Daily Bangladesh :: ডেইলি বাংলাদেশ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৪ ১৪২৬,   ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

নিউজিল্যান্ড

#

ছবি: নিউজিল্যান্ড দল

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিউজিল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রতিনিধিত্ব করে। তারা ‘ব্লাক ক্যাপস’ নামেও পরিচিত। বর্তমানে তারা নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড দ্বারা পরিচালিত। নিউজিল্যান্ড আইসিসি'র টেস্ট ও একদিনের আন্তর্জাতিক মর্যাদাপ্রাপ্ত স্থায়ী সদস্য দেশগুলোর অন্তর্ভুক্ত। তাদের ব্ল্যাক ক্যাপস বা কিউই নামেও ডাকা হয়।

দীর্ঘ পথচলা (ইতিহাস)

১৮৩৫ সালে নিউজিল্যান্ডে প্রথম ক্রিকেট খেলার প্রমাণ পাওয়া যায়। ম্যাচটি হয়েছিল মাওরি ক্রীতদাস ও ওয়াইমেট নর্থের মিশনারিদের মধ্যে। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের প্রথম রেকর্ডকৃত খেলাটি ১৮৪২ সালের ডিসেম্বরে ওয়েলিংটনে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওয়েলিংটন ক্রিকেট ক্লাবের মধ্যে ‘রেড টিম’ ও ‘ব্লু টিম’ নামে দুটি দলে ভাগ হয়ে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়।  ১৮৪৪ সালের মার্চ মাসে সার্ভেয়ার্স এবং নেলসনের মধ্যে ম্যাচটি নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে প্রথম সম্পূর্ণ রেকর্ডকৃত ম্যাচ।

এরপর প্রথম বিদেশী দল হিসেবে পার্লস অল ইংল্যান্ড নিউজিল্যান্ড সফরে যায়।  ১৮৬৪ থেকে ১৯১৪ সালের মধ্যে ২২ টি বিদেশি দল নিউজিল্যান্ড সফর করেছিল। সে সময় ইংল্যান্ড ৬ টি,  অস্ট্রেলিয়া ১৫ টি এবং ফিজি থেকে ১ টি দল পাঠানো হয়েছিল।

১৮৯৪ সালের ১৫-১৭ ফেব্রুয়ারী নিউজিল্যান্ডের প্রতিনিধিত্বকারী দলের আত্মপ্রকাশ ঘটে। ক্রাইস্টচার্চে ল্যাঙ্কস্টার পার্কে নিউ সাউথ ওয়েলসের বিপক্ষে খেলেছিল তারা। পরে ১৮৯৪ সালের শেষ দিকে স্থায়ীভাবে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট কাউন্সিল গঠিত হয়। 

১৯৩০ সালে ক্রাইস্টচার্চে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট ক্রিকেট খেলার মাধ্যমে দলটির আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অভিষেক ঘটে। এর ফলে তারা বিশ্বের ৫ম দল হিসেবে টেস্ট খেলার গৌরব অর্জন করে। কিন্তু তাদেরকে প্রথম জয়ের জন্য দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়।

নিউজিল্যান্ড ১৯৫৫-৫৬ সালে অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে প্রথম জয়লাভ করে। ১৯৭২-৭৩ সালে ক্রাইস্টচার্চে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১ম একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলায় অংশ নিয়েছিল তারা। 
 

বিগত বিশ্বকাপ গুলোতে নিউজিল্যান্ড

নিউজিল্যান্ড ১৯৭৫ সালে বিশ্বকাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতা প্রবর্তনের পর থেকেই অংশ নিয়ে আসছে। তবে ১১টি আসর পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত  চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি তারা। কমপক্ষে পাঁচবার সেমি-ফাইনাল পর্বে উত্তীর্ণ হয়। কিন্তু প্রত্যেকবারই পরাভূত হয়ে প্রতিযোগিতা থেকে বিদায় নেয় দলটি।

১৯৭৫ থেকে ১৯৮৩ সালে অনুষ্ঠিত তিনটি বিশ্বকাপের আয়োজক ছিল ইংল্যান্ড। ইংলিশদের মাটিতে প্রথম বিশ্বকাপেই চমক দেখায় নিউজিল্যান্ড। অভিষেক বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল খেলে তারা। ৭৯ বিশ্বকাপে আবারও সেমি ফাইনাল খেলার গৌরব অর্জন করলেও পরের বার প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নিতে হয় ব্লাক ক্যাপসদের।

এর আগের টানা তিনটি বিশ্বকাপ আয়োজিত হয়েছে ইংল্যান্ডে। সেবার প্রথমবারের মতো সমুদ্র পার হয়ে এই আসর বসলো ভারত ও পাকিস্তানে। ৬০ ওভার করে হওয়া বিশ্বকাপ এবারই প্রথম নেমে আসলো ৫০ ওভারের খেলায়। ৫০ ওভারের ম্যাচে এবারও ব্যার্থ তারা। আবারও বিদায় নিতে হলো প্রথম রাউন্ড থেকে। সেবার ৮ দলের মধ্যে ৬ষ্ঠ স্থানে থেকে বিশ্বকাপ মিশন শেষ করে কিউইরা।

পরবর্তীতে “বেনসন এন্ড হেজেস ওয়ার্ল্ডকাপ-১৯৯২”তে সেমিফাইনালে উত্তীর্ণ হয় নিউজিল্যান্ড। এরপর ১৯৯২-২০০৭ সালের মধ্যে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের ৫ আসরের ৩টিতেই সেমিফাইনাল খেলে নিউজিল্যান্ড। ২০১৫ বিশ্বকাপে এসে রানার্সআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করলেও এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের কোন শিরোপা জেতা হয়নি দলটির।

 

সাল

ম্যাচ

জয়

পরাজয়

পরিত্যক্ত

অধিনায়ক

অবস্থান

১৯৭৫

০৪

০২

০২

০০

গ্লেন টার্নার

/

১৯৭৯

০৪

০২

০২

০০

মার্ক বুরগেস

/

১৯৮৩

০৬

০৩

০৩

০০

জিওফ হোয়ার্থ

/

১৯৮৭

০৬

০২

০৪

০০

জেফ ক্রো

/

১৯৯২

০৯

০৭

০২

০০

মার্টিন ক্রো

/

১৯৯৬

০৬

০৩

০৩

০০

লি জেরমন

/১২

১৯৯৯

০৯

০৪

০৪

০১

স্টিফেন ফ্লেমিং

/১২

২০০৩

০৮

০৫

০৩

০০

স্টিফেন ফ্লেমিং

/১৪

২০০৭

১০

০৭

০৩

০০

স্টিফেন ফ্লেমিং

/১৬

২০১১

০৮

০৫

০৩

০০

ড্যানিয়েল ভেটোরি

/১৪

২০১৫

০৯

০৮

০১

০০

ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম

/১৪

সর্বমোট

৭৯

৪৮

৩০

০১

   

 

বিশ্বকাপের দলীয় পরিসংখ্যান

 

সর্বোচ্চ রান

ফ্লেমিং (১০৭৫)

 

সর্বোচ্চ ব্যাক্তিগত রান

মার্টিনগাপটিল (২৩৭*)

 

সর্বোচ্চ দলীয় রান

৩৯৩/ (বিপক্ষ-উইন্ডিজ)

 

সর্বনিম্ন দলীয় রান

১১২ (বিপক্ষ-অস্ট্রেলিয়া)

 

সর্বোচ্চ পার্টনারশীপ

১৬৮ (জার্মোন-হ্যারিস)

 

সবচেয়ে ভালো ব্যাটিং গড়

৬১.২০ (টার্নার)

 

সবচেয়ে বেশি উইকেট

৩৬ (জ্যাকব ওরাম)

 

বেস্ট বোলিং ফিগার

/৩৩ (টিম সাউদি)

 

সবচেয়ে বেশী ক্যাচ ধরেছেন

১৬ টি (কেইরন্স)

 

বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন

ম্যাককুলাম (৩৪ ম্যাচ)

 

সবচেয়ে বেশি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন

               ফ্লেমিং  (২৭ ম্যাচ)

 

২০১৯ বিশ্বকাপ যাত্রা এবং স্বপ্ন

২০১৯ বিশ্বকাপে টিম নিউজিল্যান্ড:

ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় টুর্নামেন্ট বিশ্বকাপ। ৪ বছর অন্তর হওয়া মর্যাদার এই লড়াইয়ে প্রতিটা দলই তাদের সেরা স্কোয়াড নিয়ে মাঠে নামে। প্রতিটা দলের একটাই লক্ষ্য, ট্রফি জয়। সেদিক দিয়ে নিউজিল্যান্ডও চাইবে এবারের বিশ্বকাপ জিতে তাদের ট্রফি খড়া ঘুচাতে। ১৯৭৫ সাল থেকে প্রতিটা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেও এখন পর্যন্ত কোন বিশ্বকাপ ট্রফির দেখা পায়নি ব্লাক ক্যাপসরা। তবে এবার তাদের সম্ভাবনা রয়েছে ট্রফি জেতার। উইলিয়ামসনের নেতৃত্বে দলটি এবার দারুণ আত্মবিশ্বাসী। অভিজ্ঞতা আর তারুণ্যের মিশেলে দারুণ কিছু করে দেখানোর প্রত্যয় অবশ্যই তাদের আছে।

বিশ্বকাপ স্কোয়াড:

কেন উইলিয়ামসন, ট্রেন্ট বোল্ট, লুকি ফার্গুসুন, ম্যাট হেনরি, কলিন মুনরো, হেনরী নিকোলাস, ইশ সোদী, রস টেইলর, টম ব্লানডেল, কলিন ডি গ্রান্ডহোম, মার্টিন গাপটিল, টম লাথাম, জিমি নিশাম, মিচেল সান্টনার, টিম সাউদি।

 

সাধারণ তথ্য

পৃষ্ঠপোষক নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড
টেস্ট অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন
ওডিআই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন
টি-টুয়েন্টি অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন
কোচ গ্যারি স্টিড

আইসিসি র‍্যাঙ্কিং

 

ফরম্যাট

বর্তমান

সর্বোচ্চ অর্জন

টেস্ট

০২

০২

ওডিআই

০৩

০২

টি-টোয়েন্টি

০৬

০১

ইতিহাস

 

আইসিসি স্ট্যাটাস

 

 

১৯২৬ (পূর্ন সদস্য)

টেস্ট স্ট্যাটাস অর্জন

 

 

১৯৩০ সাল

প্রথম টেস্ট

 

 

ইংল্যান্ড (১০ জানুয়ারী, ১৯৩০)

প্রথম ওডিআই

 

 

পাকিস্তান(১১ ফেব্রুয়ারী, ১৯৭৩)

প্রথম টি-টোয়েন্টি

 

 

অস্ট্রেলিয়া (১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০০৫)

জয়-পরাজয় পরিসংখ্যান

 

          ফরম্যাট

ম্যাচ

 

জয়

পরাজয়

ড্র/পরিত্যাক্ত

টেস্ট

৪৩৩

 

৯৭

১৭১

১৬৫

ওডিআই

৭৫৮

 

৩৪২

৩৭০

/৪০

টি- টোয়েন্টি

১১৮

 

৫৭

৫৩

০৫/০৩

বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ

 

                  নাম

সংখ্যা

 

সর্বোচ্চ অর্জন

আইসিসি বিশ্বকাপ

১১ বার

 

সেমি ফাইনাল-৭৫,৭৯,৯২,৯৯,২০০৭, ২০১১

রানার্স আপ-২০১৫

আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

বার

 

সেমিফাইনাল-২০০৭,২০১৬

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি

বার

 

সেমিফাইনাল- ২০০৬

চ্যাম্পিয়ান-২০০০

শিরোনাম: