নভেম্বরেই অত্যাধুনিক ক্রুজশিপে যাওয়া যাবে সেন্টমার্টিন

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৭,   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

নভেম্বরেই অত্যাধুনিক ক্রুজশিপে যাওয়া যাবে সেন্টমার্টিন

ভ্রমণ প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৫৪ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৫:৫৮ ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

‘সিলভিয়া সারু’ এখন ‘এমভি বে ওয়ান’। ছবি: সংগৃহীত

‘সিলভিয়া সারু’ এখন ‘এমভি বে ওয়ান’। ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন রুটে যুক্ত হচ্ছে অত্যাধুনিক ক্রুজশিপ। চট্টগ্রামের কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠান জাপান থেকে কিনেছে জাহাজটি। নভেম্বরেই আধুনিক এ জাহাজ বঙ্গোপসাগরে চলাচল করবে।

জাহাজটিরে নাম আগে ‘সালভিয়া সারু’ থাকলেও মালিকানা বদলের পর এর নাম হয়েছে ‘এমভি বে ওয়ান’। বর্তমানে জাহাজটি চট্টগ্রামে অবস্থান করছে। সেখানে সংস্কার কাজ চলছে।

কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্সের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ (এডমিন) কামাল উদ্দিন চৌধুরী বলেন, দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ ভ্রমণে নতুনত্ব আনবে এ জাহাজ। বিলাসবহুল পর্যটকসেবার পাশাপাশি আমরা দেশীয় পর্যটনে নতুন অধ্যায় যোগ করতে পারবো বলে আশা করি।

এমভি বে ওয়ান-এর ভেতরের অংশ। ছবি: সংগৃহীত

তিনি জানান, গত শনিবার জাহাজটি মেরিন একাডেমির পাশে কর্ণফুলী ড্রাইডক জেটিতে এসে ভিড়েছে। এটি এসেছে জাপানে ইয়োকোহামা বন্দর থেকে। জেটিতে সংস্কারের পর এটি কক্সবাজারে নেওয়া হবে।

প্রেসিডেন্ট স্যুট, কেবিন, সাধারণ আসন—সব মিলিয়ে প্রায় দুই হাজারের মতো আসন থাকছে বে ওয়ানে। জাহাজটিতে তারকামানের রেস্তোরাঁও থাকছে। জাহাজটির দৈর্ঘ্য প্রায় ১২১ মিটার, প্রস্থ ১৫ দশমিক ৩ মিটার এবং গভীরতা ৫ দশমিক ৪ মিটার। এ জাহাজের সর্বোচ্চ গতি থাকবে ২৪ নটিক্যাল মাইল। তবে সেন্টমার্টিন রুটে এটি ১৮ থেকে ২০ নটিক্যাল মাইলে চলবে বলে জানা গেছে।

কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন রুটে এটিই প্রথম জাহাজ নয়। একই প্রতিষ্ঠানের ‘কর্ণফুলী এক্সপ্রেস’ চলতি বছরে এ রুটে চলাচল শুরু করে। কক্সবাজার সদরের নুনিয়ারছড়া এলাকা থেকে জাহাজটি ছেড়ে থাকে। তবে ‘এমভি বে ওয়ান’ দরিয়ানগর থেকে ছাড়া হবে বলে জানা গেছে। এরইমধ্যে বিশেষ জেটি নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে