রাজশাহীর ‘ফলিয়ার বিলে’ তিন শিক্ষার্থীর দৃষ্টিনন্দন রেস্টুরেন্ট 

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৮ ১৪২৮,   ১৪ সফর ১৪৪৩

রাজশাহীর ‘ফলিয়ার বিলে’ তিন শিক্ষার্থীর দৃষ্টিনন্দন রেস্টুরেন্ট 

রাবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:১২ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১  

রাজশাহীর পবা উপজেলার খড়খড়ি বাইপাস বাজার থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে ফলিয়ার বিলে এর অবস্থান

রাজশাহীর পবা উপজেলার খড়খড়ি বাইপাস বাজার থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে ফলিয়ার বিলে এর অবস্থান

সন্ধ্যার নির্মল বাতাস সঙ্গে আকাশে সদ্য উদিত চাঁদ। তার আলো আছড়ে পড়ছে বিলের পানিতে। সে জলরাশির উপরে বাঁশ আর কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে কয়েকটি কুঠির। সাদা আর লাল রঙে সাজানো হয়েছে ছোট্ট ছোট্ট কুঠিরগুলো। বলছিলাম অপরূপ সৌন্দর্যে পরিবেষ্টিত অগভীর জলরাশিতে নির্মিত ‘ফলিয়ার বিল জলকুঠি’ রেস্টুরেন্টের কথা। রাজশাহীর পবা উপজেলার খড়খড়ি বাইপাস বাজার থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে ফলিয়ার বিলে এর অবস্থান।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী পারভেজ মোশারফ, রাজশাহী কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ ইসমাইল তালুকদার, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী শিমুল পারভেজ এই তিন বন্ধু মিলে নিয়েছে এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। এই উদ্যোগে সহযোগিতা করেছেন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কয়েকজন শিক্ষার্থী। তারা হলেন- তুষার আব্দুল্লাহ, টুটুল তালুকদার, রুবেল আলী, মুহিত ইসলাম, এম.কে রানা, শাওন ইসলাম, শাকিল তালুকদারসহ আরো কয়েকজন। প্রায় ৪ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজ শেষ হয়েছে রেস্টুরেন্টটির। চলতি মাসের ৩ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিক ভাবে যাত্রা শুরু করে এটি।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিলের পাড় থেকে কিছুটা ভেতরে পানির কয়েক ফুট উপরে বাঁশ আর কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে বেশ কয়েকটি কুঠির। কুঠিরে যাওয়ার জন্য কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ব্রিজ। কুঠিরের ভেতরে চেয়ার টেবিল দিয়ে সুন্দর করে সাজানো হয়েছে। প্রতিদিন দৃষ্টিনন্দন এই রেস্টুরেন্টে ভিড় জমায় হাজারো মানুষ। চা, কফিতে আড্ডায় মেতে উঠেন তারা। 

রেস্টুরেন্টের অন্যতম উদ্যোক্তা পারভেজ মোশারফ বলেন, রাজশাহীতে এই প্রথম আমরাই প্রাকৃতিক পরিবেশে রেস্টুরেন্টের ব্যবস্থা করেছি। সবেমাত্র শুরু করেছি, আরো বৃহৎ পরিল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। কাস্টমাররা যে বিষয়গুলোতে বেশি স্বাচ্ছন্দবোধ করবে সে বিষয়গুলোতে গুরুত্ব দেয়ার চেষ্টা করছি। আমাদের রেস্টুরেন্ট প্রতিদিন দুপুর থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

পারভেজ আরো বলেন, আমাদের আশার থেকেও বেশি মানুষ প্রতিদিন ভিড় জমাচ্ছে এখানে। আমাদের রেস্টুরেন্টটি নতুন হলেও বেচা-বিক্রি আশানুরূপ। আমাদের এখানে ১২ জন কর্মরত রয়েছেন। আপাতত আমরা বার্গার, স্যান্ডুইস, পাস্তা, স্যুপ, মিল্কশেক, চা, কফিসহ ফাস্টফুড আইটেমগুলো প্রদান করছি। কিছুদিনের মধ্যে আমরা ম্যানুতে রিচফুড সংযোজন করবো।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে পারভেজ বলেন, শুরু করেছি মাত্র এক সপ্তাহ হয়েছে। সুদূরপ্রসারী চিন্তা-ভাবনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। ধাপে ধাপে আমাদের কুঠির বাড়ানোর চেষ্টা করবো। রাজশাহীর মধ্যে একটা ইউনিক রেস্টুরেন্ট বানাবো।

যেভাবে যাবেন: রাজশাহী শহর থেকে খড়খড়িয়া বাইপাস বাজার, বাজার থেকে ৬ কিলোমিটার উত্তরে কানপাড়া-মোনহগঞ্জ রোড। পবা থানার হাট গোদাগাড়ি পার হয়ে ফলিয়ার বিল ব্রিজ। সেই ব্রিজের পাশেই দৃষ্টিনন্দন এই রেস্টুরেন্ট। বাস কিংবা অটোরিক্সা যোগে যেতে পারেন এখানে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম