দুর্যোগে প্রকৌশলীরা সম্মুখ যোদ্ধার মতো কাজ করে যাচ্ছেন: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০২ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ১৮ ১৪২৮,   ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

দুর্যোগে প্রকৌশলীরা সম্মুখ যোদ্ধার মতো কাজ করে যাচ্ছেন: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:২৮ ২১ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ১৮:০৩ ২১ অক্টোবর ২০২১

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক- ফাইল ছবি

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক- ফাইল ছবি

দেশের বন্যা, নদীভাঙন, ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাসসহ যেকোনো দুর্যোগে পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীরা সম্মুখ যোদ্ধার মতো কাজ করে যাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক।

বৃহস্পতিবার সকালে মন্ত্রণালয়ের অফিস কক্ষে উত্তরাঞ্চলের বন্যার সর্বশেষ পরিস্থিতি জানার প্রতিক্রিয়ায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, উজানের ভারী বৃষ্টিপাতে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। বৃষ্টির মধ্যেই সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা নদীতীরের জনগণের কাছে ছুটে গেছেন। গতকাল পানির প্রবল চাপে কুড়িগ্রামে বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। সারারাত নির্ঘুম ও নিরলসভাবে কাজ করে ভোরে সেই ব্রিজ বন্ধ করা হয়েছে। আরো যেখানে এমন ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সেখানে বাঁধ রক্ষায় কাজ অব্যাহত আছে।

সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেন, তিস্তার পানি গত ১৯ অক্টোবর মধ্যরাত থেকে বাংলাদেশ অংশে বৃদ্ধি পায়। ফ্লাড বাইপাস থাকায় তিস্তা ব্যারেজের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। জেলা প্রশাসন, পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং ফায়ার সার্ভিসের সাহায্যে প্লাবিত এলাকার লোকজনকে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসা হয়েছে। প্রশাসনের উদ্যোগের পাশাপাশি পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে এক হাজার লোকের জন্য ত্রাণ সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার তিস্তার বামতীরে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ মেরামত প্রসঙ্গে কুড়িগ্রামের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, বাঁধ থেকে পানির উচ্চতা নদীর দিকে প্রায় আড়াই মিটার বেশি ছিল। বাঁধের প্রায় ২৫ মিটার অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। মন্ত্রণালয়ের তাৎক্ষণিক নির্দেশনায় স্থানীয় জনসাধারণ ও শ্রমিকসহ সবার অক্লান্ত পরিশ্রমে ভোর ৪টার দিকে মেরামত সম্পন্ন করতে সক্ষম হই। 

সরকারের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান বলেন, তিস্তা অববাহিকায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। লালমনিরহাট ও নীলফামারী এলাকার পানি কমলেও কুড়িগ্রাম ও রংপুরে পানি কিছুটা আছে। সেটাও কমে যাবে। সামনে বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা কম।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ/এইচএন