Alexa এবার অ্যাপে কৃষকের ধান কিনবে সরকার

ঢাকা, বুধবার   ১১ ডিসেম্বর ২০১৯,   অগ্রহায়ণ ২৬ ১৪২৬,   ১৩ রবিউস সানি ১৪৪১

এবার অ্যাপে কৃষকের ধান কিনবে সরকার

নিউজ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৫৩ ২০ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ১৯:০৭ ২০ নভেম্বর ২০১৯

সংগৃহীত

সংগৃহীত


সরকার আমন মৌসুমে পরীক্ষামূলকভাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনবে। ২০ নভেম্বর থেকে এ ধান সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু হচ্ছে।

জানা গেছে, ‘কৃষকের অ্যাপ’র মাধ্যমে ধান বিক্রির জন্য আগামী ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত নিবন্ধন করতে পারবেন কৃষকরা। ধান বিক্রির আবেদনের শেষ তারিখ ১৫ ডিসেম্বর।

 ‘কৃষকের অ্যাপ’ এর মাধ্যমে দেশের আট বিভাগের ১৬ উপজেলায় ধান সংগ্রহ করা হবে। এতে সরকারি ধান কেনায় অনিয়ম-দুর্নীতি অনেকটা কমে যাবে বলে জানান খাদ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের কর্মকর্তারা।

অ্যাপের মাধ্যমে ঢাকার সাভার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ, বরিশাল সদর, ভোলা সদর, ঝিনাইদাহ সদর, গাজীপুর সদর, ময়মনসিংহ সদর, জামালপুর সদর,যশোর সদর, হবিগঞ্জ সদর, নওগাঁ সদর, বগুড়া সদর, রংপুর সদর, দিনাজপুর সদর ও মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনা হবে।


খাদ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানান, ডিজিটাল পদ্ধতিতে সরকারি গুদামে ধান সংগ্রহের জন্য ‘কৃষকের অ্যাপ’ তৈরি করা হয়েছে। মোবাইল ফোনে অ্যাপটি ডাউনলোড করে কৃষক জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর ও মোবাইল নম্বর দিয়ে নিবন্ধন করতে পারবেন।

ধানের নাম, কী পরিমাণ ধান বিক্রি করতে চান- তা জানিয়ে ঘরে বসেই ধান বিক্রির আবেদন করতে পারবেন কৃষক। নিবন্ধন, বিক্রয়ের আবেদন, বরাদ্দের আদেশ ও মূল্য পরিশোধের সনদ সম্পর্কিত তথ্য ঘরে বসেই এসএমএসের মাধ্যমে পাবেন কৃষক। বিক্রয়ের জন্য কোন তারিখে, কোন গুদামে যেতে হবে- সেটাও একইভাবে জানানো হবে। 
 
ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা, আবেদনকারীর সংখ্যা ও ধানের পরিমাণ বিবেচনায় নিয়ে তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। আবেদনকারী বেশি হলে লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন করা হবে।

চলতি মৌসুমে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে প্রতি কেজি ২৬ টাকা দরে ছয় লাখ টন আমন ধান কিনবে সরকার। একই সঙ্গে ৩৬ টাকা দরে সাড়ে তিন লাখ টন চাল এবং ৩৫ টাকা কেজি দরে ৫০ হাজার টন আতপ চাল কেনা হবে।

২০ নভেম্বর থেকে ধান ও ১ ডিসেম্বর থেকে চাল সংগ্রহ শুরু হয়ে চলবে আগামী বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

খাদ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মোসাম্মৎ নাজমানারা খানুম বলেন, স্মার্টফোন না থাকলে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে গিয়ে নিবন্ধন ও আবেদন এ অ্যাপের মাধ্যমেই করতে পারবেন কৃষক।’

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএএম