসের লক্ষণগুলো কী কী? 

সিফিলিসের প্রথম লক্ষণ যেমন দেরিতে (অর্থাৎ ২১ দিন পর) প্রকাশ পায়, তেমনি শেষ পর্যায়ে যেতেও অনেক সপ্তাহ, মাস বা বছর পেরিয়ে যায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সিফিলিস আক্রান্ত পুরুষের লিঙ্গমুণ্ড কিংবা লিঙ্গমুণ্ডের ত্বকে ছোট শক্ত গোটা, ফুসকুড়ি দেখা দেয়। নারীর ক্ষেতে যৌনির ঠোঁট বা ক্লাইটেরিসে শক্ত গোটা ওঠে। রোগের প্রকোপ তিন লক্ষণ প্রকাশের সময়কালকে চারটি পর্যায়ে ভাগ করা যায়- 

> প্রাইমারি পর্যায়ে ২১ দিন পর একটি মাত্র সিফিসিটিক ক্ষত প্রকাশিত হয়। প্রথমে শরীরে পোকার কামড়ের মতো গোল গোল দাগ দেখা যায়। এটি নারীর ক্ষেত্রে ক্লাইটেরিস ও পুরুষের ক্ষেত্রে লিঙ্গমুণ্ডের ত্বকে গোটা হয়। যৌনাঙ্গ ছাড়াও এটি মলদ্বার, ঠোঁট বা স্তনের বোঁটাতেও হতে পারে। কাছাকাছি গ্রন্থিগুলো ফুলে উঠতে পারে। মাঝে মধ্যে এগুলো ব্যথাহীন এবং শক্ত হয়ে দেখা দেয়। একে শ্যাঙ্কার বলা হয়।

> মাধ্যমিক পর্যায়ে সংক্রমণের ছয় সপ্তাহ পর শরীরে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ফুসকুড়ি দেখা দেয়। সিফিলিটিক ক্ষতগুলো অমসৃণ, লাল বা লালচে-বাদামি দাগ হিসেবে হাত-পায়ের তালুতে দেখা দেয়। ক্ষত ছাড়াও জার, লসিকা গ্রন্থি ফোলা, গলাভাঙা, মাথাব্যথা, বিভিন্ন স্থানের চুল ঝরে যাওয়া, ওজন কমে যাওয়া, পেশিব্যথা, ক্লান্তি ইত্যাদি এ পর্যায়ে দেখা দেয়। যখন আক্রান্ত রোগী তীব্রভাবে সংক্রমিত হয়, তার মুখের ত্বক যদি ছিঁড়ে যায় তাহলে চুমুর মাধ্যমেও রোগ ছড়াতে পারে। প্রায় এক বছরের মধ্যে রোগের চিহ্নগুলো মিলিয়ে যায়।

> সুপ্ত পর্যায়ে আক্রান্তের দেহে কোনো ক্ষত, ফুসকুুড়ি বা অন্যান্য লক্ষণ দেখা যায় না। বছরের পর বছর এ পর্যায় অব্যাহত থাকতে পারে।

> বিলম্বিত পর্যায়ে জীবাণুুতে প্রথম সংক্রমিত হওয়ার প্রায় ১০ থেকে ২০ বছর পর সিফিলিস পূর্ণাঙ্গরূপে আবির্র্ভূত হয়। রোগের বিলম্বিত পর্যায়ে রোগীর স্নায়ু, চোখ, হৃৎপিণ্ড, রক্তকণিকা, যকৃত, গ্রন্থি ও সন্ধির ক্ষতি সাধন করে। ফলে পেশি সঞ্চালনে বিঘ্ন ঘটে, দেখা দেয় পঙ্গুত্ব, হতবুদ্ধি ও অস্থিরবিত্ত। এ অবস্থায় রোগীর মৃত্যুও হতে পারে।

সিফিলিস রোগের চিকিৎসা

সিফিলিসের লক্ষণ জানা থাকলে প্রাথমিক পর্যায়ে সহজেই চিকিৎসা করানো সম্ভব হয়। এ রোগ হলে স্বামী-স্ত্রী উভয়েরই চিকিৎসা নেয়া উচিত, অন্যথায় এ সংক্রমণ সঙ্গীর কাছ হতে আবার হতে পারে। সম্পূর্ণ নিরাময় না হওয়া পর্যন্ত শারীরিক সম্পর্ক থেকে নিজেকে বা অন্যকে বিরত রাখতে হবে। এক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা পদ্ধতি কার্যকরী। তাই সঠিক সময়ে অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের কাছ থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করলে সম্পূর্ণ নিরাময় সম্ভব।

সিফিলিস প্রতিরোধে করণীয় 

> সিফিলিস থেকে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র উপায় হচ্ছে স্থায়ী সঙ্গীর সঙ্গে জীবনযাপন করা। ভিন্ন সঙ্গীর কথা চিন্তাই করা উচিত নয়।

> সিফিলিস থাকলে অবশ্যই চিকিৎসা করাতে হবে।

> সিফিলিস আক্রান্তদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক থেকে বিরত থাকতে হবে। 

> তাছাড়া অ্যালকোহল ও মাদক জাতীয় দ্রব্য থেকে দূরে থাকা একান্ত বাঞ্ছনীয়। কারণ এসব পান বা সেবন যৌন আচরণকে উসকে দেয়, তখন সঙ্গী নির্বাচন নাও হতে পারে।

> যারা কমার্শিয়াল সেক্স ওয়ার্কার, তাদের কাছ থেকে যতটা সম্ভব নিরাপদ থাকতে হবে। মনে রাখবেন, এ রোগ কোনোভাবেই পুষে রাখা যাবে না।

সূত্র: ডা: মো: হুমায়ুন কবীর, কনসালট্যান্ট, রেনেসাঁ হোমিও মেডিকেয়ার। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এএ