অভিযান-১০ লঞ্চের তিন মালিককে আদালতে হাজিরের নির্দেশ 

ঢাকা, বুধবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২,   ১৪ আশ্বিন ১৪২৯,   ০১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

Beximco LPG Gas

অভিযান-১০ লঞ্চের তিন মালিককে আদালতে হাজিরের নির্দেশ 

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৩০ ৪ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৪:৩৫ ৪ জানুয়ারি ২০২২

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগে করা মামলায় লঞ্চের তিন মালিককে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 

মঙ্গলবার নৌ-আদালতের বিচারক জয়নাব বেগমের আদালত তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে এ নির্দেশ দেন। ঐ তিন মালিক হলেন- হামজালাল শেখ (৫৫), মো. শামীম আহমেদ (৪৩) ও  মো. রাসেল আহম্মেদ (৪৩)। 

রাষ্ট্রপক্ষের নৌপরিবহন অধিদফতরের প্রসিকিউটিং অফিসার বেল্লাল হোসাইন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আসামিরা পুলিশ কর্তৃক গ্রেফতার হয়ে ফৌজদারি কার্যবিধি ৫৪ ধারায় কার্যক্রম শেষে কারাগারে রয়েছেন। নৌ-আদালতের মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানোর জন্য আবেদন করা হয়। 

আরো পড়ুন: অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ড: পপির সন্ধান মেলেনি আটদিনেও

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত আসামিদের গ্রেফতার দেখিয়ে আগামী ১৯ জানুয়ারি আদালতে হাজির করতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে, ২৬ ডিসেম্বর নৌ-আদালতে নৌ-অধিদফতরের প্রধান পরিদর্শক মো. শফিকুর রহমান স্পেশাল মেরিন আইনের ৫৬/৬৬ ও ৭০ ধারায় অভিযোগ এনে আটজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। আদালত মামলা আমলে নিয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। 

মামলার আসামিরা হলেন- লঞ্চের মালিক প্রতিষ্ঠান মেসার্স আল আরাফ অ্যান্ড কোম্পানির চার মালিক মো. হামজালাল শেখ, মো. শামিম আহম্মেদ, মো. রাসেল আহাম্মেদ ও ফেরদৌস হাসান রাব্বি। এছাড়া লঞ্চের ইনচার্জ মাস্টার মো. রিয়াজ সিকদার, ইনচার্জ চালক মো. মাসুম বিল্লাহ, দ্বিতীয় মাস্টার মো. খলিলুর রহমান ও দ্বিতীয় চালক আবুল কালাম। 

মামলার অভিযোগে বলা হয়, গত ২৩ ডিসেম্বর আনুমানিক সন্ধ্যা ৬টার দিকে সদরঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে এমভি অভিযান-১০ বরগুনার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। লঞ্চটি ঝালকাঠির নলছিটি থানা এলাকা অতিক্রম করার পর রাত আনুমানিক ৩টায় ইঞ্জিন রুমে আগুনের সূত্রপাত হয়। 

পরে ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীর লঞ্চঘাটের অনেক আগেই জাহাজে থাকা যাত্রীদের অনেকে নদীতে লাফ দেন। আগুনে কেবিনসহ সবই পুড়ে যায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর

English HighlightsREAD MORE »