রোমাঞ্চকর কুদুম গুহায় একদিন

ঢাকা, সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০,   চৈত্র ১৬ ১৪২৬,   ০৫ শা'বান ১৪৪১

Akash

রোমাঞ্চকর কুদুম গুহায় একদিন

ভ্রমণ ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৫৩ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

কুদুম গুহা

কুদুম গুহা

চাইলেই টেকনাফ হয়ে সেন্টমার্টিন কিংবা কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ঘুরে আসা যায়। অনেকে শুধুই সমুদ্র থেকে বাড়ি ফিরে যান। কুদুম গুহার মতো সুন্দর একটা অ্যাডভেঞ্চার স্পট যে টেকনাফে আছে, অনেকে তা জানেনই না। এখানকার মনোমুগ্ধকর সব দৃশ্যের হাতছানি এড়ানো ভ্রমণপিপাসুদের জন্য সত্যি কঠিন।

অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি টেকনাফের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র ‘কুদুম গুহা’। স্থানীয়রা এটিকে বলে কুদুং। যারা টেকনাফ ভ্রমণে রোমাঞ্চকর স্বাদ নিতে চান তারা ঘুরে আসতে পারেন গুহাটিতে। কক্সবাজার শহর থেকে ৮৮ কিলোমিটার দক্ষিণে টেকনাফের দমদমিয়া এলাকায় এটির অবস্থান। দেশের একমাত্র বালু-মাটির গুহা এটি। মনোরম পাহাড়ঘেরা পরিবেশ, পাখির ডাক আর বন্যপ্রাণীর আনাগোনাময় এ গুহাটি আকর্ষণীয় জায়গা। এটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় এক হাজার ফুট উপরে অবস্থিত।

দুর্গম পাহাড় অতিক্রম করে যেতে হয় কুদুম গুহায়। কুদুম গুহায় হেঁটে যাওয়ার সময় পাখির ডাক মনোরম পাহার ঘেরা গাছপালা ও বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণী দেখতে পাবেন। গুহাটির ভেতরে প্রবেশ করেই আপনার মনে হবে হয়তো আদিম যুগে চলে এসেছেন। বাঁদুরের হাঁক ডাক আর উড়া উড়িতে দারুণ এক রোমাঞ্চকর অনুভূতি পাবেন। এই গুহা অসংখ্য বাদুড়দের আশ্রয়স্থল। তাই এটিকে বাদুড় গুহাও বলে।

গুহার ভেতরে কোথাও কোমর আবার কোথাও গলা সমান শীতল পানি। গুহার দেয়াল বেয়ে চুইয়ে চুইয়ে অনবরত পানি ঝরে। এর যত ভেতরে প্রবেশ করবেন পানির গভীরতা ততোই বাড়তে থাকবে। এখানকার পানি বেশ ঠাণ্ডা ও স্বচ্ছ। পানিতে টাকি, কৈ, কাকলি, তিন চোখা, ডানকিনে কালো রঙের চিংড়ি মাছের বিচরণ দেখা যায়।

৫০০ ফুট দীর্ঘ এ গুহার ভেতর এতটাই অন্ধকারচ্ছান্ন যে জোরালো আলো ছাড়া এর ভিতরে কিছুই দেখা যায় না। গা ছমছম করা আঁধারে চামচিকার কিচিরমিচির ডাকে গা ছমছমে পরিবেশের সৃষ্টি হয়। যে কোনো সময় বাদুড় আর চামচিকারা শরীরের ঝাঁপিয়ে পড়ে। তাই আপনাকে সঙ্গে হেডলাইট ও আত্মরক্ষামূলক লাঠি অবশ্যই নিতে হবে৷ গুহায় যাওয়ার সময় অবশ্যই দায়িত্বপ্রাপ্ত বন বিভাগের কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করে ফরেস্ট গাইড অথবা ইকো গাইডকে সঙ্গে করে নিয়ে যাবেন।

কুদুম গুহায় যেতে হলে সড়কপথে সরাসরি টেকনাফ চলে যান। এরপর টেকনাফের হোয়াইখিয়ং বাজার থেকে শাপলাপুর অভিমুখে ৪ কিলোমিটার যাবার পর বাম দিকে পাহাড়ি ঝিরিপথ ধরে আরো ২ কিলোমিটার হাঁটলেই এ গুহায় পৌঁছে যাবেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে