অলিম্পিকের ইতিহাসে প্রথম সোনা ভাগ করলেন দু’জন

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৯ ১৪২৮,   ১৫ সফর ১৪৪৩

টোকিও অলিম্পিক-২০২০

অলিম্পিকের ইতিহাসে প্রথম সোনা ভাগ করলেন দু’জন

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৫২ ২ আগস্ট ২০২১  

ইতালির জিয়ানমার্কো তামবেরি ও কাতারের মুতাজ ঈসা বারসিম

ইতালির জিয়ানমার্কো তামবেরি ও কাতারের মুতাজ ঈসা বারসিম

নির্ধারিত সময়ে জয়-পরাজয় নিশ্চিত না হলে খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। বিশ্বের বেশির ভাগ খেলাতেই তো নিয়মটা এমন। হাইজাম্পেও এর ব্যতিক্রম নয়। তবে অলিম্পিকের ১১৩ বছরের ইতিহাসে ব্যতিক্রম এক নজিরই স্থাপন করলেন কাতারের মুতাজ ঈসা বারসিম আর ইতালির জিয়ানমার্কো তামবেরি। টাইব্রেকারের প্রস্তাব নাকচ করে সোনা ভাগাভাগি করে নিলেন তারা। 

মুতাজ, জিয়ানমার্কো তো বটেই, বেলারুশের ম্যাক্সিম নেদাসেকাউও ২.৩৭ মিটার পর্যন্ত লাফিয়েছিলেন সমান সমানই। তিনজনই আবার বিশ্বরেকর্ড ২.৩৯ মিটারে লাফাতে গিয়ে গেলেন আটকে। 

তবে শেষতক শীর্ষে থাকলেন দুজন, ম্যাক্সিম ছিটকে গেলেন আগের লড়াইয়ের মাপকাঠিতে।

ফলে জিয়ানমার্কো আর মুতাজের কাছে নিয়ে আসা হলো টাইব্রেকার ‘জাম্প অফ’-এর প্রস্তাব। সেখানেই ঘটল ঘটনাটা। 

মুতাজ জিজ্ঞেস করলেন, ‘দুটো সোনার ব্যবস্থা করলে কেমন হয়?’ অফিসিয়ালের উত্তর, সেটা সম্ভব। মুতাজ মাথা ওপর নিচ করলেন। জিয়ানমার্কো শুধু সায়ই দিলেন না, মুতাজের হাতে হাত মেলালেন, তাকে গিয়ে জড়িয়েই ধরলেন, দুবার গড়াগড়ি খেলেন, চিৎকারও করলেন। 
প্রতিক্রিয়ায় বললেন, আমার এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না কী হয়েছে এটা। বিশেষ করে সোনাটা যখন একজন বন্ধুর সঙ্গে ভাগাভাগি করছি, তখন বিষয়টার মাহাত্ম্য বেড়ে যায় আরো।

প্রতিদ্বন্দ্বীর মতো অতোটা আবেগ ঘিরে ধরেনি মুতাজকে। কিন্তু অলিম্পিক পদকের মাহাত্ম্যটা বোঝেন কাতারি এই অ্যাথলেট। বললেন, আমার কাছে এখানে আসাটা, এখানের পারফর্ম্যান্সটার পর মনে হয়েছে আমি এই সোনা জেতার যোগ্য। সেও এমন কিছুই করেছে, আর তাই আমিও জানি, সে কম যোগ্য নয়।’

এমন ঘটনা ঢুকে গেছে অলিম্পিক ইতিহাসেরই সবচেয়ে হৃদয়স্পর্শী ঘটনার ছোট্ট তালিকাটায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, আন্তর্জাতিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বাহবা পাচ্ছে বেশ।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস