মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে পথ চলা শুরু করলো হিসাব

ঢাকা, শনিবার   ০৬ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২২ ১৪২৭,   ২১ রজব ১৪৪২

মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে পথ চলা শুরু করলো হিসাব

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৫৫ ১১ জানুয়ারি ২০২১  

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হলো দেশের প্রযুক্তিখাতের অন্যতম প্রতিষ্ঠান ‘হিসাব’

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হলো দেশের প্রযুক্তিখাতের অন্যতম প্রতিষ্ঠান ‘হিসাব’

আগামী এক বছরের জন্য মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হলো দেশের প্রযুক্তিখাতের অন্যতম প্রতিষ্ঠান ‘হিসাব’। ফুটবল এগিয়ে যাও, বাংলাদেশকে এগিয়ে নাও- এই স্লোগানকে সামনে রেখে আগামী এক বছর মুক্তিযোদ্ধা ফুটবল ক্লাবের টাইটেল স্পন্সর হলো হিসাব।

রাজধানীর একটি হোটেলে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এবং হিসাবের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের প্রধান পৃষ্ঠপোষক মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি। এছাড়াও হিসাবের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও যুবায়ের আহমেদ, সিইও ফায়াদিন ফারাবি, হিসাবের অঙ্গ সংগঠন প্রতিষ্ঠান ভয়েজ ব্রিজের ম্যানেজিং ডিরেক্টর শামীম আরা খানম, মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের সভাপতি এবং জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের মহাপরিচালক জহিরুল ইসলাম রোহেল, সাধারণ সম্পাদক সুফি আব্দুল্লাহিল মারুফ, জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক রকিবুল হাসান, মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের ম্যানেজার মো. আরিফুল ইসলাম, খেলোয়াড়, কোচ ছাড়াও অন্যরা এই চুক্তি সাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

টাকার অভাবে দল গঠন করতেই হিমশিম খাচ্ছিল দেশের অন্যতম পুরনো এবং জনপ্রিয় ক্লাব মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র। এমনও শোনা গিয়েছিল এবার নাকি মাঠেই নামবে না ক্লাবটি! খেলোয়াড়দের ক্লাব ছেড়ে যেতেও বলা হয়েছিল। এই ঘটনায় ভেঙে পড়েছিলেন মুক্তিযোদ্ধার খেলোয়াড়রা। 

ক্লাব ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম ওই সময় খেলোয়াড়দের মনোবল চাঙা রাখতে ভূমিকা রাখেন। আশ্বাস দেন যেভাবেই হোক মাঠে তারা নামবেই। কথা রেখেছেন আরিফুল। সঙ্গে ছিলেন ক্লাবটির অধিনায়ক জাপানিজ ইউসুকে কাতো। দুজনে মিলে ভঙ্গুর দলটিতে প্রাণ ফিরিয়ে এনেছেন। বিশেষ করে মুক্তিযোদ্ধার জাপানি খেলোয়াড় অধিনায়ক কাতো। মূলত কাতোর এক ভিডিও বার্তাই মুক্তিযোদ্ধার জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছে। 

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) নতুন মৌসুম ২০২০-২১ সূচি ঘোষণার পর পরই মাঠের অনুশীলন শুরু করে মুক্তিযোদ্ধা। খেলোয়াড়রা যোগ দেন ক্যাম্পে। কিন্তু কদিন পেরুনোর পরই টানাপোড়ন শুরু হয়ে যায়। ক্লাব চালাতে যে অর্থের প্রয়োজন তাতে টান পড়ে। নিজের পকেটের পয়সা খরচ করে কিছুদিন অনুশীলন এবং ক্যাম্প কার্যক্রম চালিয়ে নেন ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম। কিন্তু এভাবে কতদিন! এক সময় আরিফুলের পকেটও শূন্য হয়ে পড়ে। আরিফ যোগাযোগ করেন ক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজ্জামেল হকের সঙ্গে। ক্লাব অফিসিয়াল, খেলোয়াড়রা মিলে দেখা করেন মন্ত্রীর সঙ্গে। নিজেদের সমস্যার কথা মন্ত্রীকে জানান মুক্তিযোদ্ধার অফিসিয়াল, খেলোয়াড়রা। সমস্যা সমাধানে তৎক্ষণাত কোনো উদ্যোগ সে সময় নিতে পারেননি মন্ত্রী। শুধু আশারবানী শোনান। 

এই ঘটনায় আরো বেশি ভেঙে পড়েন মুক্তিযোদ্ধার খেলোয়াড়রা। নিজেদের রুটি-রুজি হারানোর শঙ্কা জাগে তাদের মনে। অনেকে কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় ত্রাতারূপে হাজির হন ক্লাবটির অন্যতম খেলোয়াড় অধিনায়ক জাপানিজ কাতো এবং ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম। মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের যাবতীয় সমস্যার কথা তুলে ধরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করেন কাতো। সেটি ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়; আলোচনা সৃষ্টি করে। কাতোর সেই ভিডিও বার্তা দেখে এগিয়ে আসে জাপানের একটি প্রতিষ্ঠান। তাদের সহযোগিতায় ফেডারেশন কাপে মাঠে নামে মুক্তিযোদ্ধা। এবার এগিয়ে এলে বাংলাদেশে জাপানেরই আরেক প্রতিষ্ঠান হিসাব।

হিসাবের এই মহতী উদ্যোগকে, মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের টাইটেল স্পন্সর হওয়াতে দারুণ খুশি মন্ত্রী মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তির দ্বারপ্রান্তে আমরা। মুক্তিযোদ্ধা ক্লাব স্বাধীনতার স্মারক বহনকারী একটি দল। টাকার অভাবে ক্লাবটি হাবুডুবু খাচ্ছিল। এই সময় হিসাব এগিয়ে আসায় আমরা তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। একই সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের অধিনায়ক ইউসুকে কাতো এবং ম্যানেজার আরিফকেও ধন্যবাদ। স্পন্সরের জন্য তারা অনেক কষ্ট করেছেন। বিশেষ করে কাতো। দেশের কোনো প্রতিষ্ঠান বিপদের সময় মুক্তিযোদ্ধার পাশে এসে দাঁড়ায়নি। কিন্তু হিসাব এসেছে। আশাকরি মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে তাদের পথচলা সুদীর্ঘ হবে’। 

ভবিষ্যতে যাতে এই ধরনের সংকটে আর না পড়তে হয় সেজন্য ক্লাবটির পরিচালনা পর্ষদকে ঢেলে সাজানোরও পরামর্শ দিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী। 

মন্ত্রীর সুরে সুর মিলিয়েছেন ম্যানেজার আরিফও। টাইটেল স্পন্সর হিসেবে হিসাব যুক্ত হওয়াতে প্রতিষ্ঠানটিকে ধন্যবাদ দিয়েছেন তিনি। 

হিসাবের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও যুবায়ের আহমেদ বলেন, আমরা যখন কাতোর ভিডিও বার্তাটা দেখি আমাদের ভীষণ খারাপ লেগেছে। একজন জাপানি নাগরিক আমাদের দেশের ক্লাবকে বাঁচাতে এগিয়ে আসার আহবান জানাচ্ছে।এটা দেখার পর আমরা সিদ্ধান্ত নেই মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে থাকার। আপাতত এক বছরের জন্য আমরা চুক্তিবদ্ধ হচ্ছি। আশাকরি এটা আরো দীর্ঘ হবে। 

মুক্তিযোদ্ধার অধিনায়ক কাতো বলেন, আমি আজ অনেক খুশি। এত বড় আয়োজনের মধ্য দিয়ে টাইটেল স্পন্সর হিসেবে হিসাব আমাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে আমাদের পরিশ্রম-চেষ্টা অনেকটাই সার্থক হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস