পাজর ভেঙেছে না জেনেই খেলে গেছেন শচীন!

ঢাকা, রোববার   ১৩ জুন ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪২৮,   ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

পাজর ভেঙেছে না জেনেই খেলে গেছেন শচীন!

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৫৪ ১৭ মে ২০২১  

শচীন টেন্ডুলকার

শচীন টেন্ডুলকার

সর্বকালের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার। ২৪ বছরের দীর্ঘ আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে একাধিকবার চোটের কবলে পড়েছেন তিনি। এর মাঝে একবার তার পাজর ভেঙে গিয়েছিল। সেটা না জেনেই খেলা চালিয়ে গিয়েছিলেন লিটল মাস্টার। 

১৯৯৯ সালের আগে পর্যন্ত সব কিছু ঠিকঠাক চললেও তারপর থেকে একের পর এক চোট-আঘাতে ভুগেছেন শচীন টেন্ডুলকার। গোড়ালির চোট ছাড়াও টেনিস এলবোর চোটে জর্জরিত হয়েছেন তিনি। 

তবে হার না মানা অদম্য জেদের উপর ভর করে সব বাধা অতিক্রম করেছেন শচীন। কিন্তু একবার শোয়েব আখতারের বলে তার পাঁজর ভাঙার বিষয়ে অবগতই ছিলেন না লিটল মাস্টার।

সম্প্রতি এ বিষয়ে কথা বলেছেন শচীন। ২০০৭ সালে ভারত সফরে এসেছিল পাকিস্তান। সেবার গৌহাটিতে প্রথম একদিনের ম্যাচ খেলার সময় শোয়েবের বলে পাঁজরে চোট পেয়েছিলেন তিনি। 

সেই ঘটনার কথা তুলে ধরে শচীন বলেন, ২০০৭ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচের প্রথম ওভারে শোয়েবের একটা বল আমার পাঁজরে লাগে। সেই জন্য প্রায় এক-দুমাস যন্ত্রণায় ঘুমোতে পারতাম না। তবে খেলা চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নিজেই ‘রিব গার্ড’ তৈরি করেছিলাম। 

তিনি আরো বলেন, পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সিরিজ শেষ করে অস্ট্রেলিয়া সফরে চলে যাই। সেখানে গিয়ে টেস্ট ও একদিনের সিরিজ খেলতে থাকি। তবে অস্ট্রেলিয়া সফরের শেষ দিকে কুঁচকির চোট বড় হয়ে দাঁড়ায়। তাই দেশে ফিরে সারা শরীর স্ক্যান করার সিদ্ধান্ত নিই। সেই সময়ই আমার ডাক্তার আমায় পাঁজর ভাঙার বিষয়ে জানান।

শোয়েবের কাছ থেকে পাওয়া সেই চোটের জন্য ২০০৮ সালের আইপিএলের সাতটি ম্যাচ খেলতে পারেননি শচীন। তিনি যোগ করেন, আমার পাঁজরের যে বেহাল অবস্থা সেটা জানতাম না। আমি তো কুঁচকির চোট নিয়ে চিন্তায় ছিলাম। কিন্তু ডাক্তার আমার শরীর স্ক্যান করার পর জানতে পারি পাঁজরের হাড় ভেঙে গেছে। সেই জন্য আইপিএল-এর সাতটা ম্যাচ খেলতে পারিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল