শামস উচ্ছ্বসিত, বললেন- ‘এগুলো আমার হীরার ডিম পাড়া হাঁস’

ঢাকা, বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১১ ১৪২৭,   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪২

শামস উচ্ছ্বসিত, বললেন- ‘এগুলো আমার হীরার ডিম পাড়া হাঁস’

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:০৬ ১২ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ২১:৩৪ ১২ অক্টোবর ২০২০

‘সিলভার বাটন’ বাটন হাতে শামস, পাশেই তার স্বামী। ছবি: সংগৃহীত

‘সিলভার বাটন’ বাটন হাতে শামস, পাশেই তার স্বামী। ছবি: সংগৃহীত

শামস-শামসু’র ঝগড়া কিংবা  মায়ের সঙ্গে পাশের বাসার ভাবির কথা কাটাকাটি দেখে মজা পাননি এমন মানুষ খুবই কম। ফেসবুক কিংবা ইউটিউব—সব প্লাটফর্মেই লাখ লাখ মানুষ শামসের মজার মজার ভিডিও দেখেছেন। সম্প্রতি ইউটিউব থেকেও স্বীকৃতি হিসেবে ‘সিলভার বাটন’ হাতে পেয়েছেন তিনি। এ নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত শামস।

২০১৮ সালে ‘থটস অব শামস’ নামের ফেসবুক পেইজে প্রথম ভিডিও আপলোড করেন শামস। সেই ভিডিও নিমিষেই ছড়িয়ে পড়ে নেটিজেনদের মধ্যে। নারীদের যে বঞ্চনার শিকার হতে হয় প্রতিনিয়ত, শামসের ভাবনায় ভিডিও আকারে উঠে আসতো এগুলো। তবে শামস সবচেয়ে বেশি সাড়া পেয়েছেন  করোনাকালে।

‘থটস অব শামস’ এর ভক্ত এখন প্রায় এক মিলিয়ন। একটি ভিডিও প্রকাশ করলেই তার ভিউ যেন হৈ হৈ করে বেড়ে যায়। বর্তমানে তিনি সম্পূর্ণভাবে নিজের ইউটিউব চ্যানেল, ফেসবুক পেজ ও ভিডিওর কনটেন্টের মধ্যেই পুরো সময় দিচ্ছেন। সম্প্রতি ‘সিলভার বাটন’ পাওয়ায় তিনি উচ্ছ্বসিত হলেও, তার কাছে মানুষের ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাই সবচেয়ে বড় পুরস্কার।

অনেকেই তো বলে ‘ইউটিউব ও ফেসবুক এখন সোনার ডিম পাড়া হাঁস’; আপনি কী বলবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে শামস বলেন, এগুলো সোনার ডিম পাড়া হাঁস নয়, বরং হীরার ডিম পাড়া হাঁস। এছাড়া সামনে যেন আরো ভালো কনটেন্ট যাতে বানাতে পারি সে জন্য সবার সহযোগীতা চাইছি।

অনেক কনটেন্ট ক্রিয়েটিরই কিছুদিন পর হারিয়ে যান। তবে শামস মনে করেন, সৃজনশীলতা ভীষণ জরুরি, সেই সঙ্গে হতে হবে পরিশ্রমী। কাউকে নকল করে বেশি দূর যাওয়া যায় না। কাজকে ভালোবেসে করতে হবে, তবেই আসবে সফলতা। নিয়মিত হলে ভালো টাকাও উপার্জন সম্ভব।

ভক্তদের উদ্দেশ্যে  শামস আফরোজ বলেন, আসলে ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের উদ্দেশ্যে আমি একটা কথাই বলবো যে, তারা প্রথম থেকে এ পর্যন্ত আমাকে ভালোবেসে গিয়েছেন। এখন শুধু আমার জন্য দোয়া করবেন যান আমি আরো উন্নতমানের কনটেন্ট আপনাদের উপহার দিতে পারি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে/টিআরএইচ