রামোস না থাকলেই জেতে না রিয়াল!

ঢাকা, বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১১ ১৪২৭,   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪২

রামোস না থাকলেই জেতে না রিয়াল!

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৫৭ ২২ অক্টোবর ২০২০  

সার্জিও রামোস

সার্জিও রামোস

বুধবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে মৌসুমে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দুর্বল শাখতার দোনেৎস্কের কাছে হেরেছে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ। এই ম্যাচে বিশ্রামে ছিলেন রিয়ালের নিয়মিত অধিনায়ক সার্জিও রামোস। অবাক হলেও সত্য, সাম্প্রতিক সময়ে রামোস না খেললে সেই ম্যাচে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেনি লস ব্লাঙ্কোসরা। তিনি যেনো অনেকটাই দলের ভাগ্য ঘুরিয়ে দেয়া কেউ!

গতকাল শাখতারের মুখোমুখি হওয়ার আগে লা লিগায় নিজেদের সর্বশেষ ম্যাচে কাদিজের কাছে ১-০ গোলে হেরে যায় রিয়াল মাদ্রিদ। সেই ম্যাচে হাঁটুর চোট নিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন রামোস। মূলত এই কারণেই শাখতারের বিপক্ষে রামোসকে খেলানোর ঝুঁকি নেননি কোচ জিনেদিন জিদান। কারণ পরশু রয়েছে মৌসুমের প্রথম ‘এল ক্লাসিকো’। 

রিয়ালের রক্ষণভাগে তারকা খেলোয়াড়ের অভাব নেই। রামোস ছাড়াও আছেন রাফায়েল ভারানে, এডার মিলিতাও, ফারলাঁ মেন্দি, মার্সেলোর মতো খেলোয়াড়। তবুও শুধু রামোস না থাকলেই সাম্প্রতিক সময়ে জিততে পারছে না রিয়াল। তিনি না থাকলে ইউরোপের অন্যতম সেরা ক্লাবটাই যেন দিশাহীন নাবিকের তরী হয়ে পড়ে। দলকে উদ্দীপ্ত করার মতো কোনো ‘নেতা’ মাঠে খুঁজে পাওয়া যায় না। এমনকি নিজেদের রক্ষণভাগে প্রতিপক্ষ ফরোয়ার্ডদের জন্য ত্রাসের সঞ্চার করার মতো কেউও থাকে না! 
রামোসের বর্তমান বয়স ৩৪ বছর। খুব বেশিদিন যে তিনি খেলবেন না তা বলাই যায়। তবে এখনো তার বিকল্প বের করতে পারেনি রিয়াল। গতকাল শাখতারের বিপক্ষে হারটা যেন সেটাই আরেকবার প্রমাণ করে গেলো।

পরিসংখ্যানও রামোসহীন রিয়ালের দুর্দশার প্রমাণ দিচ্ছে। রামোসকে ছাড়া খেলতে নামা সর্বশেষ ৮ ম্যাচের মধ্যে ৭টিতেই হার দেখেছে রিয়াল। বলা যায় রামোসকে ছাড়া ইউরোপে রিয়ালের ‘কালো অধ্যায়’ শুরু হয়েছে ২০১৭-১৮ মৌসুম থেকে। সেবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ফিরতি লেগে রামোসকে ছাড়াই জুভেন্টাসের বিপক্ষে নেমেছিল রিয়াল। প্রথম লেগে ৩ গোলের ব্যবধান ঘুচিয়ে ফিরতি লেগে ঠিকই ঘুরে দাঁড়িয়েছিল ইতালিয়ান ক্লাবটি। 

পরের মৌসুমে (২০১৮-১৯) গ্রুপপর্বে সিএসকেএ মস্কোর বিপক্ষে দুই ম্যাচেই রামোসকে বিশ্রাম দিয়েছিলেন জিনেদিন জিদান। ওই দুই ম্যাচে রিয়ালকে মোট ৪ গোল দেয় রাশিয়ান ক্লাবটি। শেষ ষোলোর ফিরতি লেগে আয়াক্সের বিপক্ষেও নিষেধাজ্ঞা থাকায় মাঠে নামতে পারেননি রামোস। ডাচ ক্লাবটি রিয়ালের রক্ষণভাগ ছিন্নভিন্ন করে এক হালি গোল দিয়েছিল। 

পরের মৌসুমে প্যারিসে পিএসজির মাঠে ৩-০ গোলে হারে রিয়াল মাদ্রিদ। সে ম্যাচেও নিষেধাজ্ঞার কারণে ডাগআউটে বসে দলের হার দেখেন এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডার। এরপর শেষ ষোলোর ফিরতি লেগে নিষিদ্ধ থাকা রামোসকে একইভাবে ডাগআউটে দর্শক বানিয়ে রিয়ালকে ২-১ গোলে হারায় ম্যান সিটি। লস ব্লাঙ্কোসরাও ছিটকে যায় প্রতিযোগিতা থেকে।

চলতি মৌসুমেও একই অবস্থার পুনরাবৃত্তি দেখলো রিয়াল। রামোস দলের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা হয়তো হারে হারে টের পাচ্ছে দলটি। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল