সাকিবের পরামর্শে নাঈমের সাফল্য

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ৩০ জুন ২০২২,   ১৬ আষাঢ় ১৪২৯,   ৩০ জ্বিলকদ ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

সাকিবের পরামর্শে নাঈমের সাফল্য

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৩৯ ১৭ মে ২০২২  

নাঈম হাসান

নাঈম হাসান

চট্টগ্রাম টেস্টে শ্রীলংকার বিপক্ষে উইকেট প্রাপ্তিতে সাকিব আল হাসানের ছোট ছোট পরামর্শগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে মনে করছেন অফ স্পিনার নাঈম হাসান। নিজের ভাল করার পিছনে সাকিবের অবদানের কথা স্বীকার করেছেন তিনি। 

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে আজ প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে নাঈমের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে লংকানদের বিপক্ষে দারুনভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ১০৫ রানে ৬ উইকেট শিকার করেছেন এই অফস্পিনার। 

গত বছর ফেব্রুয়ারির পর প্রথম টেস্ট খেলতে মাঠে নামলেও নিজের মধ্যে দারুন আত্মবিশ্বাস ছিল বলেও জানান নাঈম। তিনি বলেন, ‘মাঠে সাকিব সব সময়ই পরামর্শ দিয়েছেন। কখন কি করতে হবে তা তিনি আমাকে বলতেন। এই বিষয়গুলো সব সময় আমাদের উপকারে আসে।’

চার উইকেটে ২৫৮ রানের পুঁজি নিয়ে আজ দ্বিতীয় দিনের ব্যাটিং শুরু করা লংকানরা বাংলাদেশকে রানের পাহাড়ে চাপা দিতে বসেছিল। কিন্তু তাদের জন্য বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় স্বাগতিক স্পিনারদের ত্রিমুখি আক্রমন। তাদের বোলিং বৈচিত্র্য বেশ কার্যকরী ভুমিকা পালন করে।’ 

প্রথম দিনেও দুই উইকেট দখল করেছিলেন নাঈম। তবে রান দিয়েছেন বেশী। অবশ্য দ্বিতীয় দিনে তিনি ছিলেন খুবই গোছানো। এর পুরস্কারও তিনি পেয়েছেন। আজ  পেয়েছেন আরো চারটি মুল্যবান উইকেট।

নাঈম বলেন, ‘গতকাল আমি খুব একটা ভালো বল করতে পারিনি। তবে ভালো দিক হচ্ছে সাকিব ও তাইজুল প্রতিপক্ষের রানের গতি নিয়ন্ত্রন করতে সক্ষম হয়েছেন। খেলা শেষে গতকাল রাতে আমি সাকিবের সঙ্গে কথা বলি। তিনি আমাকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেন। যেটি আমার কাজে লেগেছে।’

এই নিয়ে তৃতীয়বারের মতো এক ইনিংসে পাঁচ বা ততোধিক উইকেট শিকার করেছেন নাঈম। তবে পিচ বিবেচনায় লংকানরা আজ বেশি রান পেয়েছেন। নাঈম বলেন, ‘আগেও আমি ৫ উইকেট নিয়েছি। তবে উইকেট বিবেচনায় আজকের শিকারকেই এগিয়ে রাখতে চাই। কারণ এখানকার উইকেটটি ছিল ব্যাটিং সহায়ক। তাই এখানে আমাকে আলাদা কৌশল ব্যবহার করতে  হয়েছে।’

নাঈমের ভাষ্যমতে প্রচেষ্টা হচ্ছে বিশেষ কিছু, যেটি তিনি অব্যাহত রাখার চেস্টা করেছেন। তিনি বলেন, মেহেদী হাসান মিরাজ ইনজুরিতে থাকায় যখন তিনি ডাক পান, তখনই সেরাটা দেয়ার লক্ষ্য স্থির করে রেখেছিলেন।

এই বোলারের ভাষায়, ‘মেহেদীর ইনজুরির খবর শুনে আমি খুবই আহত হয়েছিলাম। তবে এটি এমন কিছু, যেটিকে উপেক্ষা করা যায় না। যাহোক যখন আমি ডাক পেলাম, তখনই ৫ বা ৬ উইকেট দখলের পরিবর্তে নিজের শতভাগ সামর্থ্য দেয়ার সিদ্ধান্ত নেই। জানতাম সেরাটা দিতে পারলে ফল আসবেই।’

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল

English HighlightsREAD MORE »