বিপিএলে নিজের চ্যালেঞ্জ ঠিক করে নিয়েছেন মুশফিক

ঢাকা, শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২,   ১৬ আষাঢ় ১৪২৯,   ০১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

বিপিএলে নিজের চ্যালেঞ্জ ঠিক করে নিয়েছেন মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:২৮ ২০ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৪:২৯ ২০ জানুয়ারি ২০২২

মুশফিকুর রহিম

মুশফিকুর রহিম

আর মাত্র কয়েক ঘণ্টার অপেক্ষা। এরপরই পর্দা উঠবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) অষ্টম আসরের। এরই মধ্যে দলের পাশাপাশি ব্যক্তিগত লক্ষ্য ঠিক করে নিয়েছেন ক্রিকেটাররা। ব্যতিক্রম নন মুশফিকুর রহিমও।

গত বছর অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের ভরাডুবির পর পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ। সেই সিরিজের দলে জায়গা হয়নি মুশফিকুর রহিমের। নির্বাচকরা মুশফিককে বিশ্রামে রাখার দাবি করলেও খোদ মুশফিক জানিয়েছিলেন, তিনি খেলতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাকে দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

সামনে বিপিএল। এখানে দারুণ পারফর্ম করলে আবারো জাতীয় দলের ফিরতে পারেন মুশফিক। তবে মিস্টার ডিপেন্ডেবলের ভাবনায় আপাতত জাতীয় দলে ফেরার বিষয়টি নেই। তার লক্ষ্য অন্যকিছু। এখন পর্যন্ত বিপিএলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি রানের মালিক মুশফিক। তাই টি-২০র জন্য নিজেকে প্রস্তুত করলেও তার ভাবনার পুরোটা জুড়ে শুধুই বিপিএল।

এ বিষয়ে মুশফিক বলেন, ‘আমি কামব্যাক বা জাতীয় দল নিয়ে চিন্তা করছি না। আমি চিন্তা করছি বিপিএল ফরম্যাট নিয়ে। বিপিএলের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক আমি। আমার কাছে এটা অন্যরকম চ্যালেঞ্জ যেন ঐ জায়গাটা ধরে রাখতে পারি। ভবিষ্যতে কী আসবে, কী আসবে না তা নিয়ে একদমই ভাবি না।’

গত আসরের রানার আপ খুলনা টাইগার্সকে এবারও নেতৃত্ব দেবেন মুশফিক। ব্যক্তিগত অর্জনের চেয়ে দলীয় অর্জনই তার কাছে বেশি প্রাধান্য পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। নিজে ভালো করলে তা যেন দলের উপকারে আসে, সেদিকেই দৃষ্টি এই অভিজ্ঞ ক্রিকেটারের।

মুশফিক বলেন, ‘ব্যক্তিগত লক্ষ্যের চেয়ে দলগত লক্ষ্য আমার কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। গত বছর রানার আপ হয়েছি, দুইবার একশর কাছাকাছি গিয়েও শতক পাইনি। তবে ঐ দুই ম্যাচই জিতেছি। এটাই বেশি জরুরী। এবারও এমন চ্যালেঞ্জই থাকবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘চেষ্টা করব সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার। একইসাথে ম্যাচ উইনিং ইনিংস খেলতে চাই যাতে দল ভালো ফলাফল পায়। ব্যক্তিগত লক্ষ্যের চেয়েও বেশি দলীয় লক্ষ্য বেশি অর্জন করতে পারি।’

এরপর মুশফিক বলেন, ‘খেলার আগের দিন আমার একটা ব্যক্তিগত প্রস্তুতি থাকে। ওগুলো নিজে নিজে করেছি। নেটে ২ ঘণ্টার দলীয় অনুশীলন আসলে সবার জন্য যথেষ্ট না। যেকোনো টুর্নামেন্টের জন্যই আগে থেকে প্রস্তুতি রাখতে হয়।’

তিনি যোগ করেন, ‘যদিও এটা পাওয়ার হিটের খেলা। তবে ভিত্তি আর বেসিক ঠিক থাকলে পাওয়ার হিট অটোমেটিক চলে আসে। অন্তত ১০টি ম্যাচ তো খেলার সুযোগ পাব। চেষ্টা করব যাতে ১২-১৩টা ম্যাচ খেলা যায় আর যতবার সম্ভব ব্যাট ওপরে ওঠানো যায়।’

ডেইলি বাংলাদেশ/এএল

English HighlightsREAD MORE »