Daily Bangladesh :: ডেইলি বাংলাদেশ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ জুন ২০১৯,   আষাঢ় ৪ ১৪২৬,   ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

আফগানিস্তান

#

ছবি: আফগানিস্তান ক্রিকেট দল

উপমহাদেশের নতুন দল হিসেবে আফগানিস্তান ইতিমধ্যে তাদের যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে আফগানিস্তান ক্রিকেট দল আফগানিস্তানের জাতীয় দলের প্রতিনিধিত্ব করে। ১৯৯৫ সালে ক্রিকেট বোর্ড গঠস হবার পর  ২০০১ সালে আফগানিস্তান আইসিসির অন্তর্ভুক্ত সহযোগী সদস্য নির্বাচিত হয়। ২০০৩ সালে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল এর সদস্য পদ লাভ করে। ২০১৮ সালের শেষের দিকে তারা টেস্টের মতো ঐতিহ্যবাহী পুলের সদস্য হয়।

দীর্ঘ পথচলা (ইতিহাস)

১৯৯৬ সালে তালেবানরা যখন আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে, তখন অনেকগুলো বিষয়ে বিধি-নিষেধ আরোপ করে তারা। এর মধ্যে ছিল বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলা বন্ধ করা। কঠোর নিষেধাজ্ঞার মধ্যেও তখন কয়েকটি খেলা চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছিল। এর মধ্যে ক্রিকেট ছিল একটি।

বিস্ময়কর ভাবে তালেবান শাসকরা ক্রিকেট খেলার অনুমোতি দিয়ে এর প্রচার করতে চেয়েছিল। কট্টরপন্থী এই মিলিসিয়া বাহিনী আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে (এসিবি) আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সদস্য হওয়ার অনুমতিও দেয়।

২০০১ সালে আইসিসির কাছে অনুমোদিত সদস্য পদের জন্য আবেদন করে তা পেয়ে যায় আফগানিস্তান। শুরু হয় আনুষ্ঠানিকভাবে আফগান ক্রিকেটের পথচলা। সে বছরই প্রথমবারের মতো পাকিস্তান সফর করে তিনটি সীমিত ওভারের ম্যাচ ও দীর্ঘ পরিসরের দুটি ম্যাচ খেলে আফগানরা।

আফগানিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দল ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত ২০১১ সালের বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব থেকে বিদায় নেয়। তবে খেলতে না পারলেও ২০১৩ সাল পর্যন্ত ৪ বছরের জন্য ওয়ানডে ম্যাচ খেলার যোগ্যতা অর্জন করে তারা।

আফগানিস্তান তাদের প্রথম ওয়ানডে খেলে স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে এবং তাতে ৮৯ রানে জয়ী হয়। ২০১৭ সালের ২২ জুলাই আইসিসির পূর্ণ সদস্যপদ লাভ করে তারা।

 

 

বিগত বিশ্বকাপ গুলোতে আফগানিস্তান

ক্রিকেটে আফগানিস্তানের যাত্রা খুব বেশিদিনের না। ১৯৯৫ সালে আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর খুব দ্রুতই তারা উন্নতি করতে থাকে। ফলে ২০১৫ সালে নিজেদের প্রথম বিশ্বকাপে অংশ নেয় তারা । 

বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ অভিষেক হয় আফগানিস্তানের। সেই ম্যাচে ১০৫ রানের বড় ব্যবধানে হেরে যায় আফগানরা। এরপর শ্রীলংকার বিপক্ষে খেলতে নেমেও পরাজয়ের মুখ দেখতে হয় আফগানিস্তানকে। ম্যাচটি তারা হেরে যায় ৪ উইকেটে।

নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে স্কটল্যান্ডের মুখোমুখি হয় আফগানরা। এই ম্যাচে তারা তুলে নেয় বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম জয়। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ন ম্যাচে মাত্র ৩ বল ও ১ উইকেট হাতে রেখে জয়লাভ করে তারা।

উজ্জীবিত আফগানরা এরপর খেলতে নামে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। কিন্ত ২৭৫ রানের বড় ব্যবধানে হারের মুখ দেখে আফগানিস্তান।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও সেবার পরাজয়ের বৃত্ত থেকে বের হতে পারেনি তারা। আরো একবার হেরে যায় ৬ উইকেটে। সেবার নিজেদের শেষ ম্যাচে ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হয় আফগান দল। বৃষ্টিবিঘ্নিত  ম্যাচে ইংল্যান্ড ৯ উইকেটে জয়ী হয়। 

প্রথমবার খেলতে এসে ৬ ম্যাচে ১ জয় নিয়ে দেশে ফেরে আফগানিস্তান দল।  

বিশ্বকাপে দলীয় পারফরমেন্সঃ

সাল

ম্যাচ

জয়

পরাজয়

পরিত্যক্ত

অধিনায়ক

অবস্থান

২০১৫

০০

মোহাম্মদ নবী

১৩/১৪

সর্বমোট

০১

০৫

০০

   


 

বিশ্বকাপের দলীয় পরিসংখ্যান

 

বিভাগ

পরিসংখ্যান

সর্বোচ্চ ব্যাক্তিগত রান

সামিউল্লাহ শিনওয়ারী (২৫৪)

সর্বোচ্চ দলীয় রান

২৩২/১০

সর্বনিম্ন দলীয় রান

১১১/৭

সর্বোচ্চ পার্টনারশীপ

৮৮ (৩য় উইকেটে)

সবচেয়ে ভালো ব্যাটিং গড়

সামিউল্লাহ শিনওয়ারী ৪২.৩৩

সবচেয়ে বেশি উইকেট

শাপুর জাদরান  (১০)

বেস্ট বোলিং ফিগার

শাপুর জাদরান  (৩৮/৪)

সবচেয়ে বেশী ক্যাচ ধরেছেন

মোহাম্মাদ নবী (৩)

বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন

মোহাম্মাদ নবী (৬)

সবচেয়ে বেশি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন

মোহাম্মাদ নবী (৬)

 

 

২০১৯ বিশ্বকাপ যাত্রা এবং স্বপ্ন

২০১৯ বিশ্বকাপে টিম আফগানিস্তান:

দ্বিতীয়বারের মত বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেয়েছে আফগানিস্তান। গুলবাদিন নাইবের নেতৃত্বে বিশ্বকাপের এই দ্বাদশ আসরে মাঠে নামবে তারা। অভিজ্ঞতা আর তারুন্য নির্ভর দলটি দারুন সম্ভাবনাময়। আছেন রশিদ খান, মোহাম্মাদ নবী ও মুজিব উর রহমান এর মত কিছু বিশ্ব বরেণ্য খেলোয়াড়। একসঙ্গে জ্বলে উঠলে তাদের দিনে যে কোন দলকে হারাতে সমর্থ আফগান ক্রিকেটাররা। 

আফগান বিশ্বকাপ স্কোয়াডঃ   

গুলবাদিন নাইব (অধিনায়ক) , আসগর আফগান, রশিদ খান, মোহাম্মাদ নবী, হামিদ হাসান, হযরতউল্লাহ জাজাই, মোহাম্মেদ শেহজাদনাজিবুল্লাহ জাদরান, রহমত শাহ, সামিউল্লাহ শেনওয়ারি, আফতাব আলম, দাওলাত জাদরান, হাসমতউল্লাহ শহীদী, মুজিব উর রহমান, নুর আলী জাদরান।

 

সাধারণ তথ্য

পৃষ্ঠপোষক আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (এসিবি)
টেস্ট অধিনায়ক রহমত শাহ
ওডিআই অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব
টি-টুয়েন্টি অধিনায়ক রশিদ খান
কোচ ফিল সিমোন্স

আইসিসি র‍্যাঙ্কিং

 

ফরম্যাট 

বর্তমান

সর্বোচ্চ অর্জন

টেস্ট

১১তম

১১তম

ওডিআই

১০ম

১০ম

টি-টুয়েন্টি

৭ম

৭ম

ইতিহাস

 

ফরম্যাট

যেখান থেকে শুরু

আইসিসি স্ট্যাটাস

পূর্ন সদস্য (২০১৭)

টেস্ট স্ট্যাটাস অর্জন

২০১৭ সাল

প্রথম টেস্ট

ইন্ডিয়া, ১৪ জুন ২০১৮

প্রথম ওডিআই

স্কটল্যান্ড, ১৯ এপ্রিল ২০০৯

প্রথম টি-টুয়েন্টি

আয়ারল্যান্ড, ফেব্রুয়ারী ২০১০

জয়-পরাজয় পরিসংখ্যান

ফরম্যাট

ম্যাচ

জয়

পরাজয়

ড্র/পরিত্যক্ত

টেস্ট

/

ওডিআই

১১৪

৫৯

৫১

/

টিটুয়েন্টি

৭১

৪৯

২২

/

বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ

আইসিসি ইভেন্ট 

সংখ্যা

সর্বোচ্চ অর্জন

আইসিসি বিশ্বকাপ

০০

 

আইসিসি টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ

০৪ বার 

সুপার টেন (২০১৬)

আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি

০০

 

এশিয়া কাপ

বার

কোয়ালিফাই রাউন্ড (২০১৬)

শিরোনাম: