তৃণমূল থেকে জাতীয় পর্যায়ে শিল্পায়নের কোনো বিকল্প নেই

ঢাকা, শনিবার   ০৬ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২২ ১৪২৭,   ২১ রজব ১৪৪২

তৃণমূল থেকে জাতীয় পর্যায়ে শিল্পায়নের কোনো বিকল্প নেই: শিল্পমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:১৪ ১৮ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৭:২০ ১৮ জানুয়ারি ২০২১

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন - ডেইলি বাংলাদেশ

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন - ডেইলি বাংলাদেশ

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, এজেন্ডা ২০৩০ (এসডিজি) লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে তৃণমূল থেকে জাতীয় পর্যায়ে শিল্পায়নের কোনো বিকল্প নেই। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমেই দেশে টেকসই শিল্প ও শিল্পায়ন সম্প্রসারণ সম্ভব। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) এর কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করতে হবে।

সোমবার ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট (স্কিটি) ফাউন্ডেশন কোর্সের সমাপনী ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, দেশের শিক্ষিত বেকার নারী ও পুরুষদেরকে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে কাজে লাগিয়ে রূপকল্প ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত শিল্প সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে বিসিক স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রশিক্ষণ কোর্সের ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, দেশের পরিবেশবান্ধব শিল্পায়ন, দারিদ্র্য বিমোচন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে এই তরুণ কর্মকর্তারা প্রশিক্ষিত হয়ে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবেন।

তিনি আরো বলেন, বিসিকের কর্মকর্তাদের এ ফাউন্ডেশন কোর্স তাদেরকে কর্মদক্ষতার উৎকর্ষ সাধনে কার্যকর ভূমিকা রাখবে। ফাউন্ডেশন কোর্স সফলভাবে সমাপ্তকারী কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে বিসিকের চলমান কার্যক্রম পরিচালনা আরো বেগবান ও গতিশীল হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এসময় বিসিকের পরিচালক (প্রকৌশল ও প্রকল্প বাস্তবায়ন) মুহাম্মদ আতাউর রহমান সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন বিসিকের চেয়ারম্যান মোশতাক হাসান এনডিসি, স্কিটির অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. শফিকুল আলম।

অনুষ্ঠানে মোশতাক হাসান এনডিসি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত শিল্পোন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিসিক কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। বিসিকের শিল্পায়নই পারে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত বাংলাদেশ গড়তে।

উল্লেখ্য, ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ২১ দিনব্যাপী ফাউন্ডেশন কোর্সে ২৫ জন কর্মকর্তা অংশগ্রহণ করেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিআরএইচ/এইচএন