বঙ্গবন্ধু ম্যারাথনে চ্যাম্পিয়ন মরক্কোর হিসাম ও কেনিয়ার এডিউন

ঢাকা, শনিবার   ০৬ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২২ ১৪২৭,   ২১ রজব ১৪৪২

বঙ্গবন্ধু ম্যারাথনে চ্যাম্পিয়ন মরক্কোর হিসাম ও কেনিয়ার এডিউন

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:১৩ ১০ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ২২:৫৩ ১০ জানুয়ারি ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১ প্রতিযোগিতায় এক বিজয়ী বক্তব্য রাখেন- ছবি: সংগৃহীত

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১ প্রতিযোগিতায় এক বিজয়ী বক্তব্য রাখেন- ছবি: সংগৃহীত

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসটিকে রাঙিয়ে তুলতেই বাংলাদেশ সেনাবাহিনী আয়োজন করে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন’। ফুল ম্যারাথনে প্রথম হয়েছেন মরক্কোর হিশাম লাকোহি ও হাফ ম্যারাথেন প্রথম হয়েছেন কেনিয়ার এডউইন কিপরভ।

এর আগে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি। এ সময় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি উপস্থিত ছিলেন। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সারা পৃথিবীতে বঙ্গবন্ধু ম্যারাথনই ২০২১ সালের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া অনুষ্ঠান। ক্রীড়া ক্ষেত্রে এই ইভেন্ট একটা মাইলফলক হয়ে থাকবে।

এ ম্যারাথনের আয়োজন করায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন ও বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনকে (বিওএ) ধন্যবাদ জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

ম্যারাথন আর্মি স্টেডিয়াম থেকে বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ, গুলশান-২ চত্বর, গুলশান-১ চত্বর হয়ে হাতিরঝিলে এসে শেষ হয়। সেখানে দুই চক্কর ঘুরে হাফ ম্যারাথন ও পাঁচ চক্কর ঘুরে ফুল ম্যারাথন শেষ হয়। 

স্বাগতিক বাংলাদেশ ছাড়াও ইথিওপিয়া, ফ্রান্স, কেনিয়া, বাহরাইন, মরক্কো, ইউক্রেন, বেলারুশ, মালদ্বীপ, নেপালসহ ২০০টি দেশের অ্যাথলেট অংশ নেন ফুল ও হাফ ম্যারাথনে। 

বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে স্বাগতিক অ্যাথলেট ছাড়াও আধিপত্য দেখিয়েছে মরক্কো,কেনিয়া ও ইথিপিওয়ার অ্যাথলেটরা। বাংলাদেশের সাধারণ দৌড়বিদদের পাশাপাশি সেনাবাহিনী ও আনসার সদস্যরাও ম্যারাথনে অংশ নেন।

প্রতিযোগিতায় এলিট ক্যাটাগরিতে পুরুষ বিভাগে ২ ঘণ্টা ১০ মিনিট ৪০ সেকেন্ড সময় নিয়ে প্রথম হয়েছেন মরক্কোর হিশাম লাকোহি। ২ ঘণ্টা ১০ মিনিট ৫১ সেকেন্ড সময় নিয়ে মরক্কোর আজিজ লামবাভি দ্বিতীয় এবং ২ ঘণ্টা ১৩ মিনিট ১২ সেকেন্ড সময় নিয়ে তৃতীয় হয়েছেন কেনিয়ার জ্যাকব কিভেট। 

এই ক্যাটাগরিতে নারীদের মধ্যে কেনিয়ার অ্যাঞ্জেলা জিম আসুন্দে ২ ঘণ্টা ২৯ মিনিট ৪ সেকেন্ড সময় নিয়ে প্রথম, ২ ঘণ্টা ৩২ মিনিট ৩১ সেকেন্ড সময় নিয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন ইথিপিওয়ার ফান্তু এথিসা জিম্মা এবং তৃতীয় হওয়া ইথিপিওয়ার বিরুপ তাহিত এসেতু দিগাফফা সময় নিয়েছেন ২ ঘণ্টা ৩৫ মিনিট ১৬ সেকেন্ড।

প্রতিযোগিতার একটি দৃশ্য

সাফ ক্যাটাগরিতে পুরুষদের বিভাগে আধিপত্য ছিল ভারতের। তাদের বাহাদুর সিং ২ ঘণ্টা ১১ মিনিট ৩৪ সেকন্ড সময় নিয়ে প্রথম হয়েছেন। নারীদের এই বিভাগে নেপালের পুষ্পা ভান্ডারি প্রথম হয়েছেন ২ ঘণ্টা ৫৯ মিনিট ৪১ সেকেন্ড সময় নিয়ে।

এদিকে বাংলাদেশি রানার্স বিভাগে পুরুষদের মধ্যে ২ ঘণ্টা ৯ মিনিট ২ সেকেন্ড সময় নিয়ে প্রথম হয়েছেন ফারদিন মিয়া। রানারআপ কামরুল হাসান সময় নিয়েছেন ২ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড। তৃতীয়স্থান অর্জন করা ফিরোজ খান সময় নেন ২ ঘন্টা ৪৯ মিনিট ৩০ সেকেন্ড।

হাফ ম্যারাথনে ছেলেদের মধ্যে প্রথম হন কেনিয়ার এডউইন কিপরভ। তিনি সময় নেন ১ ঘন্টা ৪ মিনিট ১১ সেকেন্ড। একই বিভাগে নারীদের এলিট ক্যাটাগরিতে ১ ঘণ্টা ১৪ মিনিট ৪২ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেরা হন কেনিয়ার নাউম জেবেথ। 

হাফ ম্যারাথন বাংলাদেশি রানারদের মধ্যে ১ ঘণ্টা ১৫ মিনিট ১৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে প্রথম হন মো. সোহেল রানা। রানারআপ ইলাহি সর্দার সময় নেন ১ ঘণ্টা ১৬ মিনিট ২০ সেকেন্ড এবং তৃতীয় হওয়া আল আমিনের টাইমিং ছিল ১ ঘণ্টা ১৬ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে। 

বাংলাদেশি রানার নারীদের ইভেন্টে প্রথম হয়েছেন পাপিয়া খাতুন। তিনি সময় নিয়েছেন ১ ঘণ্টা ৪২ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড। ১ ঘণ্টা ৫০ মিনিট ২ সেকেন্ডে রানারআপ সুমি আক্তার (জাতীয় অ্যাথলেটিকসে ৪০০, ৮০০ ও ১৫০০ ও ৩০০০ মিটারে স্বর্ণজয়ী) এবং ১ ঘণ্টা ৫৫ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে তৃতীয় হয়েছেন সারওয়াত পারভিন। 

খেলা শেষে সকাল ১১টায় হাতিরঝিলের এম্ফিথিয়েটারে বিজয়ীদের হাতে অর্থ পুরস্কার তুলে দেন সেনাবাহিনী প্রধান ও বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) সভাপতি জেনারেল আজিজ আহমেদ। 

সমাপনী বক্তব্যে জেনারেল আজিজ আহমেদ নিয়মিত এই ম্যারাথন আয়োজনের কথা বলেন এবং সে লক্ষ্যে আগামীতে অ্যাথলেটদের এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে বলেন। 

এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীসহ আয়োজক ও পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন- ২০২১ এর ফুল ম্যারাথন, হাফ ম্যারাথন এবং ডিজিটাল ম্যারাথন ক্যাটাগরিতে লড়েছেন দেশি-বিদেশি দৌড়বিদরা। ৪২ দশমিক ১৯৫ কিলোমিটার দীর্ঘ ফুল ম্যারাথনে দেশি-বিদেশি ১০০ জন দৌড়বিদ লড়েছেন। 

এরপর ২১ দশমিক ৯৭ কিলোমিটার দীর্ঘ হাফ ম্যারাথনে অংশ নিয়েছেন আরও ১০০ জন দৌড়বিদ। বিদেশি দৌড়বিদদের মধ্যে ১৭ জন লড়েছেন ‘এলিট’ শ্রেণিতে এবং ১২ জন লড়েছেন ‘সাব এলিট’ শ্রেণিতে। 

ফুল ম্যারাথনে পুরুষ ও নারী বিদেশি এলিট বিভাগে চ্যাম্পিয়ন ১৫ হাজার মার্কিন ডলার করে, রানার আপ ১০ হাজার ডলার করে, তৃতীয় পাঁচ হাজার ডলার করে, চতুর্থ চার হাজার, পঞ্চম তিন হাজার, ষষ্ঠ দু’হাজার এবং সপ্তম স্থান অর্জনকারী এক হাজার ডলার করে পুরস্কার পান। 

সার্কভুক্ত দেশ ও বাংলাদেশের পুরুষ ও নারী দৌড়বিদদের মধ্যে চ্যাম্পিয়নরা পাঁচ লাখ টাকা করে, রানার আপ চার লাখ টাকা করে, তৃতীয় স্থান অর্জনকারী তিন লাখ করে, চতুর্থ স্থান অর্জনকারী দু’লাখ এবং পঞ্চম স্থান অর্জনকারী এক লাখ টাকা করে পান। 

হাফ ম্যারাথনে পুরুষ এবং নারী দুই বিভাগেই বিদেশি এলিট বিভাগের চ্যাম্পিয়ন দু’হাজার ৭০০ মার্কিন ডলার, রানারআপ এক হাজার ৫০০ ডলার এবং তৃতীয় হওয়া দৌড়বিদ ৭৫০ ডলার পান। বাংলাদেশি পুরুষ ও নারী অ্যাথলেটদের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন আড়াই লাখ টাকা করে, রানার আপ দুই লাখ করে, তৃতীয় দেড় লাখ করে, চতুর্থ এবং পঞ্চম স্থান অর্জনকারী ১০ হাজার টাকা করে পেয়েছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস/এমকেএ/আরএস