মৃত্যুদণ্ডের আদেশ শুনেও বিচলিত হয়নি মিন্নি

ঢাকা, রোববার   ২৯ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৫ ১৪২৭,   ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

মৃত্যুদণ্ডের আদেশ শুনেও বিচলিত হয়নি মিন্নি

বরগুনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৪০ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৮:৪৪ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

মৃত্যুদণ্ডের আদেশ শুনেও বিচলিত হয়নি মিন্নি

মৃত্যুদণ্ডের আদেশ শুনেও বিচলিত হয়নি মিন্নি

বরগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ শরীফ ওরফে রিফাত শরীফ হত্যার মামলায় ছয়জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। এর মধ্যে রয়েছে রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। আর নিজের মৃত্যুদণ্ডের রায় ঘোষণার পর বিচলিত হয়নি মিন্নি। তার মধ্যে কোনো আতঙ্ক বা অনুশোচনা দেখা যায়নি।

বুধবার মামলটিতে ছয় জনের মৃত্যুদণ্ডের রায় ঘোষণা করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। ৩৫ মিনিট ধরে চলা রায় ঘোষণার সময় কাঠগড়ায় সব আসামির সঙ্গে রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিও উপস্থিত ছিল।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এম. মজিবুল হক কিসলু বলেন, বিচারক রায় ঘোষণার সময় ফাঁসির আদেশ দেন। তবে সেই আদেশ শুনে মিন্নি বিচলিত হয়নি। তার চোখে পানিও ঝরতে দেখিনি। ফাঁসির রায় শুনে মিন্নি অসুস্থ হবেন বা জ্ঞান হারাবেন-এমনটি ভেবেছিলাম। তবে তা দেখা যায়নি। তাকে সুস্থ স্বাভাবিক দেখাচ্ছিল।

মিন্নিসহ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান। 
খালাস প্রাপ্তরা হলেন- রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর, কামরুল ইসলাম সায়মুন, মো. মুসা।

২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে নয়ন বন্ড ও তার সহযোগী সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে রিফাত শরীফকে গুরুতর আহত করে। এরপর বীরদর্পে অস্ত্র উঁচিয়ে এলাকা ছাড়েন তারা। গুরুতর আহত রিফাত বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে ওইদিনই মারা যান তিনি।

ওই বছরের ১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ। একইসঙ্গে রিফাত হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত। ৮ জানুয়ারি একই মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বরগুনার শিশু আদালত।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ