কথা কাটাকাটির জেরে ঢাবি শিক্ষার্থীকে মারধর

ঢাকা, সোমবার   ০৩ অক্টোবর ২০২২,   ১৯ আশ্বিন ১৪২৯,   ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

Beximco LPG Gas

কথা কাটাকাটির জেরে ঢাবি শিক্ষার্থীকে মারধর

ঢাবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৩৭ ২৮ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৫:৪১ ২৮ ডিসেম্বর ২০২১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধর।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধর।

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছোট্ট কথা কাটাকাটির জের ধরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে তারই কয়েকজন বন্ধুর বিরুদ্ধে। তবে অভিযুক্ত সজীব খন্দকার মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ওর সাথে হাতাহাতি (শার্টের কলার ধরে) হয়েছে। হাতাহাতির এক পর্যায়ে পড়ে গিয়ে তার নাক থেকে একটু রক্ত বের হয়। তবে ওর গায়ে আমি হাত তুলিনি। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র মোহাইমিনুল খান অভিযোগ করেন, সোমবার সাবেক এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে ‘উচ্চস্বরে’ কথা বলার কারণে তারই কয়েকজন বন্ধু (বড় ভাইয়ের কাছের ছোট ভাই) তাকে মারধর করে। অভিযুক্তরা হলেন, ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষের (২০১৭-১৮ সেশন) শিক্ষার্থী সজীব খন্দকারসহ ৫-৬ জন। 

সোমবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি সংলগ্ন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই ঘটনা ঘটে। অভিযুক্তরা এসে তাকে এলোপাতাড়ি ‘কিল-ঘুষি’ মারেন বলে অভিযোগ মোহাইমিনুলের। 

এই অভিযোগে মোহাইমিনুল শাহবাগ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কাছেও লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ওই শিক্ষার্থীর অভিযোগ, সোমবার সন্ধ্যায় তিনি এবং তার বন্ধু সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মুক্তমঞ্চে বসে কথা বলছিলেন। তখন দর্শন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী রিয়াজ মোর্শেদ সেখান থেকে তাদের সরে যেতে বলেন। এ নিয়ে বাক-বিতণ্ডার এক পর্যায়ে রিয়াজ মোর্শেদ ‘তোকে দেখে নেব’ বলে হুঁশিয়ার করে চলে যান। পরে ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সজীব খন্দকার এবং চাইনিজ ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড কালচার বিভাগের শিক্ষার্থী নূর নিশাতসহ ৫-৬ জন শিক্ষার্থী এসে তাকে এলোপাতাড়িকিল ঘুষি দেওয়া শুরু করে। মারধরের এক পর্যায়ে আমার নাক থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। পরে তারা এটা নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে ভালো হবে না বলে হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনার বিচার চেয়ে প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দেবেন বলে জানান তিনি।

মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে অভিযুক্ত সজীব খন্দকার ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, সে আমার কাছের এক বড় ভাইকে মুক্তমঞ্চে অশালীন ব্যবহার করেছে। ওই বড় ভাই আমাকে এটা জানালে আমি মোহাইমিনুলের সাথে দেখা করে জিজ্ঞেস করি যে সে কোন ডিপার্টমেন্টে পড়ে ইত্যাদি। এক পর্যায়ে তার সাথে হাতাহাতি হয়ে যায়। কিন্তু আমি তাকে কোনো আঘাত করিনি। আর আমার সাথে অন্য কেউ ছিলো না৷ যারা আশেপাশে ছিলে তারা সবাই হাতাহাতি শুরু হওয়ার পর দেখতে আসা উৎসুক মানুষ ছিলো৷

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম

English HighlightsREAD MORE »