ডিজিটাল প্রযুক্তির জন্য ধর্মীয়-সামাজিক অনুষ্ঠান প্রাণবন্ত হয়েছে

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৫ জুন ২০২১,   আষাঢ় ২ ১৪২৮,   ০৩ জ্বিলকদ ১৪৪২

ডিজিটাল প্রযুক্তির জন্য ধর্মীয়-সামাজিক অনুষ্ঠান প্রাণবন্ত হয়েছে: পলক

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:১৬ ১৭ মে ২০২১   আপডেট: ১৩:০১ ১৮ মে ২০২১

আইসিটি বিভাগের বিভিন্ন দফতর, সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক

আইসিটি বিভাগের বিভিন্ন দফতর, সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক

ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর কারণেই করোনা মহামারিতে ধর্মীয়-সামাজিক অনুষ্ঠান প্রাণবন্ত ও আনন্দ উপভোগ করা সম্ভব হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

সোমবার আইসিটি বিভাগের বিভিন্ন দফতর, সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর কারণেই করোনা মহামারিতে ধর্মীয়-সামাজিক অনুষ্ঠানে প্রাণবন্ত ও আনন্দ উপভোগ করা সম্ভব হয়েছে। তা না হলে অর্থনীতি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, প্রশাসন, বাণিজ্যিক কার্যক্রমসহ জীবনে স্থবিরতা নেমে আসতো। গত বছর করোনা প্রথম শুরু হওয়ার সময় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদের দিকনির্দেশনায় আইসিটি বিভাগ সব মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিনোদন, ইন্টারনেট ও লজিস্টিকস এ পাঁচটি দীর্ঘমেয়াদি ‘বিজনেস কন্টিনিউটি প্ল্যান’ প্রণয়ন করে। এর মাধ্যমে গত ১৩ মাস ধরে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে ই-ফাইলিং, ই-কমার্স, শিক্ষা, প্রশাসনিক কার্যক্রম ও ভার্চুয়াল আদালত থেকে শুরু করে সবকিছু চলমান রাখতে আমরা সক্ষম হয়েছি।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, গত ১২ বছরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হওয়ায় ভিন্ন পরিস্থিতিতে ঈদুল ফিতর যার যার ঘরে উদযাপন করলেও দূর থেকেও আত্মীয়-স্বজন, বন্ধুবান্ধব এমনকি দেশের বাইরেও পরিচিতজনদের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করা সম্ভব হয়েছে। সংকট নতুন সুযোগ সৃষ্টি করে। করোনা পরিস্থিতির সংকটকে সম্ভাবনায় রূপান্তর করতে হলে আমাদের সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কার্যকর পদক্ষেপ নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব, আইসিটি অধিদফতরের মহাপরিচালক আরশাদ হোসেন প্রমুখ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ/এইচএন