শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ৬০ কর্মদিবস পর পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২২ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ৯ ১৪২৮,   ০৯ রমজান ১৪৪২

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ৬০ কর্মদিবস পর পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৯:৩৩ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৪:৩৭ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি- ফাইল ফটো

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি- ফাইল ফটো

আগামী ৩০ মার্চ থেকে প্রাক-প্রাথমিক ছাড়া দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ৬০ কর্মদিবস পর পরীক্ষা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শনিবার সন্ধ্যায় আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, আপাতত প্রাক-প্রাথমিক ছাড়া দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামী ৩০ মার্চ থেকে খুলে দেয়া হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ৬০ কর্মদিবস পরে পরীক্ষা নেয়া হবে।

অর্থাৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরে সাপ্তাহিক ও ঈদের ছুটি বাদে যে ৬০ কর্মদিবস আছে সেই দিনগুলোতে পাঠদান শেষে পরীক্ষা নেয়া হবে।

এছাড়া প্রতি বছর রমজান মাসে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। কিন্তু এবার প্রাক-প্রাথমিক বাদে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হবে।

আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) মো. কামাল হোসেন, পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলমসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্তের পর ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এরপর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি ধাপে ধাপে বাড়িয়ে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত করা হয়। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া যায় কিনা- সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে বসে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে গত ২২ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভা বৈঠকে নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী ২৭ ফেব্রুয়ারি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক বসে। ওই বৈঠকে আগামী ৩০ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ/এইচএন