সড়ক নিরাপত্তা বিধান একটি চ্যালেঞ্জ: সেতুমন্ত্রী

ঢাকা, রোববার   ২৪ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ১০ ১৪২৭,   ০৯ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সড়ক নিরাপত্তা বিধান একটি চ্যালেঞ্জ: সেতুমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৩ ২ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৮:১৯ ২ ডিসেম্বর ২০২০

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের - ফাইল ছবি

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের - ফাইল ছবি

সড়কে নিরাপত্তা বিধান করা একটি চ্যালেঞ্জ বলে উল্লেখ করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রাজধানীর সঙ্গে পুরো দেশের যোগাযোগ নিরবচ্ছিন্ন রাখা ও সড়ক নিরাপত্তা বিধানের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। 

বুধবার ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের দ্বিতীয় নয়ার হাট সেতুর (৪ লেন) নির্মাণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি। সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হন সেতুমন্ত্রী।

নবীনগর এলাকায় জাতীয় স্মৃতিসৌধের অবস্থান হওয়ায় এই মহাসড়কের গুরুত্ব অনেক বেশি উল্লেখ করে  সড়কটি রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচ্ছন্ন রাখার ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন সড়ক পরিবহন মন্ত্রী। এই সড়ককে  পরিচ্ছন্ন রাখা এবং এর উপরে যত্রতত্র ব্যানার-ফেস্টুন যাতে কেউ না লাগাতে পারে সে দিকে নজর দিতেও নির্দেশ দেন তিনি।

তিনি এয়ারপোর্ট রোডসহ রাজধানী ঢাকায় প্রবেশ এবং বের হওয়ার সড়ক সমূহের সৌন্দর্যবর্ধন ও পরিচ্ছন্নতার ওপরও জোর দেন। তিনি স্বচ্ছতা ও গুণগত মান বজায় রেখে নয়ারহাট সেতুর কাজ এগিয়ে নিতে এবং নির্ধারিত সময়ে সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেন।

নয়ারহাট দ্বিতীয় সেতুর নির্মাণকাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়াল মাধ্যমে আরো যুক্ত ছিলেন সংসদ সদস্য বেনজির আহমেদ, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী শাহরিয়ার আলম, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সবুজ উদ্দিন খানসহ সংশ্লিষ্টরা।

উক্ত অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি সুবিধাবাদ-জিন্দাবাদে বিশ্বাস করে বলেই দুর্নীতিবাজদের দলে প্রশ্রয় দেয়। মানুষ ভয়াবহ দুঃসময় অতিক্রম করছে— বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন মন্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক পাল্টা প্রশ্ন রেখে বলেন, করোনা, বন্যা, সুপারসাইক্লোন, আম্ফানের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগে দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি কী ভূমিকা পালন করেছে, জাতি তা জানতে চায়। বিএনপি জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে গণমাধ্যম আর ফেসবুকে কথামালার বৃষ্টি ঝরাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 

তিনি আরো বলেন, মহামারির প্রভাবে গোটা বিশ্ব যখন টালমাটাল, তখন জীবন-জীবিকার চাকা সচল রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে দূরদর্শিতা দেখিয়েছেন, তা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হচ্ছে। অথচ জনগণের এই দুঃসময়ে বিএনপি কোনো ভূমিকা না রেখে শুধু বক্তৃতা-বিবৃতিতেই নিজেদের দায়িত্ব শেষ করছে। সরকারের কোনো ভালো কাজের প্রশংসা না করে বিএনপি উল্টো অন্ধ সমালোচনা করে যাচ্ছে অবিরাম। তারা আসলে দেশের আরো দুঃসময় এবং জনগণের করুণ অবস্থাই প্রত্যাশা করেছিল।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি ভেবেছিল মানুষ না খেয়ে, চিকিৎসা না পেয়ে রাস্তায় মরে থাকবে। সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে এবং মানবিক নেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে সেই পরিস্থিতি হয়নি বলেই বিএনপি নেতাদের মনে কষ্ট ও জ্বালা ধরেছে। এই জন্যই তারা সরকারের বিরোধিতা করতে গিয়ে দেশ ও জনগণের বিরোধিতায় নেমেছে।  জনগণ বিএনপির এসব বুঝতে পেরেছে বলেই তাদের কথায় আর সাড়া দেয় না বলেও উল্লেখ করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে বন্দি করে রাখা হয়েছে— মির্জা ফখরুল ইসলামের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, জেনে শুনে ও বুঝে মিথ্যাচার করা তাদের স্বভাব। সরকার খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দেয়নি, সাজাও দেয়নি। মামলা করেছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর সাজা দিয়েছেন আদালত।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনাই খালেদা জিয়ার প্রতি সদয় হয়ে দুইবার সাজা স্থগিত করেছেন। কিন্তু বিএনপি এমন একটা দল যাদের ন্যূনতম কৃতজ্ঞতা বোধ নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/জাআ/টিআরএইচ/আরএইচ