পাহাড়ি ঢলে ঝিনাইগাতীর ১০ গ্রাম প্লাবিত
15-august

ঢাকা, রোববার   ১৪ আগস্ট ২০২২,   ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯,   ১৫ মুহররম ১৪৪৪

Beximco LPG Gas
15-august

পাহাড়ি ঢলে ঝিনাইগাতীর ১০ গ্রাম প্লাবিত

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:১৩ ৯ জুন ২০২২   আপডেট: ১৪:১৮ ৯ জুন ২০২২

পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার দুইটি ইউপির দশটি গ্রাম প্লাবিত ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার দুইটি ইউপির দশটি গ্রাম প্লাবিত ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

প্রবল বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার দুইটি ইউপির দশটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অন্তত দুই হাজার পরিবার।

জানা গেছে, ঝিনাইগাতীতে দুই দিন ধরে বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির সঙ্গে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে শুরু হয়েছে উজানের পাহাড়ি ঢল। এতে উপজেলার মহারশী নদীর পানি বেড়ে ঝিনাইগাতী সদর ও ধানশাইল ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। বাড়িঘর ও উপজেলা পরিষদসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রবল স্রোতে পানি ঢুকছে।

আরো পড়ুন >>> আম কুড়াতে গিয়ে নিথর হলেন নারীসহ ২ জন

ঝিনাইগাতী বাজারের ব্যবসায়ী আবু বক্কর বলেন, ‘আমি এ বাজারেই ব্যবসা করি। পাহাড়ি ঢল আসলেই মহারশীর পাড় ভেঙে এ বাজারে পানি ঢুকে। এতে আমাদের বহু ক্ষয়ক্ষতি হয়। আমাদের অনেক দিনের দাবি একটি বেড়িবাঁধের।’

পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার দুইটি ইউপির দশটি গ্রাম প্লাবিত

সদর ইউপির বাসিন্দা করিম মিয়া বলেন, ‘সকালে ওঠাই দেহি আমাগর বাড়িত পানি ঢুকতাছে। চুলাই পানি ওঠছে, তাই রান্না-বান্নাও বন্ধ। এখন চিড়া-মুড়ি খাইয়া আছি। আর একটু পানি ওঠলে ঘরো ওইঠা পড়ব।’

আরো পড়ুন >>> কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

সদর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য জাহিদুল হক মনির বলেন, ‘মহারশী নদীর পানি বেড়ে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ঝিনাইগাতী বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় পানি ওঠতে শুরু করেছে। এতে ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

‘আমরা বারবার মহারশী নদীর বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি করে আসছি। কিন্তু তা হচ্ছে না। এতে আমাদের জনসাধারণের খুবই ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।’

ঝিনাইগাতীর ইউএনও ফারুক আল মাসুদ বলেন, ‘সকাল থেকে পানি আসতে শুরু করেছে। উপজেলা পরিষদে পানি ওঠায় সরকারি কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বৃষ্টি দীর্ঘস্থায়ী হলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বাড়বে।

‘পানিবন্দি মানুষের পাশে উপজেলা প্রশাসন আছে। তাদের জন্য প্রয়োজনে সবকিছু করা হবে।’

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে

English HighlightsREAD MORE »