জ্বিলকদ মাসের আমলসমূহ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৫ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ২১ ১৪২৮,   ২৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

জ্বিলকদ মাসের আমলসমূহ

ধর্ম ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৫৬ ১৭ জুন ২০২১   আপডেট: ১৬:৫৭ ১৭ জুন ২০২১

কোরআনের ঘোষিত ৪ হারাম মাসের একটি।  ছবি: সংগৃহীত

কোরআনের ঘোষিত ৪ হারাম মাসের একটি। ছবি: সংগৃহীত

জ্বিলকদ মাসকে আরবিতে ‘জুলকাআদাহ’ বলা হয়। ফারসি ও উর্দুতে এটিকে জিলকাআদা বলা হলেও বাংলায় এটি জ্বিলকদ মাস হিসেবে ব্যাপক পরিচিত ও ব্যবহৃত। এর অর্থ হলো- বসা, স্থিত হওয়া কিংবা বিশ্রাম গ্রহণ করা। কারণ এ মাসের আগের ৪ মাস যেমন ইবাদত-বন্দেগির মাস তেমনি এর পরের মাসে মুসলিম উম্মাহর বিশেষ ইবাদত হজের মাস।

ঈদুল আযহা এবং ঈদুল ফিতরের মধ্যবর্তী মাস জ্বিলকদ। কোরআনের ঘোষিত ৪ হারাম মাসের একটি। আবার হজের ৩ মাসের মধ্যবর্তী মাসও এটি। অবস্থানগত কারণ ছাড়াও এ মাসটি ঐতিহাসিকভাবে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। এ মাস আসার আগে মুমিন মুসলমান রজব মাস থেকে শুরু করে শাওয়াল মাস পর্যন্ত ইবাদত-বন্দেগিতে ব্যস্ত থাকে।  আবার তার পরের মাসেই হজ পালনকারীরা যেমন হজ ও ওমরাহ করবে, তেমনি যারা রোজা পালন করবে তারা জিলহজ মাসের প্রথম ৯ দিন রোজা পালন করবে। তাই এ মাসটি মুমিন মুসলমানের জন্য একটু বিশ্রাম নেয়ার মাস। 

এ মাসজুড়ে বিশ্রামের পাশাপাশি এ মাসেও অন্যান্য আরবি মাসগুলোর মতো নিয়মিত আমলগুলো করা যেতে পারে। তাহলো-
১. এ মাসের ১, ১০, ২০, ২৯ ও ৩০ তারিখ রোজা পালন করা।
২. জ্বিলকদ মাসের ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখ (২৫-২৭ জুন) আইয়ামের বিজের রোজা পালন কা।
৩. সোম ও বৃহস্পতিবারের সাপ্তাহিক সুন্নাত রোজা পালন করা। (তাহলো- ১৭, ২১,২৪ ও ২৮ জুন এবং ০১, ০৫, ০৮, ১২, ১৫ ও ১৯ জুলাই)।
৪. কোরআন তেলাওয়াত করা ও সালাতুত তাসবিহ নামাজ আদায় করা।
৫. সম্ভব হলে ওমরাহ পালন করা।
৬. হজের পরিপূর্ণ প্রস্তুতি গ্রহণ করা।
৭. কুরবানির প্রস্তুতি গ্রহণ করা।

ডেইলি বাংলাদেশ/কেএসকে