যুবসমাজকে মেধা ও উদ্ভাবনী শক্তি কাজে লাগিয়ে স্বাবলম্বী হতে হবে: রাষ্ট্রপতি
15-august

ঢাকা, শুক্রবার   ১২ আগস্ট ২০২২,   ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯,   ১৩ মুহররম ১৪৪৪

Beximco LPG Gas
15-august

যুবসমাজকে মেধা ও উদ্ভাবনী শক্তি কাজে লাগিয়ে স্বাবলম্বী হতে হবে: রাষ্ট্রপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:২৫ ২৮ জুন ২০২২   আপডেট: ১৫:০৫ ২৮ জুন ২০২২

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ -ফাইল ফটো

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ -ফাইল ফটো

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, একজন উদ্যোক্তা শুধু নিজের জন্য কর্মসংস্থানই সৃষ্টি করেন না, অন্যদের জন্যও করেন। যুবসমাজকে চাকরির পেছনে না ছুটে মেধা ও উদ্ভাবনী শক্তি কাজে লাগিয়ে বিনিয়োগের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হতে হবে।

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর পর্যটন ভবনে ‘আন্তর্জাতিক এমএসএমই দিবস-২০২২’ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ আহ্বান জানান তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, এখনকার শিক্ষিত যুবক-যুবতীরা পড়াশোনা শেষ করেই চাকরির পেছনে ছোটে। অথচ সবার জন্য চাকরির ব্যবস্থা করা একেবারেই অসম্ভব। এর একমাত্র বিকল্প হচ্ছে শিক্ষিত বেকার যুবকদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা।

তিনি আরো বলেন, উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য ঋণপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে এরই মধ্যে আইসিটি ডিভিশন বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। আশা করি এসব পদক্ষেপের কারণে ভবিষ্যতে উদ্যোক্তা সৃজন ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে অগ্রগতি সাধিত হবে। এক্ষেত্রে নতুন উদ্যোক্তা, নারী উদ্যোক্তা, স্টার্টআপরা যেন সহজে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ও ঋণ পান তা নিশ্চিত করতে হবে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, অর্থনীতির চালিকাশক্তি হিসেবে মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প অর্থাৎ এমএসএমইর গুরুত্ব অপরিসীম। এমএসএমই খাতের উন্নয়ন ও বিকাশের মাধ্যমে শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দারিদ্র্য বিমোচন ও সুষম উন্নয়ন সম্ভব। বর্তমান সরকারের শিল্পবান্ধব নীতি ও পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশে এরই মধ্যে বেসরকারি খাতে শিল্পায়নে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। বিগত ১৩-১৪ বছরে দেশে বৃহৎ ও ভারি শিল্পের পাশাপাশি ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। এতে দেশব্যাপী কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি সার্বিক অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয়েছে।

তিনি বলেন, ২০০৭-২০০৮ অর্থবছরে দেশের জিডিপিতে শিল্পখাতের অবদান ছিল ১৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। ২০২০-২১ অর্থবছরে এটি বেড়ে ৩৪ দশমিক ৯৯ শতাংশ হয়েছে। শিল্পখাতে নতুন বিনিয়োগ এসেছে এবং আসছে।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন এসএমই ফাউন্ডেশন নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি এবং বিদ্যমান উদ্যোক্তাদের দক্ষতা ও সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়নকে বিশেষ অগ্রাধিকারভুক্ত কর্মসূচি হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে। এসএমই ফাউন্ডেশন এ ধরনের উদ্যোক্তাদের ঋণের আওতায় আনার লক্ষ্যে কাজ করছে। তাদের ‘ক্রেডিট হোলসেলিং’ কর্মসূচির মাধ্যমে ঋণপ্রাপ্তির উপযোগী ও প্রস্তুত করে সহজশর্তে স্বল্পসুদে জামানতবিহীন ঋণের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে। এসএমই ফাউন্ডেশন প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় অল্প সময়ের মধ্যে দেশের নারী উদ্যোক্তাসহ মাইক্রো ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে তিন কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করেছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আজকের ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা আগামী দিনের বড় ব্যবসায়ী। দেশের অনেক শিল্পগোষ্ঠীর যাত্রা এরকম স্বল্পপুঁজি নিয়ে স্বল্প পরিসরে শুরু হয়েছিল। মেধা, ও সততাকে পুঁজি করে তারা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানকে দৃঢ় ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ব্যবসাকে স্থায়িত্ব দিতে হলে ক্রেতার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখেই ব্যবসা পরিচালনা করতে হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর/এমআরকে

English HighlightsREAD MORE »