বড় হয়ে ছেলে কী হবে? আগেই ঠিক করলেন শাকিব-অপু

ঢাকা, সোমবার   ২৩ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১০ ১৪২৭,   ০৬ রবিউস সানি ১৪৪২

বড় হয়ে ছেলে কী হবে? আগেই ঠিক করলেন শাকিব-অপু

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৯ ২২ নভেম্বর ২০২০  

শাকিব-অপু-জয়

শাকিব-অপু-জয়

তারকাদের সন্তানদের নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা থাকে শীর্ষে। সবারই আগ্রহ থাকে বড় হয়ে তারকাদের সন্তানরা প্রফেশন হিসেবে কী বেছে নেবে তা জানার। যদিও দেখা যায় বেশিরভাগ তারকা দম্পতির সন্তান যেন জন্মের পর থেকেই ‘তারকা’ বনে যান। তাইতো ছোট থেকেই তাদের নিয়ে বাড়তি আগ্রহ থাকে ভক্তকুলের।

তেমনি বাংলাদেশের তারকা দম্পতি শাকিব খান-অপু বিশ্বাস পুত্র আব্রাম খান জয়। ভক্তদের বাড়তি কৌতূহল রয়েছে জয়কে নিয়েও। জন্মসূত্রেই আব্রাম খান জয় তারকা। বলাবাহুল্য দেশের একমাত্র জনপ্রিয় স্টার কিড সে। এর আগে কোনো তারকার সন্তান এতো জনপ্রিয়তা পায়নি। জয়ের নামে রয়েছে ফেসবুক পেজ। সেখানে লাখ লাখ মানুষ তাকে অনুসরণ করে। সিনেমাভিত্তিক গ্রুপগুলোতেও তাকে নিয়ে চর্চা হয় নিয়মিত।

তেমনি জয় সম্পর্কে জানার আগ্রহ থেকেই ভক্তদের মনে প্রশ্ন জেগেছে- জয় বড় হয়ে কী হবে?  

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অপু বিশ্বাস গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি চাই আমার সন্তান সুশিক্ষায় মানুষের মতো মানুষ হোক। যেন পৃথিবীতে আলো ছড়াতে পারে। একজন সচেতন মা হিসেবে আমি তার উপর আমার কোনো চাওয়া চাপিয়ে দিতে চাই না। বড় হয়ে জয় নিজেই সিদ্ধান্ত নেবে সে কী হবে। তারপরও মনে মনে একটা ইচ্ছে আছে। এই ইচ্ছেটার কথা জয়কে বলবো। তার যদি ভালো লাগে তবেই সে আমার ইচ্ছে পূরণ করবে, না হলে নয়।’

অপু আরো বলেন, ‘তবে এটি আমার ইচ্ছে বা স্বপ্ন নয়। এটা আমার সবচেয়ে প্রিয় মানুষ মায়ের চাওয়া। মা সবসময় চাইতেন জয় বড় হয়ে বিখ্যাত ডাক্তার হবে। মা যেহেতু হার্টের রোগী ছিলেন তাই তিনি চাইতেন জয় দেবি শেঠির মতো জগৎবিখ্যাত ডাক্তার হোক। ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করুক। মা এই কথাটা প্রায়ই বলতেন। তখনো জানতাম না মা এত তাড়াতাড়ি আমাদের ছেড়ে চলে যাবেন। মায়ের এই স্বপ্নের কথা আমি জয়কে বলবো।’

এদিকে শাকিব খান এবারের জন্মদিনে জয়কে নিয়ে তার প্রত্যাশা ব্যক্ত করে বলেন, ‘আমার এই ছোট্ট জীবনে ভালোবাসা, সম্মান, সম্মাননা সবকিছু পেয়েছি। আলহামদুলিল্লাহ এখন পর্যন্ত আমার জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন তুমি- আমার ‘জয়’ বাবা। ইনশাআল্লাহ একদিন তুমি আমার চেয়েও সফল এবং অনেক ভালো একজন মানুষ হবে। ছাড়িয়ে যাবে বাবার স্বপ্নের সকল সীমানা।’

২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর অপুর কোলজুড়ে আসে জয়। সে এখন বসুন্ধরার ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষার্থী। পড়াশোনাতেও যথেষ্ট মনোযোগী সে। এরই মধ্যে স্কুলের সহপাঠী ও অভিভাবকদের দৃষ্টি কেড়েছে জয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএ