মোবাইলে ৩০ সেকেন্ডের বেশি কথা বলা ঠিক নয়: ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত

ঢাকা, শনিবার   ০২ জুলাই ২০২২,   ১৮ আষাঢ় ১৪২৯,   ০২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

মোবাইলে ৩০ সেকেন্ডের বেশি কথা বলা ঠিক নয়: ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৩৬ ১৬ এপ্রিল ২০২২   আপডেট: ২১:৩৮ ১৬ এপ্রিল ২০২২

বিএসএমএমইউয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য এবং নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত এমপি- ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বিএসএমএমইউয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য এবং নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত এমপি- ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

মোবাইলে ৩০ সেকেন্ডের বেশি কথা বলা ঠিক নয় বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য এবং নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত এমপি।

তিনি বলেন, মোবাইল ফোনে যত কম কথা বলা যায় ততই ভালো। অনুষ্ঠানে ২০ মিনিটের বেশি বক্তৃতা করা ভালো না। মোবাইলে ৩০ সেকেন্ডের বেশি কথা বলা ঠিক না।

শনিবার বিশ্ব কণ্ঠ দিবস উপলক্ষে বিএসএমএমইউয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রাণ গোপাল দত্ত বলেন, রাতে ঘুমানোর আড়াই ঘণ্টা আগে খেতে হবে। সকালে ও রাতে গরম পানি খেলে গলা ভালো থাকে। ৪০ বছর বয়সের কোনো ব্যক্তির যদি ১৫ দিনের বেশি গলা ভেঙে থাকে, তাকে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বিএসএমএমইউর উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, খালি পেটে গরম পানি খেলে গলা পরিষ্কার হলেও চোখের গ্লুকোমা হতে পারে। কিছু খেয়ে গরম পানি খাওয়া উচিত। আমরা ঠান্ডা পানি, অ্যালকোহল খাবো না। মানুষ যেন ঠিকমত কণ্ঠের ব্যবহারে আরো যত্নশীল হয়।

তিনি আরো বলেন, একটানা ২০ মিনিটের বেশি কথা বলা উচিত না। শ্রেণিকক্ষে শিক্ষকদের একটানা বেশি জোরে কথা না বলে আস্তে আস্তে কথা বলা উচিত। কণ্ঠের যেকোনো ধরনের সমস্যার সুচিকিৎসা এ বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে। কণ্ঠের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে যত ধরনের যন্ত্রপাতির প্রয়োজন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন তার ব্যবস্থা নেবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, নাক, কান ও গলা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. আজাহারুল ইসলাম, কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট প্রকল্পের পরিচালক ও সিন্ডিকেট মেম্বার অধ্যাপক ডা. এইচএম জহুরুল হক সাচ্চু, অধ্যাপক ডা. বেলায়েত হোসেন সিদ্দিকী, অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান তরফদার, আবৃত্তিশিল্পী অধ্যাপক ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ

English HighlightsREAD MORE »