৭০০ পরিবারে ঈদের খুশি বিলিয়ে দিলেন ক্রিকেটার বিথী

ঢাকা, বুধবার   ০৪ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ২০ ১৪২৮,   ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

৭০০ পরিবারে ঈদের খুশি বিলিয়ে দিলেন ক্রিকেটার বিথী

রংপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৫৯ ২২ জুলাই ২০২১   আপডেট: ২০:০০ ২২ জুলাই ২০২১

ক্রিকেটার আরিফা জাহান বিথী

ক্রিকেটার আরিফা জাহান বিথী

দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্নভাবে অসহায় মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন ক্রিকেটার আরিফা জাহান বিথী। দেশে বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করলেও থেমে থাকেননি তিনি। ঈদুল আজহা উপলক্ষে অসহায় মানুষের মাঝে বিতরণ করেছেন কোরবানির মাংস।

আরিফা জাহান বিথী এবারের ঈদে বিভিন্ন জনের সহযোগিতায় তিনটি গরু ও তিনটি খাসি কোরবানি দিয়েছেন। এরপর ঈদের দিনই বাড়ি বাড়ি গিয়ে ৭০০ পরিবারে মাংস পৌঁছে দিয়েছেন।

বুধবার দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত রংপুর নগরীর ঘনবসতিপূর্ণ নূরপুর, মহাদেবপুর, লালবাগ রেলস্টেশন, আদর্শপাড়া, মণ্ডলপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় অসহায়-দুস্থ, কর্মহীন, নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারে কোরবানির মাংসের প্যাকেট বিতরণ করেন বিথী। মানবিক এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে অনেকেই তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৪ জুলাই বিথীর তার নিজের ফেসবুক আইডিতে অসহায়দের জন্য ঈদে কোরবানি করতে সহায়তা চেয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন। সেখানে লেখা ছিল- ‘আপনারা সহযোগিতা করলে এই কোরবানি ঈদে অসহায় নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত ৪০০ পরিবারের জন্য ইনশাআল্লাহ কোরবানি আয়োজন করা হবে। আর সেই গোশত ইনশাআল্লাহ সকলের কাছে নিজে পৌঁছে দেব।’

ঈদের দিন বাড়ি বাড়ি গিয়ে ৭০০ পরিবারে কোরবানির মাংস পৌঁছে দেন আরিফা জাহান বিথী ও তার একাডেমির প্রশিক্ষণার্থীরা

বিথীর এই মানবিক পোস্ট দেখে অনেকেই সহযোগিতার আশ্বাস দেন। মাত্র সাতদিনেই দেশ-বিদেশের অন্তত ৭০ জনের কাছ থেকে প্রায় চার লাখ টাকা আসে। সেই টাকায় কোরবানির জন্য তিনটি গরু ও তিনটি ছাগল কেনার ব্যবস্থা হয়ে যায়। এরপর ভুক্তভোগীদের বাড়ি বাড়ি খোঁজ নিয়ে একটি খসড়া তালিকা তৈরি করেন বিথী। পূর্বপরিকল্পনার চেয়ে একটি বেশি গরু কিনতে পারায় ভুক্তভোগীর সংখ্যা ৪০০ থেকে ৭০০ জনে পৌঁছায়। এ তালিকায় ৩০ জন নৈশ্যপ্রহরীসহ দিনমজুর, রিকশাচালক, শ্রমিক ও অসহায় দুস্থরা রয়েছেন।

ঈদের দিন সকালে গরু ও ছাগল কোরবানি করা হয়। এরপর মাংস কাটাকাটি ও প্যাকেট করতে বিথীকে সহযোগিতা করে তার নিজের গড়া উইমেন্স ড্রিমার ক্রিকেট একাডেমির একঝাঁক কিশোরী। বিথীর মানবিক এ উদ্যোগে অংশ নিতে ছুটে আসেন তার নিজ এলাকার অসংখ্য তরুণ-তরুণী। দুপুরের পর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত তালিকা দেখে দেখে পাড়া-মহল্লায় ঘুরে ঘুরে মাংস বিলি করেছেন তারা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিথী তার উদ্যোগে সহযোগিতার হাত বাড়ানো সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে ফেসবুকে আরেকটি পোস্ট দেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘ঈদ মোবারক। আলহামদুলিল্লাহ। ৩টি গরু এবং ৩টি ছাগল কোরবানি করে ৭০০ পরিবারের মাঝে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিলাম। যার সম্পূর্ণ ক্রেডিট আপনাদের। কালকের দিনটা আমাদের জন্য ছিল অসাধারণ।’

বিথী আরো লিখেছেন, ‘এই কাজে যারা যারা পাশে ছিলেন, তাদের সবাইকে অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা। আপনারা পাশে না থাকলে হয়তো সম্ভব হতো না এত সুন্দর কাজটি সম্পন্ন করা। ঈদ আনন্দ ভাগাভাগির সময়টা ছিলো একদম অন্যরকম। তাদের চোখ-মুখের ভাষা বলে দিচ্ছিল তারা কতটা খুশি ছিলেন।’

আরিফা জাহান বিথী বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে অসহায়-দুস্থরা খুব বেশি ভালো নেই। বিশেষ করে মধ্য ও নিম্নবিত্ত পরিবারগুলো ভীষণ কষ্টে আছে। ঈদের সবাই যাতে একবেলা কোরবানির মাংস রান্না করে খেতে পারেন, এ জন্যই উদ্যোগ নিয়েছিলাম।

তিনি আরো বলেন, মানবিক সহায়তা চেয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার পর দেশের এবং প্রবাসের অনেকের কাছ থেকে সাড়া পেয়েছি। সত্যি আমি আনন্দিত, এ রকম কাজ করতে পেরে। বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া মাংসের পরিমাণ নির্ধারণ করা হয় পরিবারের সদস্য সংখ্যা অনুপাতে। যাতে সব পরিবারের সবাই ভালো খেতে পারেন।

আরিফা জাহান বিথী ২০১০ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ, প্রথম বিভাগ ক্রিকেটে খেলেছেন। এরপর অসুস্থতার কারণে পেশাদার ক্রিকেট ক্যারিয়ার বিসর্জন দেন

উল্লেখ্য, দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের শুরুর দিকে অন্তঃসত্ত্বা নারীদের সেবায় নেমে পড়েন ক্রিকেটার আরিফা জাহান বিথী। তার এ উদ্যোগে জাতীয় দলের অনেক ক্রিকেটার সাড়া দেন। গেল দেড় বছরে পাঁচ হাজারের বেশি অসহায়, দুস্থ, কর্মহীন মানুষের পাশাপাশি সন্তানসম্ভবাকে সেবা দিয়েছেন সাবেক এ ক্রিকেটার। নিজের জমানো টাকা আর অন্যের সহযোগিতার সমন্বয়ে কয়েক হাজার মানুষের দুয়ারে চাল, ডাল, তেল, লবণ, ফল, দুধ, ডিম ও হরলিকসসহ প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর খাবার পৌঁছে দিয়েছেন।

রমজানেও অসহায় ব্যক্তিদের হাতে হাতে ইফতার পৌঁছে দিয়েছেন তিনি। এই নারী ক্রিকেটার অন্তত ২৫ অসহায় নারীকে সেলাই মেশিন দিয়ে স্বাবলম্বী করেছেন। ঘরহীন ১০টি পরিবারকে দিয়েছেন নতুন ঘর। সহায়-সম্বলহীন ২১ জন শিক্ষার্থীকে কলেজে ভর্তির জন্য আর্থিক সহযোগিতা দিয়েছেন।

এর আগে, ২০১৯ সালের ২৬ অক্টোবরে রংপুর জেলা স্টেডিয়ামে নারীদের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে উইমেন্স ড্রিমার ক্রিকেট একাডেমি নামে প্রশিক্ষণ একাডেমি গড়ে তোলেন বিথী। সেখানে ২৫০ জন নারী বিনামূল্যে ক্রিকেট প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন।

আরিফা জাহান বিথী ২০১০ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ, প্রথম বিভাগ ক্রিকেটে খেলেছেন। ঢাকার ওরিয়েন্ট স্পোর্টিং ক্লাব, কলাবাগান, রায়েরবাজার ক্রিকেট দলে ওপেনিং ব্যাট করতে নামতেন। ২০১৭ সালে অসুস্থতার কারণে চিকিৎসকের পরামর্শে পেশাদার ক্রিকেট ক্যারিয়ার বিসর্জন দিতে হয়েছে তাকে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর