ভিক্ষুক শেফালির সেই টাকায় কেনা হলো মসজিদের মাইক

ঢাকা, সোমবার   ২৩ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১০ ১৪২৭,   ০৬ রবিউস সানি ১৪৪২

ভিক্ষুক শেফালির সেই টাকায় কেনা হলো মসজিদের মাইক

রাজশাহী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:০৫ ১৯ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৭:৪৭ ১৯ নভেম্বর ২০২০

ভিক্ষা করে জমানো ৪০ হাজার টাকা মসজিদে দিয়েছেন শেফালি খাতুন

ভিক্ষা করে জমানো ৪০ হাজার টাকা মসজিদে দিয়েছেন শেফালি খাতুন

লোকে বলে শেফালি পাগলী। পুরো নাম শেফালি খাতুন। বাড়ি রাজশাহীর বাঘা উপজেলার গড়গড়ি ইউনিয়নের ব্রাহ্মণডাঙ্গা গ্রামে। লাঠিতে ভর দিয়ে গ্রামের পর গ্রাম ঘুরে ভিক্ষা করেন তিনি। এবার শেফালি ভিক্ষা করে জমানো ৪০ হাজার টাকা বাঘা পৌর এলাকার দক্ষিণ গাঁওপারা জামে মসজিদের মাইক কিনতে দান করেছেন।

শেফালি খাতুন বলেন, প্রতিদিনের খরচ চালানোর পর অবশিষ্ট টাকা জমিয়ে রেখেছিলাম। মানুষের উপকার হবে ভেবেই টাকাগুলো মসজিদের মাইক কিনতে দিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, এত টাকা দিয়ে কি হবে? আল্লাহর ঘরে দান করলে মানুষের উপকার হবে, পরকালে শান্তি পাওয়া যাবে। ৪০ হাজার টাকা জমেছিল, সেই টাকা মসজিদ কমিটির হাতে দিয়েছি। এরপর মাদরাসা-এতিমখানায় দান করার ইচ্ছা আছে।

দক্ষিণ গাঁওপাড়ার বাসিন্দা রূপচান বলেন, আমার দোকানে এসে শেফালি পাগলী ভিক্ষা চেয়েছিলেন এভাবে- ‘ভাই কয়েকটা টাকা দেন। নিজের খরচ করে যা বাঁচবে সেই টাকা জমিয়ে মাদরাসায়-এতিমখানায় দেব।’

সরেজমিনে দেখা গেছে, বাবার মৃত্যুর পর পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া এক টুকরো জমিতে ঘর তুলে কোনোরকমে বসবাস করেন শেফালি খাতুন। এক বেলা খাওয়ার পর আরেক বেলার জন্য ভিক্ষায় নামতে হয় তাকে । তবু নিজের কথা না ভেবে ভিক্ষার জমানো টাকা দিয়েছেন মসজিদে।

একই গ্রামের গৃহবধূ রঞ্জনা জানান, শেফালির বাবা মোসলেম প্রামাণিক ছিলেন দিনমজুর। বাবা বেঁচে থাকতে তার বিয়ে হয় কিন্তু সেই সংসার টেকেনি। সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা শেফালিকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় স্বামী। সন্তান জন্মের পর থেকে তাকে নিয়েই ভিক্ষা করে সংসার চালান শেফালি।

দক্ষিণ গাঁওপাড়া গোরস্থান জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি শামসুজ্জোহা সরকার জানান, কয়েক দফায় ৪০ হাজার টাকা দিয়েছেন শেফালি খাতুন। সেই টাকায় মসজিদের মাইক, ফ্যান ও টাইলস কেনা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর