ছোট ছেলেকে বাঁচাতে এগিয়ে আসায় মাকে কোপালেন বড় ছেলে

ঢাকা, সোমবার   ৩০ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৭,   ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

ছোট ছেলেকে বাঁচাতে এগিয়ে আসায় মাকে কোপালেন বড় ছেলে

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৫৪ ১৯ নভেম্বর ২০২০  

দায়ের কোপে গুরুতর আহত তানিয়া

দায়ের কোপে গুরুতর আহত তানিয়া

ছোট ছেলে আবুল বাশারকে বাঁচাতে এগিয়ে আসায় ৮৯ বছরের বৃদ্ধা মা জয়তুন নেছাকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করেছে তারই বড় ছেলে সিদ্দিকুর রহমান। ঘটনা এখানেই শেষ নয়, ওই অসুস্থ মাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে দ্বিতীয় দফায় গতিরোধ করে ছোট ছেলে ও তার স্ত্রীকেও  কুপিয়ে গুরুতর জখম করে বড় ছেলের ছেলে মুসা ও ইমরান।

বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ গহরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।অভিযুক্ত সিদ্দিকুর রহমান সদর ইউনিয়নের মতিউর রহমান সিকদারের ছেলে।

বিদ্যুতের খুঁটি বসানোকে কেন্দ্র করে বড় ভাই সিদ্দিকুর রহমান ও ছোট ভাই আবুল বাশারের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এ সময় সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে ইমরান ও মুসা আবুল বাশারকে কিল ঘুষি মারতে থাকে। এ সময় অসুস্থ মা জয়তুন নেছা আবুল বাশারকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তাকে দা দিয়ে কোপ দেয় সিদ্দিকুর রহমান। ঘটনার পর জয়তুন নেছাকে পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসার পথে রাস্তায় গতিরোধ করে দ্বিতীয় দফা হামলা চালায় ইমরান, মুসা ও উপজেলা পরিষদের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী জাকির হোসেনের স্ত্রী সুমনা। সুমনা সিদ্দিকুর রহমানের পাতানো ধর্ম বোন।

আহত আবুল বাশার বলেন, পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি বসাতে বাধা দিলে বড় ভাই সিদ্দিকের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাদের ওপর হামলা চালায় বড় ভাই সিদ্দিকসহ তার দুই ছেলে ও পাতানো ধর্ম বোন সুমনা। তারা দ্বিতীয় দফায় আমাদের ওপরে হামলা চালিয়ে কুপিয়ে জখম করে। তখন আমি দৌড়ে পালিয়ে গেলে আমার স্ত্রী তানিয়াকে কুপিয়ে জখম করে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ইউপি সদস্য শাহ আলম মিয়া বলেন, ঘটনা শুনে আমি হাসপাতালে গিয়ে তাদের চিকিৎসার খোঁজ-খবর নিয়েছি। আহত তানিয়ার অবস্থা গুরুতর বলে জানিয়েছেন পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আয়শা সিদ্দিকা। 

তিনি আরো বলেন, তানিয়ার মাথায় জখম বেশি হওয়ায় তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে পাথরঘাটা থানার ওসি (তদন্ত) সাঈদ আহমেদ জানান, এখন পর্যন্ত থানায় কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ