রাশিয়ায় সরকারি বৃত্তি পেতে চাইলে যা প্রয়োজন

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৮ ১৪২৮,   ১৪ সফর ১৪৪৩

রাশিয়ায় সরকারি বৃত্তি পেতে চাইলে যা প্রয়োজন

শিক্ষাঙ্গন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:২৪ ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১  

(ফাইল ছবি)

(ফাইল ছবি)

টিউশন ফি ছাড়াই পাড়াশোনার সুযোগ দিচ্ছে রাশিয়া। প্রতিবছর বাংলাদেশসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের শিক্ষার্থীরা দেশটির এই সুবিধা পেয়ে থাকে। এসব সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানাচ্ছেন রাশিয়ার পিপলস ফ্রেন্ডশিপ ইউনিভার্সিটির জেনারেল মেডিসিন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মো. রাফিউল ইসলাম। 

প্রতিবছর সাধারণত মার্চ-এপ্রিল মাসে আবেদন কার্যক্রম শুরু হয়। ক্লাস শুরু হয় সেপ্টেম্বর মাসে। এ বছর যদিও একটি সার্কুলারে ৩ সেপ্টেম্বর থেকে ১ নভেম্বর পর্যন্ত আরেকটি সেশনে আবেদন কার্যক্রম চলছে। 

আবেদনের তথ্য ও লিংক

এই স্কলারশিপে আবেদনের জন্য প্রথমে যোগাযোগ করতে হবে ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় অবস্থিত রাশিয়ান অ্যাম্বাসির সহযোগী সংস্থা বা সাংস্কৃতিক বিভাগ, যা বর্তমানে ‘দ্য রাশিয়ান হাউস’ নামে পরিচিত। অবস্থান–৪২ ভাষাসৈনিক এম এ মতিন রোড, ধানমন্ডি, ঢাকা-১২০৫। ফোন- +৮৮০১৮১৭২৯৪৫৯৫। ওয়েবসাইট লিংক-https://
bgd.rs.gov.ru. অনলাইন আবেদনের লিংক-https:// education-in-russia.com. বিস্তারিত ওয়েবসাইটে দেওয়া আছে।

যা যা লাগবে

১. একটি সাধারণ আবেদনপত্র জমা দিতে হবে যেখানে–

আবেদনকারীকে নিজের ব্যক্তিগত তথ্য
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তথ্য
সহশিক্ষা কার্যক্রমের বিবরণ
শিক্ষা/সহশিক্ষামূলক অর্জনের বিবরণ
নিজের শ্রেণিতে নেওয়া বিষয়গুলোর তালিকা ইত্যাদি তথ্য প্রদান করতে হয়।

২. একটি গ্রহণযোগ্য পাসপোর্ট, যা রাশিয়া পৌঁছানোর পর কমপক্ষে ১৮ মাস পর্যন্ত মেয়াদ থাকবে।

৩. সব শিক্ষাগত তথ্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক সত্যায়িত হতে হবে।

পড়াশোনার খরচ

টিউশন ফি ব্যতীত সব খরচ নিজেকে বহন করতে হয়। উল্লেখ্য, যাতায়াত খরচ, অ্যাম্বাসি ফি, বিভিন্ন তথ্যের ট্রান্সলেশনসহ যাবতীয় ব্যয় নিজেকে বহন করতে হয়। তবে পূর্ণ কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর শিক্ষার্থীরা প্রতি মাসে থাকা-খাওয়া বাবদ সরকার থেকে কিছু অর্থ স্টাইপেন্ড হিসেবে পেয়ে থাকে।

লেখাপড়ার মাধ্যম

গভর্নমেন্ট স্কলারশিপ নিয়ে গেলে রাশিয়ান ভাষায় পড়াশোনা করতে হয়। এ ক্ষেত্রে ১ বছর মেয়াদি ফাউন্ডেশন কোর্সের পর পছন্দমতো বিষয়ে পড়াশোনার সুযোগ পাওয়া যায়। যারা ইংরেজি মাধ্যমে পড়াশোনা করতে ইচ্ছুক, তাদের পড়াশোনার সম্পূর্ণ খরচ নিজেকে বহন করতে হবে। তবে এ ক্ষেত্রে বলা বাহুল্য যে, বিভিন্ন ইউনিভার্সিটি প্রতিবছর স্কলারশিপের আয়োজন করে, যার জোগান দেওয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ফান্ড থেকে। কেউ স্কলারশিপ পেলে বিশ্ববিদ্যালয় তার টিউশন ফি থেকে কিছু অংশ মওকুফ করে। রাশিয়ান ও ইংরেজি ছাড়াও কোনো কোনো ইউনিভার্সিটিতে স্প্যানিশ, চাইনিজ, আরবিসহ অন্যান্য কিছু ভাষায় পড়াশোনার সুযোগ রয়েছে। 

যেসব বিষয়ে পড়া যাবে

রাশিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গবেষণামূলক কার্যক্রমের পাশাপাশি লিবারেল আর্টস পাঠ্যক্রম অনুসরণ করে, যেখানে একজন শিক্ষার্থীর নিজের পছন্দমতো বিষয় নেওয়ার স্বাধীনতা থাকে। নিজের পছন্দমতো বিষয় নির্বাচন করার জন্য এক বছর পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়। প্রথম বছর শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থেকে রাশিয়ান ভাষাসহ উচ্চমাধ্যমিকের বেসিক বিষয়গুলো অধ্যয়ন করে। কৃতকার্য হওয়ার পর যে যার পছন্দের বিষয়ে অধ্যয়ন শুরু করতে পারে। এখানে বিজ্ঞান, মানবিক, মেডিকেল, ইঞ্জিনিয়ারিং ও সামাজিক বিজ্ঞানসহ বিভিন্ন বিষয় পড়াশোনা করার সুযোগ রয়েছে। এ ছাড়া রয়েছে কোর কারিকুলাম, যেখানে একজন শিক্ষার্থীকে নিজের বিষয়ের বাইরেও সব দিকে পারদর্শী হিসেবে গড়ে তোলে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম