ক্রিকেটারদের ‘জৈব সুরক্ষা বলয়’ কী?

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৭,   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

ক্রিকেটারদের ‘জৈব সুরক্ষা বলয়’ কী?

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৫৭ ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৯:৩৪ ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

করোনা পরবর্তী সময়ে সবার আগে ক্রিকেট সিরিজ আয়োজন করেছে ইংল্যান্ড। বায়ো সেফটি বাবল বা জৈব সুরক্ষা বলয় তৈরি করে মাঠের ক্রিকেট চালু রেখেছে তারা। এই পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়েই আয়োজিত হচ্ছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল)। এছাড়া আজ থেকে জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকবেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররাও। 

অনেকের মনেই প্রশ্ন আসতে পারে ‘জৈব সুরক্ষা বলয়’ জিনিসটা আসলে কী? এ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা দিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী।

বিসিবির পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় দেবাশীষ বলেন, ‘করোনা সংক্রমণের এই সংকটকালে ক্রিকেটসহ বিশ্বের অন্য সব ক্রীড়া সংস্থাগুলো বিভিন্ন ধরণের পরিকল্পনা গ্রহণের মাধ্যমে ধীরে ধীরে খেলায় ফিরে আসছে। ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) নির্দেশনায় ক্রিকেট খেলুড়ে দেশগুলো তাদের নিজস্ব পরিকল্পনার মাধ্যমে পেশাদার ক্রিকেটে ফিরছে। সম্প্রতি ইংল্যান্ড চারটি দেশকে আতিথেয়তা দিয়েছে। খুব সাফল্যের সঙ্গেই দেশটি গ্রীষ্মকালীন ক্রিকেটীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় বিসিবি জৈব সুরক্ষিত পরিবেশের মাধ্যমে খেলায় অংশ নেয়া ক্রিকেটারদের ঝুঁকি কমানোর চেষ্টা করছে।’

বিসিবির মেডিকেল টিমের তৈরি করা সুরক্ষা বলয়ের আওতায় থাকবে খেলোয়াড়দের হোটেল, রেস্টুরেন্ট, জিম, সুইমিংপুল, যানবাহন, মেডিকেল ট্রিটমেন্ট রুমসহ সবই। সেক্ষেত্রে ইংল্যান্ড অ্যাান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) কার্যক্রমই অনুসরণ করবে বিসিবি।

এ প্রসঙ্গে দেবাশীষ বলেন, ‘বাংলাদেশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও কোভিড-১৯ বিশেষজ্ঞদের তত্ত্বাবধায়নে ইসিবি ও আইসিসির গাইডলাইন মেনে আমরা প্রত্যেক খেলোয়াড় ও সাপোর্ট স্টাফকে দফায় দফায় করোনা পরীক্ষা করাবো। সবার দেহে করোনার অনুপস্থিতি নিশ্চিত হয়েই আমরা তাদের এই বলয়ে নিয়ে এসেছি। শ্রীলংকা সফরের আগ পর্যন্ত আমরা এই বলয় মেনে চলার চেষ্টা করবো।’

বিসিবির প্রধান চিকিৎসক যোগ করেন, ‘হোটেলের কর্মচারী ও মাঠকর্মী অর্থাৎ যাদেরই খেলোয়াড়দের কাছাকাছি আসার সম্ভাবনা আছে, তাদেরও আমরা করোনা পরীক্ষা করাবো। পরীক্ষায় নেগেটিভ হলে তারাও বায়ো-সেফটি বাবলের মধ্যে চলে আসবে।’

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল