প্রত্যন্ত গ্রামের কৃষকও ‘ডিজিটাল বাংলাদেশে’র সুবিধা পাচ্ছে: খাদ্যমন্ত্রী

ঢাকা, রোববার   ২০ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৭ ১৪২৮,   ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

প্রত্যন্ত গ্রামের কৃষকও ‘ডিজিটাল বাংলাদেশে’র সুবিধা পাচ্ছে: খাদ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৫৪ ১২ মে ২০২১   আপডেট: ২০:২১ ১২ মে ২০২১

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার- ফাইল ফটো

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার- ফাইল ফটো

দেশের প্রত্যন্ত গ্রামের কৃষকও ‘ডিজিটাল বাংলাদেশে’র সুবিধা পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

বুধবার খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ‘ডিজিটাল রাইস প্রকিউরমেন্ট অ্যাপস’ এর মাধ্যমে সরকারি চাল সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ঢাকা থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে মন্ত্রী এ কথা জানান।

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ কোনো স্বপ্ন নয়, এটা এখন বাস্তবতা। প্রত্যন্ত গ্রামের কৃষকও এখন এর সুবিধা পাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, কৃষক বাঁচলে, দেশ বাঁচবে। কৃষকের স্বার্থের কথা চিন্তা করে এবারের বোরো সংগ্রহে ধান-চাল ক্রয়ে ধানকে অগ্রাধিকার দিতে হবে এবং কোনোভাবেই কৃষককে হয়রানি করা যাবে না।

সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, ধান-চাল কেনা কার্যক্রম সফল করতে এরই মধ্যে ১৩টি নির্দেশনা সব জেলার খাদ্য অফিসে পাঠানো হয়েছে। এ বছর কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ৬ লাখ ৫০ হাজার টন ধান কেনা হবে।

চালের মান নিয়ে কোনো আপোশ করা হবে না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, চালের মান ঠিক রেখে, সঠিকভাবে শতভাগ সংগ্রহ সম্পন্ন করতে এরই মধ্যে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিও অনলাইনের আওতায় আনা হবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ সরকারের সর্বশেষ নির্বাচনী ইশতেহারের অন্যতম অঙ্গীকার। ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণের মাধ্যমে সরকারি-বেসরকারি প্রতিটি কাজে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও গতি আনা সম্ভব। ‘ডিজিটাল রাইস প্রকিউরমেন্ট অ্যাপস’ এর মাধ্যমে কৃষকদের কাছ থেকে ধান ও মিলারদের কাছ থেকে চাল কেনা হচ্ছে। এর ফলে একদিকে যেমন অল্প সময়ের মধ্যে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সঙ্গে ধান-চাল সংগ্রহ করা সম্ভব হবে, অপরদিকে খাদ্য বিভাগ, কৃষক ও মিলারদের মধ্যে দ্রুত সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে ধান-চাল সংগ্রহ কার্যক্রমে গতি আনা সম্ভব হবে।

খুলনার ডিসি মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন খুলনা-২ আসনের এমপি শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম, খুলনা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, খুলনা জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, খুলনা জেলা খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা, খুলনা জেলার কৃষক ও মিল মালিক প্রতিনিধি, খাদ্য মন্ত্রণালয় ও খাদ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ/এইচএন