ফাঁকা ‘লক্ষ্মীকুঞ্জ’, বিদেশে তিন বাড়ির পাহারায় চুমকি!
15-august

ঢাকা, রোববার   ১৪ আগস্ট ২০২২,   ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯,   ১৫ মুহররম ১৪৪৪

Beximco LPG Gas
15-august

ফাঁকা ‘লক্ষ্মীকুঞ্জ’, বিদেশে তিন বাড়ির পাহারায় চুমকি!

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৫৩ ২ ফেব্রুয়ারি ২০২২  

ইনসেটে প্রদীপের সঙ্গে স্ত্রী চুমকি

ইনসেটে প্রদীপের সঙ্গে স্ত্রী চুমকি

স্বামী প্রদীপ কুমার দাশ মৃত্যুদণ্ডের আদেশ পেলেও তার অবৈধ সম্পদের অংশীদার স্ত্রী চুমকি কারণের মিলছে না কোনো হদিস। সন্তানদের নিয়ে চট্টগ্রাম নগরীর পাথরঘাটা এলাকায় ‘লক্ষ্মীকুঞ্জ’ নামে ছয়তলা বাড়িটিতে থাকতেন চুমকি। কিন্তু ২০২০ সালে সিনহা হত্যাকাণ্ডে প্রদীপ গ্রেফতার হওয়ার পর থেকেই আত্মগোপনে চলে যান তিনি। বর্তমানে ‘লক্ষ্মীকুঞ্জ’ ফাঁকা থাকলেও দেশের বাইরে থাকা তিনটি বাড়ির পাহারায় চুমকি রয়েছেন বলে মনে করছেন অনেকে।

কারো কারো মতে, চট্টগ্রামেই কোথাও লুকিয়ে আছেন চুমকি। তবে বিভিন্ন তথ্যমতে বহু আগেই সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে চলে গেছেন তিনি। ভারতের আগরতলা, কলকাতার বারাসাত ও গৌহাটিতে রয়েছে প্রদীপ-চুমকি দম্পতির নিজস্ব বাড়ি।

জানা গেছে, প্রদীপের হয়ে মামলার বিষয়গুলো দেখাশোনা করছেন তার ভাই চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সাবেক হেডক্লার্ক দিলীপ কুমার দাশ। প্রদীপের পক্ষের আইনজীবীদের সম্মানীসহ অন্যান্য খরচগুলো যাচ্ছে তার হাত দিয়েই। তবে সেই টাকা তিনি কোথা থেকে পাচ্ছেন- তা জানা যায়নি।

২০২০ সালের ৩১ জুলাই অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার রায় হয় সোমবার। ওই রায়ে টেকনাফ থানার বরখাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীকে মৃত্যুদণ্ড দেয় আদালত। একই মামলায় ছয় আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এছাড়া মামলা থেকে খালাস পান সাতজন।

সিনহা হত্যা মামলা ছাড়াও অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে দুদকের করা মামলা কাঁধে বয়ে বেড়াচ্ছেন প্রদীপ। একই মামলার আসামি স্ত্রী চুমকিও। ২০২০ সালের ২৩ আগস্ট মামলাটি করেন দুদক জেলা সমন্বিত কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ এর সহকারী পরিচালক রিয়াজ উদ্দিন। পরে গত বছরের ২৬ জুলাই আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে প্রদীপ ও চুমকির বিরুদ্ধে তিন কোটি ৯৫ লাখ পাঁচ হাজার ৬৩৫ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন, সম্পদের তথ্য গোপন ও মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগ আনা হয়। ২০২১ সালের ২০ সেপ্টেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রিয়াজ উদ্দিনের করা আবেদনের প্রেক্ষিতে মামলার এজাহারে উল্লিখিত সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ দেয় আদালত।

এর আগে, প্রদীপের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ ওঠায় ২০১৮ সালের জুন মাসে অনুসন্ধান শুরু করেছিল দুদক। প্রাথমিক অনুসন্ধানে প্রদীপ ও তার স্ত্রীর নামে অস্বাভাবিক সম্পদের তথ্যও পান দুদক কর্মকর্তারা। এরপর সম্পদ বিবরণী দাখিলের জন্য বলা হলে একই বছরের মে মাসে দুদকে বিবরণী জমা দেন তারা।  

দুদকের দেয়া অভিযোগপত্রে বলা হয়, নগরীর পাথরঘাটায় ছয়তলা বাড়ি, পাঁচলাইশে বাড়ি, ৪৫ ভরি সোনা, একটি ব্যক্তিগত গাড়ি, একটি মাইক্রোবাস, ব্যাংক হিসাব এবং কক্সবাজারে একটি ফ্ল্যাট রয়েছে চুমকির নামে। তার চার কোটি ৮০ লাখ ৬৪ হাজার ৬৫১ টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বিপরীতে বৈধ ও গ্রহণযোগ্য আয় পাওয়া যায় দুই কোটি ৪৪ লাখ ৬৬ হাজার ২৩৪ টাকা। এক্ষেত্রে দুই কোটি ৩৫ লাখ ৯৮ হাজার ৪১৭ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের প্রমাণ পায় দুদক। এছাড়া চুমকি নিজেকে মৎস্য ব্যবসায়ী দাবি করলেও এ ব্যবসায়ের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।

পাথরঘাটার ছয়তলা বাড়ির বিষয়ে চুমকি সে সময় দুদককে জানান, ২০১৩ সালে বাড়িটি তার বাবা তাকে দান করেন। যদিও চুমকির অন্যান্য ভাই ও বোনদের তার বাবা কোনো সম্পত্তি দান করেননি। অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০০৬ সালে শ্বশুরের নামে বাড়ির জমি কেনেন প্রদীপ। এরপর ছয়তলা বহুতল ভবন গড়ে তোলেন।

পেশায় গৃহিণী হলেও চুমকির নামে যত সম্পদ

প্রদীপের স্ত্রী চুমকি পেশায় গৃহিণী হলেও দুদকে জমা দেয়া বিবরণীতে তাকে মৎস্য খামারি হিসেবে দেখানো হয়েছে। সেখানে বলা হয়- ১৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা নিয়ে মৎস্য খামার শুরু করেন চুমকি। যা থেকে বছরে কোটি কোটি টাকা আয় করে কিনেছেন জমি, গাড়ি-বাড়ি।

সেই বিবরণীতে চুমকির স্থাবর সম্পত্তির মধ্যে রয়েছে নগরীর পাথরঘাটায় ৮৬ লাখ ৭৬ হাজার টাকা মূল্যের চার শতক জমি ও জমিটিতে গড়ে তোলা এক কোটি ৩০ লাখ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের ছয়তলা ভবন, পাঁচলাইশে এক কোটি ২৯ লাখ ৯২ হাজার ৬০০ টাকা মূল্যের ছয় গণ্ডা এক কড়া এক দন্ত জমি এবং কক্সবাজারে ঝিলংজা মৌজায় ১২ লাখ ৩২ হাজার টাকা মূল্যের ৭৪০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট।

সব মিলিয়ে তার স্থাবর সম্পত্তির মূল্য দেখানো হয়েছে তিন কোটি ৫৯ লাখ ৫১ হাজার ৩০০ টাকা। এছাড়া অস্থাবর সম্পদের মধ্যে পাঁচ লাখ টাকা মূল্যের একটি প্রাইভেটকার, সাড়ে ১৭ লাখ টাকা মূল্যের একটি মাইক্রোবাস এবং ব্যাংক একাউন্টে ৪৫ হাজার ২০০ টাকা দেখানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দুদকে প্রদর্শিত সম্পদের বাইরে প্রদীপের চট্টগ্রাম নগরীর লালখান বাজারে একটি ফ্ল্যাট, কক্সবাজারে দুটি হোটেলের মালিকানা, দেশের বিভিন্ন স্থানে জায়গা-জমি ও ভবন রয়েছে। এছাড়া ভারতের আগরতলা, কলকাতার বারাসাত ও গৌহাটিতে বাড়ি রয়েছে।

জানা গেছে, প্রদীপ তার অবৈধ আয়ের অর্থ দিয়ে স্ত্রী চুমকির নামেই কিনেছেন বেশি সম্পদ। গ্রামের বাড়ি বোয়ালখালীতেও স্ত্রীর নামে রয়েছে কয়েক কোটি টাকার সম্পদ ও মৎস্য প্রজেক্ট।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর

English HighlightsREAD MORE »