তারা ছিলেন টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম আসরে, আছেন সপ্তমেও

ঢাকা, রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৮,   ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

তারা ছিলেন টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম আসরে, আছেন সপ্তমেও

সুমাইয়া নাজনীন ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৩৪ ১৬ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ১৯:৩৭ ১৬ অক্টোবর ২০২১

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

দরজায় কড়া নাড়ছে টি-২০ বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। আগামীকাল থেকে মাঠে গড়াবে ক্রিকেটের সব থেকে জনপ্রিয় এই ফরম্যাটের বিশ্বকাপ। এবারের আসরে অংশগ্রহনকারী ১৬ টি দেশ এরই মধ্যে চুড়ান্ত স্কোয়াড ঘোষণা করেছে। মধ্যপ্রাচ্যে অনুষ্ঠেয় টি-২০ বিশ্বকাপটি হতে পারে সর্বকালের সেরা বিনোদনমূলক আসর।

বিশ্বকাপের এবারের আসরের আয়োজক দেশ ভারত। যদিও মহামারি করোনার কারণে ভারতের পরিবর্তে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এ মেগা ইভেন্ট। তবে আয়োজক হিসেবে থাকছে ভারতই।

ওমানে ১৭ অক্টোবর শুরু হবে বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব। আর ২৪ অক্টোবর থেকে দুবাইয়ে শুরু হবে সুপার-১২। ১৫ নভেম্বর ফাইনালের মধ্য দিয়ে পর্দা নামবে এ আসরের।

আসন্ন এ ইভেন্টের জন্য সবগুলো দলেই বেশ কিছু নতুন মুখের সঙ্গে কয়েকজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটারকে রাখা হয়েছে।

উদ্বোধনী আসরের পর এবারের টুর্নামেন্টেও অংশ নিতে যাওয়া খেলোয়াড়ের তালিকাটা খুব দীর্ঘ হবে না। এশিয়া অঞ্চলের মাত্র ছয় জন ক্রিকেটার আছেন যারা ২০০৭ সালে টুর্নামেন্টের প্রথম আসরে এবং এবারের বিশ্বকাপেও অংশ নিচ্ছেন। এশিয়ার ছয় ক্রিকেটারের মধ্যে তিন জনই বাংলাদেশের। বাকিদের ভেতর দু’জন পাকিস্তানের এবং একজন ভারতের।

একনজরে দেখে নেয়া যাক কারা টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম এবং এবারের আসরেও অংশ নিচ্ছেন:

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (বাংলাদেশ): ২০০৭ সালে টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম আসরে দু’টি ম্যাচ খেলেছিলেন বাংলাদেশের মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ৮ দশমিক ৫ গড়ে ১৭ রান করেছিলেন তিনি। বল হাতে ৫ দশমিক ৮৭ গড়ে নিয়েছিলেন ১ উইকেট।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদআসন্ন আসরে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবেন মাহমুদউল্লাহ। অধিনায়ক হিসেবে তিনি এবার কেমন পারফরম্যান্স করেন সেটিই দেখার বিষয়।

সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ): এই তালিকায় স্থান পাওয়া আরেক বাংলাদেশি সাকিব আল হাসান। প্রথম টি-২০ বিশ্বকাপে দেশের হয়ে পাঁচ ম্যাচ খেলেছিলেন তিনি। ব্যাট হাতে ৬৭ রান করেছিলেন এই অলরাউন্ডার। সর্বোচ্চ রান ১৯।

সাকিব আল হাসানপ্রথম আসরে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন বাঁ-হাতি স্পিনার সাকিব। ক্রিকেট প্রেমিদের আশা, এবারের আসরে নিজেদের সেরাটা উজার করে দেবেন তিনি।

মুশফিকুর রহিম (বাংলাদেশ): ২০০৭ সালের টি-২০ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে সবগুলো ম্যাচই খেলেছিলেন উইকেটরক্ষক ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। ৭৭ দশমিক ৭৭ স্ট্রাইক রেটে মাত্র ১৪ রান করেন তিনি।

মুশফিকুর রহিমসে আসরে উইকেটের পেছনে চারটি ক্যাচ ও তিনটি স্টাম্পিং করেন মুশফিক। আসন্ন আসরে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠার অপেক্ষায় মিস্টার ডিপেন্ডেবল।

রোহিত শর্মা (ভারত): ২০০৭ সালের টি-২০ বিশ্বকাপ দিয়েই সংক্ষিপ্ত ভার্সনে আন্তর্জাতিক অভিষেক হয় ভারতের রোহিত শর্মার। আসন্ন বিশ্বকাপে ভারতের সহ-অধিনায়কের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি। এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম সেরা টি-২০ ব্যাটারও রোহিত।

রোহিত শর্মাদক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম টি-২০ বিশ্বকাপে রোহিতের টি-২০ অভিষেকের কথা অনেক ভক্তেরই মনে আছে। ভারতের সাফল্যের পেছনে বড় ভূমিকা ছিল তার। তিন ইনিংসে ১টি হাফ সেঞ্চুরিতে ৮৮ রান করেন তিনি। তিন ইনিংসেই অপরাজিত ছিলেন রোহিত।

মোহাম্মদ হাফিজ (পাকিস্তান): টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম আসরে ছয় ম্যাচ খেলেছিলেন পাকিস্তানের অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ। ব্যাট হাতে ১৬ দশমিক ৫০ গড়ে ৯৯ রান করেন তিনি।

মোহাম্মদ হাফিজগত কয়েক বছর ধরে এই ফরম্যাটে দারুণ ক্রিকেট খেলছেন হাফিজ। এ বছর দেশের হয়ে কেমন পারফর্ম সেদিকেই লক্ষ্য থাকবে সকলের।

শোয়েব মালিক (পাকিস্তান): নাটকীয়ভাবে শেষ মুহূর্তে আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলে সুযোগ পেয়েছেন অভিজ্ঞ শোয়েব মালিক। ইনজুরির কারনে বিশ্বকাপ দল থেকে বাদ পড়েন অলরাউন্ডার শোয়েব মাকসুদ। তার পরিবর্তে দলে সুযোগ হয় মালিকের।

শোয়েব মালিকটি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম আসরে পাকিস্তানের অধিনায়ক ছিলেন মালিক। তার নেতৃত্বে রানার্স-আপ হয়েছিলো পাকিস্তান। ঐ আসরে ১৯৫ রান ও ২ উইকেট নেন তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস/এএল