চাঞ্চল্যকর ট্রিপল মার্ডারের পেছনে যৌনলালসা, আরো দুই কারণ জানালেন পুলিশ সুপার

ঢাকা, শনিবার   ২১ মে ২০২২,   ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯,   ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

চাঞ্চল্যকর ট্রিপল মার্ডারের পেছনে যৌনলালসা, আরো দুই কারণ জানালেন পুলিশ সুপার

খুলনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:১৮ ১০ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৮:২৪ ১০ জানুয়ারি ২০২২

নিহত হাবিবুর রহমা, তার স্ত্রী বিউটি ও মেয়ে টুনি

নিহত হাবিবুর রহমা, তার স্ত্রী বিউটি ও মেয়ে টুনি

খুলনার কয়রা উপজেলার বামিয়া গ্রামের চাঞ্চল্যকর ট্রিপল মার্ডারের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। বিকৃত যৌনলালসা, প্রতারণামূলক আর্থিক লেনদেন ও পরকীয়ার জেরেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ মাহবুব হাসান।

সোমবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে চাঞ্চল্যকর এ তথ্য জানান তিনি। এ মামলায় এক আসামি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

আরো সাত আসামি বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে রয়েছে। তারা হলো- মো. সাইফুল ইসলাম বাবলু, আল-আমিন হোসেন, আসলাম সর্দার, আব্দুল ওহাব হক, তাসলিমা, শামীমুল ইসলাম অঞ্জন, মোস্তফা কামাল।

আরো পড়ুন: খুলনায় পুকুর থেকে ভেসে উঠল বাবা-মা-মেয়ের মরদেহ

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার বলেন, ট্রিপল মার্ডারের অন্যতম আসামি আব্দুর রশিদ গাজী। সে খুব চতুর। হত্যাকাণ্ডের পর থেকে সে পলাতক ছিল। টিমওয়ার্ক ও প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তাকে ৮ জানুয়ারি যশোরের অভয়নগর উপজেলা থেকে আটক করা হয়। পরে আদালতে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক এ মামলায় নারীসহ আরো সাতজনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

ট্রিপল মার্ডারের রহস্য উদঘাটন নিয়ে খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ মাহবুব হাসানের সংবাদ সম্মেলন

স্বীকারোক্তিতে আব্দুর রশিদ গাজী জানিয়েছে, আরো দুই আসামি জিয়া ও রাজিয়া সুলতানার পরকীয়া সম্পর্কে বাধা প্রদানকারী হাবিবকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য পরিকল্পনা করা হয়। রাত ১২টার দিকে জিয়া ও শামসুর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী হাবিব, তার স্ত্রী বিউটি ও কন্যা হাবিবা সুলতানা টুনিকে হাত-পা বেঁধে ফেলে। পরে স্ত্রী ও কন্যাকে ধর্ষণ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে পানিতে ফেলে দেয়। হত্যাকাণ্ডের সময় ছয়জন আসামি ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল।

আরো পড়ুন: খুলনায় মা-বাবা ও মেয়ে হত্যার নেপথ্যে পরকীয়া, ধারণা স্বজনদের

পুলিশ সুপার আরো বলেন, নিহত হাবিবুরের সঙ্গে বাকি আসামিদের আর্থিক লেনদেনও ছিল। প্রতারণার শিকার হয়েছিলেন হাবিবুর। হত্যার বিউটি ও তার মেয়ে টুনির লাশ পানিতে ফেলে দেওয়ায় ধর্ষণের আলামত নষ্ট হয়ে যায়।

চাঞ্চল্যকর এ মামলার বাকি আসামিদের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে খুব দ্রুত আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হবে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানান পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ মাহবুব হাসান।

আরো পড়ুন: কয়রার ট্রিপল মার্ডার: রিমান্ডে নেওয়া সুলতানার স্বামী নিখোঁজ

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৫ অক্টোবর রাতে হাত-পা বেঁধে ও গলা কেটে হত্যা করা হয় হাবিবুর রহমান, তার স্ত্রী বিউটি ও কন্যা হাবিবা সুলতান টুনিকে। হত্যার আগে ধর্ষণ করা হয় বিউটি ও টুনিকে। ২৬ অক্টোবর সকালে স্থানীয় আব্দুল মাজেদের বাড়ির পাশের একটি পুকুর থেকে তিনজনের ভাসমান লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে নিহতের মা কোহিনুর বেগম অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। ঐ ঘটনায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর

English HighlightsREAD MORE »