খেলার মাঠ-উন্মুক্ত স্থানে ভবন নির্মাণ নয়: মেয়র তাপস

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৫ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ২১ ১৪২৮,   ২৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

খেলার মাঠ-উন্মুক্ত স্থানে ভবন নির্মাণ নয়: মেয়র তাপস

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০৬ ৯ জুন ২০২১   আপডেট: ১৭:৩৩ ৯ জুন ২০২১

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস- ফাইল ফটো

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস- ফাইল ফটো

রাজধানীতে খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত স্থান (এলাকা) কোনোভাবেই ভবন নির্মাণের জন্য দেয়া যেতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

বুধবার নগরীর যাত্রাবাড়ীর শহীদ শেখ রাসেল পার্ক উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে ডিএসসিসি মেয়র এ মন্তব্য করেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, আমরা বার বার গণপূর্ত বিভাগকে চিঠি দিয়েছি। র‍্যাব কর্তৃপক্ষ ও মন্ত্রীর (স্বরাষ্ট্র) সঙ্গে কয়েক দফা আলাপ করেছি। খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত স্থান কোনোভাবেই ভবন নির্মাণের জন্য দেয়া যেতে পারে না। প্রধানমন্ত্রীর এ ব্যাপারে নির্দেশনা আছে। সেটাও আমি সবার নজরে এনেছি। আমি আশা করবো, তারা সেটা অচিরেই ছেড়ে দেবে। ১১ নম্বর ওয়ার্ডে কোনো খেলার জায়গা নেই। খেলার জায়গা শুধু ওই জমিটাই ছিল। সেটা যেন আমরা আবার ছেলে-মেয়েদের খেলার উপযোগী করে উন্মুক্ত করে দিতে পারি।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, আপনারা লক্ষ্য করেছেন, যাত্রাবাড়ী মোড়ে শহীদ শেখ রাসেলের নামে আমরা পার্কটি উদ্বোধন করলাম। এখানে মনোরম একটি পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে। যাতে করে এ এলাকার মানুষজন একটি মুক্ত জায়গা পায়, আনন্দঘন সময় যেন তারা অতিবাহিত করতে পারে।

জলাবদ্ধতা নিরসনে কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী ব্যাপক কর্মযজ্ঞ হাতে নেয়া হয়েছে উল্লেখ করে মেয়র শেখ তাপস বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে আমাদের স্বল্পমেয়াদি কাজ হলো, স্তূপ আকারে যে বর্জ্য ছিল, সেগুলো পরিষ্কার করা। যাতে পানি নিষ্কাশন এবং পানি প্রবাহের সুযোগটা হয়। মধ্যমেয়াদি আমরা কিছু কার্যক্রম নিয়েছি, সেটা হলো– যেখানে অবকাঠামো উন্নয়ন প্রয়োজন, নর্দমাগুলো সম্প্রসারণ করা প্রয়োজন, আধারের জায়গাটা সম্প্রসারণ করা প্রয়োজন, সেসব জায়গাগুলোতে অবকাঠামো উন্নয়ন করা।

তিনি আরো বলেন, এরই মধ্যে আমরা দরপত্র সম্পন্ন করেছি, আমাদের কাজ চলছে। প্রায় ১০৩ কোটি টাকার অবকাঠামো উন্নয়নের কার্যক্রম আমরা হাতে নিয়েছি। পরবর্তীকালে কার্যক্রম হবে দীর্ঘমেয়াদি। আমরা মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন করছি। সেটার আওতায় দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রম হাতে নিতে হবে। সেটা হবে অত্যন্ত পরিকল্পিত। কারণ আমরা লক্ষ্য করি, অপরিকল্পিতভাবে যে ঢাকা শহর গড়ে উঠেছে, বর্ষা মৌসুমে যে বৃষ্টি হয়, তা ধারণ করার ক্ষমতা ঢাকা শহরের নেই। যে কারণে বৃষ্টি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জলাবদ্ধতা হতে থাকে।

জলাবদ্ধতা নিরসনে চলমান কার্যক্রমকে স্বল্পমেয়াদি উল্লেখ করে মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, আমাদের এখন যে কার্যক্রম চলছে, সেটা স্বল্পমেয়াদি। বর্তমানে যে ধারণ ক্ষমতা আছে, যে অবকাঠামো আছে, সেখানে যেন অন্তত পানি যেতে পারে, নিষ্কাশন হতে পারে এবং পরবর্তীকালে নদীতে প্রবাহিত হতে পারে। আমরা এ পর্যন্ত যতটুকু করেছি, তাতে কিছু সুফল পাচ্ছি। কিন্তু, তার সঙ্গে সঙ্গে মধ্যমেয়াদি কার্যক্রমে আমাদের সফল হতে হবে এবং দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রমে আমাদের হাত দিতে হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ/এইচএন