Alexa পাঁচ বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ পেয়েও ভর্তি অনিশ্চিত

ঢাকা, রোববার   ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯,   পৌষ ১ ১৪২৬,   ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১

পাঁচ বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ পেয়েও ভর্তি অনিশ্চিত

নাটোর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:২৬ ২ ডিসেম্বর ২০১৯  

ফাতেমা খাতুন

ফাতেমা খাতুন

অদম্য মেধাবী ফাতেমা খাতুন। শৈশব থেকেই তার বিসিএস ক্যাডার হওয়ার ইচ্ছা। প্রস্তুতিও নেন সে অনুযায়ী। সাফল্যও এসেছে। সুযোগ পেয়েছেন দেশের অন্যতম পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার। কিন্তু টাকার অভাবে তার ভর্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

ফাতেমা নাটোরের লালপুর উপজেলার তিলকপুর গ্রামের চা বিক্রেতা ইউসুফ আলীর মেয়ে। কোথায় পাবে, কে দেবেন এ টাকা। এ চিন্তায় দিন কাটছে ফাতেমার। বাবার পক্ষেও এ টাকা জোগাড় করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। এদিকে মেয়ের উচ্চশিক্ষার জন্য সবার সহযোগিতা চেয়েছেন বাবা।

ইউসুফ আলী বলেন, ৩ শতাংশ বাড়ির জমিটি ছাড়া আর কিছুই নেই। মেয়ে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেলেও ভর্তি করানোর ও পড়ানোর টাকা নেই। ফাতেমার বড় বোন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স চতুর্থ বর্ষে অধ্যায়নরত। তার পক্ষে দুই বোনের লেখাপড়ার খরচ চালানো অসম্ভব।

ছোটবেলা থেকেই দুর্দান্ত মেধাবী ফাতেমা। পিএসসিতে জিপিএ-৫, জেএসসিতে জিপিএ-৫, এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেলেও পরীক্ষার সময় অসুস্থ থাকায় এইচএসসিতে পান জিপিএ-৪.৯২।

ফাতেমা এবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় ‘ক’ ইউনিটে মেধা তালিকায় ৭৪৭, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘খ’ ইউনিটে ৩৩৪, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘খ’ ইউনিটে ১৮৩, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘খ’ ইউনিটে ১৪, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘গ’ ইউনিটে ৪৯৫তম হয়েছেন।

ভর্তি হতে প্রায় ১৫ হাজার টাকা লাগবে তিনি জেনেছেন। কিন্তু ভর্তির টাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের খরচ জোগানো তার পক্ষে অসম্ভব হয়ে পড়েছে। আগামী সপ্তাহে তার ভর্তির প্রক্রিয়া শুরু হবে। ১০ ডিসেম্বর ভর্তির শেষ দিন। কিন্তু তার এ স্বপ্ন পূরণে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে টাকা।

ফাতেমা বলেন, আল্লাহর রহমতে পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েছি। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন, আমি যেন শুধু শিক্ষিত না হয়ে একজন ভালো মানুষ হতে পারি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর