থুথু নিষিদ্ধ হলে স্পিনারদের সুবিধাই দেখছেন কুম্বলে

ঢাকা, রোববার   ১২ জুলাই ২০২০,   আষাঢ় ২৮ ১৪২৭,   ২০ জ্বিলকদ ১৪৪১

Beximco LPG Gas

থুথু নিষিদ্ধ হলে স্পিনারদের সুবিধাই দেখছেন কুম্বলে

স্পোর্টস ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৫৯ ৪ জুন ২০২০  

আইসিসি ক্রিকেট কমিটির প্রধান অনিল কুম্বলে

আইসিসি ক্রিকেট কমিটির প্রধান অনিল কুম্বলে

করোনাভাইরাসের কারণে বলে থুথু নিষিদ্ধ হতে পারে। এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন আইসিসি ক্রিকেট কমিটির প্রধান ভারতের অনিল কুম্বলে। আর তাতে স্পিনারদের সুবিধাই দেখছেন তিনি। টেস্ট ক্রিকেটে স্পিন বোলিংএর পুনরুথান হবে বলেও মনে করেন ভারতের সাবেক এ স্পিনার।

আগামী সপ্তাহে বৈঠকে বসবে আইসিসি। এ বৈঠক থেকেই পুনরায় খেলা শুরু হলে বলে থুথু ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা আসতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে।   

বল-এ থুথু ব্যবহার নিষিদ্ধ হলে, ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে বোলারদের কঠিন পরীক্ষায় পড়তে হবে বলেছেন অস্ট্রেলিয়ার বাঁ-হাতি পেসার মিচেল স্টার্ক। এতে যদি ব্যাটসম্যানরা আধিপত্য বিস্তার করে, তবে খেলাটি ‘বিরক্তিকর’ হয়ে যাবে বলে জানান স্টার্ক।

কিন্তু ভারতের সাবেক অধিনায়ক ও আইসিসি ক্রিকেট কমিটির প্রধান কুম্বলে মনে করেন, থুথু নিষিদ্ধ হলে স্পিনাররা ম্যাচে বড় ভূমিকা রাখবে।  

অনলাইনে বুধবার কুম্বলে বলেন, ‘আপনি পিচে ঘাস বাদ দিতে পারেন বা এমনকি মোটামুটিও হতে পারে। টেস্টে দু’জন স্পিনারও খেলানো হবে। টেস্টে স্পিনাররা নিজেদের জায়গা ফিরে পাবে কারণ ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টিতে বল পলিশ করার গুরুত্ব থাকে না। তাই বল পলিশের ব্যাপারে উদ্বিগ্ন থাকতে হয় না’।   

বিদেশের মাটিতে টেস্ট ম্যাচে একাদশে দু’জন করে স্পিনার প্রত্যাশাকারী  কুম্বলে বলেন, ‘আমি চাই অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে একাদশে দু’জন স্পিনার খেলবে, ইংল্যান্ডের মাটিতে টেস্টে দু’জন স্পিনার খেলবে, যা কখনোই হয় না’।

তিনি আরো বলেন, গ্রাউন্ডস কর্মীরা স্পিনারদের পক্ষে পিচ তৈরি করতে পারবে। কুম্বলে বলেন, ‘আপনি ক্রিকেট পিচে যেকোন পরিস্থিতিতে খেলতে পারেন এবং পিচের চরিত্র বদল করে ব্যাট ও বলের মধ্যে ভারসাম্য আনা যায়।  ক্রিকেট শুরু করতে আমরা সকলেই আগ্রহী হয়ে আছি এবং থুথু বা ঘাম নিয়ে আমরা খুব বেশি চিন্তিত নই। আমরা শুধুমাত্র খেলতে চাই’।

সম্প্রতি ভারতের পেসার জসপ্রিত বুমরাহহ বলেন, থুথু বিকল্প কিছু থাকতে হবে। আর ভারতের আরেক পেসার মোহাম্মদ সামি মনে করেন, থুথুর পরিবর্তে ঘাম কার্যকর নয়।

অস্ট্রেলিয়ার বল প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান কোকাবুরা, বল পালিশের জন্য একটি মোম তৈরি করার কথা জানিয়েছে। কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এটিকে অনুমতি দিতে নারাজ।

কুম্বলেও মনে করেন, বলের উপর কৃত্রিম পদার্থ ব্যবহার হলে খেলাটির সৃজনশীলতার ধ্বংস হবে। তিনি বলেন, ‘বলের উপর কৃত্রিম পদার্থ ব্যবহারের আমরা খুব কঠোর হচ্ছি’।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস