Alexa চূড়ান্ত লক্ষ্যে সরকার: বিএনপি

ঢাকা, শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯,   আশ্বিন ৫ ১৪২৬,   ২০ মুহররম ১৪৪১

চূড়ান্ত লক্ষ্যে সরকার: বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক

ডেইলি-বাংলাদেশ

প্রকাশিত : ০৩:০০ পিএম, ২৯ এপ্রিল ২০১৮ রোববার | আপডেট: ০৩:০৫ পিএম, ২৯ এপ্রিল ২০১৮ রোববার

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎস ব্যবস্থা না করে সরকার প্রতিহিংসা বাস্তবায়নের চূড়ান্ত লক্ষ্যে এগুচ্ছে কী না, তা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন ও শঙ্কা দেখা দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রোববার নয়াপল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসনের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে অবনতি হয়েছে। গতকাল দলের মহাসচিবসহ সিনিয়র নেতারা তাঁর সঙ্গে দেখা করার পর খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক পরিস্থিতি তুলে ধরেছেন।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার অসুস্থতার ক্রমাগত অবনতির খবরে গোটা জাতি চরম উদ্বিগ্ন। তার মানবাধিকার লঙ্ঘনে জাতি শিহরিত ।

বিএনপির এই নেতা বলেন, তারেক রহমানকে নিয়ে আওয়ামী লীগের মাথাব্যথার যেন শেষ নেই। তাকে নিয়ে অন্তহীন ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়ে এখন বিশেষ কার্যালয় থেকে নানা অপপ্রচারের জন্য সেল খোলা হয়েছে। ফেসবুক আইডির মাধ্যমে নানা মিথ্যা ও বানোয়াট গল্প বানিয়ে প্রচার করা হচ্ছে। এসব ধরণের অপপ্রচার নিম্নরুচির পরিচায়ক। তিনি বলেন, যারা কুরুচিসম্পন্ন এবং যারা অপরাজনীতির চর্চা করে তারাই কেবল অসত্য ও নোংরা রাজনীতির আশ্রয় নেয়।

রিজভী বলেন, আসন্ন গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দুই সিটিতে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরিতে ব্যর্থ হয়েছে কমিশন। এখন পর্যন্ত দুই সিটিতে নির্বাচনী পরিবেশ তৈরি করতে পারেনি তারা। প্রচারণা শুরু হলেও দুই সিটিতে ক্ষমতাসীনদের বৈধ ও অবৈধ অস্ত্রের ছড়াছড়ি। সন্ত্রাসীরা এলাকা দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে।

অন্যদিকে দুই সিটিতে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থীর বিরুদ্ধে কালো টাকার ছড়ানো এবং প্রতিনিয়ত আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ ইসিতে জমা দিলেও নির্বাচন কমিশন কোনো ভূমিকা নেয়নি।

রিজভী বলেন, গাজীপুর ও খুলনায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের পক্ষে মন্ত্রী-এমপিরা প্রচারণা চারাচ্ছেন, যা সুষ্পষ্ট নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন।

এদিকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নিপীড়ন নির্যাতনও বন্ধ নেই দুই সিটিতে। বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে, কোথাও কোথাও বিনা কারণে গ্রেফতারও করা হচ্ছে । ২০ দলীয় জোট প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকারের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণার সময় ৪৫ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের অভিযোগ করেন রিজভী।

গাজীপুর নগরীর বিভিন্ন এলাকায় পুলিশী হয়রানী ও হুমকি ধামকি ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে। বিএনপির এই নেতা বলেন, টঙ্গী বিএনপি’র কার্যালয়ে পুলিশ অবস্থান নিয়ে ভীতি সৃষ্টি করছে, যাতে নেতাকর্মীরা ভয়ে দলীয় অফিসে না আসে।

তিনি বলেন, গাজীপুন পুলিশে রয়েছে এক মূর্তিমান আতঙ্ক। তার লাগামছাড়া ক্ষমতার অপব্যবহারে গাজীপুরবাসীর স্বপ্ন-দু:স্বপ্ন একাকার হয়ে গেছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ ব্যাপারে নির্বিকার।  

নির্বাচনের সাতদিন আগে দুই সিটিতে সেনা মোতায়েনের জোর দাবি জানিয়ে ইসির সচিবের উদ্দেশ্যে রিজভী বলেন, ভূমিকা হতে হবে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীর মতো, দলীয় নেতাকর্মীর মতো নয়। ইসি’র সচিবের কার্যক্রমে মনে হচ্ছে-তিনি আওয়ামী লীগের পদহীন নেতার ভূমিকা অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এলকে