সম্মানহানি করতে আল জাজিরার ভুয়া নিউজ

ঢাকা, বুধবার   ০৪ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ২১ ১৪২৮,   ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

সম্মানহানি করতে আল জাজিরার ভুয়া নিউজ

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:১০ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৬:১২ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বিশ্বের নানা দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের পৃষ্ঠপোষকতা, উস্কানি, জঙ্গিবাদ মদদ, দ্বিধা-বিভক্তি সৃষ্টিতে ভুয়া নিউজ করে সমালোচিত হয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা। বিশাল অর্থের বিনিময়ে অপপ্রচার চালানো এ সংবাদমাধ্যম বিশ্বের কাছে বাংলাদেশেরও সম্মানহানি করতে ধাপে ধাপে ভুয়া নিউজ প্রচার করছে।

২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার করার আশ্বাস দেয়া হয়। নির্বাচনে বিজয়ের পর সেই আশ্বাস বাস্তবায়ন করতে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে আওয়ামী লীগ সরকার। এরপর থেকেই ট্রাইব্যুনাল আন্তর্জাতিক মানদণ্ড বজায় রেখে স্বাধীনভাবে বিচারকার্য পরিচালনা করতে থাকে।

তখন মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত জামায়াত নেতা গোলাম আজম, মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মুজাহিদ, দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীসহ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকার্য শুরু হয়।

সেই বিচারকে বাধাগ্রস্ত করতে আন্তর্জাতিক লবিস্ট হিসেবে যুক্তরাজ্যের নাগরিক ডেভিড বার্গম্যানকে নিয়োগ করে জামায়াতে ইসলামী। একই সঙ্গে বিচারকার্যকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে ট্রাইব্যুনাল সম্পর্কে অযৌক্তিক খবর প্রচার করে আল জাজিরা। আল জাজিরার অপপ্রচার দেশসহ বিশ্বের মানুষ গ্রহণ করেনি। ফলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকার্য তার গতিতে চলতে থাকে।

২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরে ব্যাপক প্রাণহানি ঘটেছে বলে গুজব ছড়িয়ে চক্রান্তে বিফল হয় আল জাজিরা। সেই গুজবের কোনো সত্যতা ছিল না। তখন কৌশলে জামায়াত-শিবিরের উগ্রতার পক্ষে খবর প্রকাশ করে কাতারের এই সংবাদমাধ্যমটি।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার পাঁয়তারা করতে চেয়েছিল আল জাজিরা। বিএনপি নিজেদের দুর্বলতা বুঝতে পেরে মিত্র জামায়াত নিয়ে নির্বাচনটিতে অংশ নেয়নি। তখন বিএনপি-জামায়াতের দুর্বলতা না খুঁজে আল জাজিরা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চেয়েছে। কিন্তু তাদের করা ভুয়া নিউজ মানুষ বিশ্বাস করেনি। ফলে সেই চেষ্টাও মুখ থুবড়ে পড়ে।

২০১৮ সালে কোটা সংস্কার আন্দোলন ঘিরে ব্যাপক ভুয়া নিউজ প্রচার করেছে আল জাজিরা। আন্দোলনে হত্যাকাণ্ড থেকে শুরু করে ছাত্র নিপীড়নের মতো ভুয়া নিউজ প্রচার করে। কিন্তু কোটা সংস্কার আন্দোলনে সম্পৃক্ত কেউ এ অভিযোগ একবারও তুলেননি। সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে করা অভিযোগ তখনও বানের জলে ভেসে যায়।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে অগ্রিম অপপ্রচার শুরু করে আল জাজিরা। কিন্তু উন্নয়নের জোয়ার দেখে দেশবাসী আওয়ামী লীগ সরকারকে পুনরায় রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বসায়। নিরপেক্ষ ও উৎসব মুখর সেই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়ে স্বাধীনতা এবং দেশবিরোধী শক্তি ও তাদের দালালদের মুখে চুনকালি পড়ে।

নির্বাচনের কিছুদিন পর আল জাজিরা বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা ইস্যুতে নাক গলাতে শুরু করে। বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের যখন বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়ে মহানুভবতার কাজ করেছে তখন আল জাজিরা বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গাদেরকে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সহযোগিতা প্রতিরোধে কাজ করেছে। তবুও বিফল হয়েছে আল জাজিরার চেষ্টা। জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলো স্বচক্ষে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করলে আল জাজিরার চক্রান্ত এখানেও পণ্ড হয়।

একই সময়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভীকে একটি অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানায় আল জাজিরা। বাংলাদেশের নির্বাচন, গণতন্ত্র, রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। সেই অনুষ্ঠানে যথোপযুক্ত জবাব দিয়ে সব অপচেষ্টা রুখে দেন ড. গওহর রিজভী ও যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম।

সম্প্রতি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে আবারো চক্রান্ত শুরু করেছে আল জাজিরা। দেশের ভাবমূর্তি বিশ্বের কাছে নষ্ট করতে পাঁয়তারা শুরু করেছে কাতারভিত্তিক এই সংবাদমাধ্যমটি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ/এইচএন