মহাকাশে কাপড় কাচতে তৈরি হচ্ছে বিশেষ ওয়াশিং মেশিন

ঢাকা, রোববার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৪ ১৪২৮,   ১০ সফর ১৪৪৩

মহাকাশে কাপড় কাচতে তৈরি হচ্ছে বিশেষ ওয়াশিং মেশিন

বিজ্ঞান ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:০০ ২৪ জুন ২০২১   আপডেট: ২০:০০ ২৪ জুন ২০২১

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

মঙ্গলে প্রাণ খুঁজতে দিনের পর দিন মহাকাশে থাকতে হচ্ছে গবেষকদের। দীর্ঘদিন মহাকাশে তাদের থাকতে হয় ময়লা জামাকাপড় পরে। এবার তাই মহাকাশে জামাকাপড় কাচার উদ্যোগ নিয়েছে নাসা।

মূলত রকেটে বা ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে কাপড় কাচার কোনো সুযোগ থাকে না। তাই একটি পোশাকেই মহাকাশচারীদের থাকতে হয় বহুদিন।

এছাড়া প্রতিদিন মহাকাশচারীরা ব্যায়াম করেন। ফলে তাদের পোশাক খুব অল্প সময়েই পরার অযোগ্য হয়ে যায়। প্রতি সপ্তাহে তাদের নতুন পোশাকের প্রয়োজন হয়। এমনিতে রকেটের ভেতরে জায়গা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে এবং ‘স্পেস সেন্টারে’ পানি থাকে সীমিত। তাই জামা কাপড় কাচার কোনো জায়গা বা সুযোগ থাকে না।

এবার সেই পরিস্থিতির পরিবর্তন চাইছে নাসা। স্পেস সেন্টার গড়ে তোলা সম্ভব না হলে চাঁদ বা মঙ্গল গ্রহে কাপড় কাচা সম্ভব কিনা, সেই বিষয়ে গবেষণা চালাতে চাচ্ছে নাসা।

আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের মত আরো কিছু দেশ এবার চাঁদ এবং মঙ্গলগ্রহে ঘাঁটি গড়ার পরিকল্পনা করছে। নাসা বিশেষ ‘অ্যান্টি মাইক্রোবায়াল’ পোশাকের চিন্তা করেছে যদিও এটা স্থায়ী কোনো সমাধান নয়।

প্রক্টর অ্যান্ড গ্যাম্বল সংস্থার সঙ্গে যৌথভাবে একটি বিশেষ ধরনের ডিটারজেন্ট তৈরি করা হচ্ছে যা এই বছরের শেষ দিকে ‘পরীক্ষামূলকভাবে’ হবে পাঠানো মহাকাশ স্টেশনে। প্রায় ছয় মাস ভরহীনতার পর এই ডিটারজেন্টের এনজাইম ও অন্যান্য উপকরণগুলো কতটা কাজ করে, নজর রাখা হবে সেই দিকে।

আগামী বছর মে মাসে কাপড়ের দাগ তোলার জন্য বিশেষ এক ধরনের পেন মহাকাশচারীদের কাছে পাঠানোর উদ্যোগও নেয়া হয়েছিল। একইসঙ্গে তৈরি করা হচ্ছে মহাকাশে ব্যবহারযোগ্য ওয়াশিং মেশিন। বিশেষ ভাবে তৈরি এই ডিটারজেন্ট সেই ওয়াশিং মেশিনে খুব কম পানি দিয়ে ব্যবহার করা যাবে।

বিজ্ঞানীদের ধারণা, মহাকাশে এটা ঠিক মত ব্যবহার করা গেলে পৃথিবীর শুষ্ক অঞ্চলগুলোতেও তা বিশেষভাবে কার্যকর হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচএফ