হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের ২ বছরের কমিটিতেই ৫ বছর

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৬ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ১১ ১৪২৮,   ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের ২ বছরের কমিটিতেই ৫ বছর

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:১৫ ১৩ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ২০:০৫ ১৩ অক্টোবর ২০২১

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের লোগো - ফাইল ফটো

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের লোগো - ফাইল ফটো

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের দুই বছরের জন্য অনুমোদিত কমিটি ৫ বছর অতিক্রম করেছে। জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদকসহ অনেকেই এখন বিবাহিত।

এছাড়া কমিটির বেশিরভাগ নেতাকর্মীরাই অছাত্র। যাদের ছাত্রত্ব ছিল তাদের মধ্যে অনেকেরই আবার বয়স শেষ হয়ে গেছে। অনেক ছাত্রদল নেতা আবার দলীয় কোন্দলের শিকার হয়ে চলে গেছেন অন্যত্র। কেউ কেউ যুবদল আবার কেউ স্বেচ্ছাসেবকদলসহ অন্যান্য কমিটিতে স্থান করে নিয়েছেন।

দীর্ঘদিন ধরে এসব কর্মকাণ্ডের মধ্যদিয়ে সংগঠনটি পরিচালিত হলেও বিলুপ্ত হয়নি এ কমিটি। ফলে বিষয়টি নিয়ে চাপা ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে অপেক্ষমাণ থাকা ত্যাগী নেতাকর্মীদের মাঝে। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে নতুন কমিটি না হওয়ায় একদিকে যেমন নতুন নেতৃত্ব পাচ্ছে না দলটি, অন্যদিকে তেমনি ঝিমিয়ে পড়েছে সাংগঠনিক কার্যক্রমও।

সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের ১৩ অক্টোবর এমদাদুল হক ইমরানকে সভাপতি, রুবেল আহমেদ চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক ও শাহ্ রাজিব আহমেদকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ১০ সদস্য বিশিষ্ট জেলা ছাত্রদলের আংশিক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় সংসদ। আংশিক কমিটি ঘোষণার দুই বছর পর ২০১৮ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর ৪৮১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। এরপর কেটে গেছে দীর্ঘ ৫ বছর। জেলা ছাত্রদলের কমিটি পাঁচ বছর অতিক্রম করলেও ছিল না ঐক্য। সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদকসহ সবাই আলাদা আলাদাভাবে গ্রুপিং নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। এমনকি দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীসহ বিভিন্ন কেন্দ্রীয় কর্মসূচিও আলাদাভাবে পালিত হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মুখলেছুর রহমান ফয়স ও আরিফ রাব্বানি টিটু বর্তমানে জেলা যুবদলের সদস্য। জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল আজিজ জেলা যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি এনাম বর্তমানে স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রথম যুগ্ম সম্পাদক। এছাড়া অন্তত আরো ৭-৮ জন ছাত্রদলের পাশাপাশি জেলা যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের জেলা কমিটিতে স্থান করে নিয়েছেন।

এদিকে, বিভিন্ন ইউনিট ছাত্রদলের অনেক ত্যাগী নেতাকর্মী জেলা কমিটিতে স্থান পেতে অপেক্ষায় রয়েছেন। কারো কারো ছাত্রত্ব শেষ হওয়ার পথে। আবার কেউ কেউ নতুন কমিটির আশায় বিয়ে করতে পারছেন না। এতে পারিবারিক সমস্যার মুখোমুখিও হতে হচ্ছে তাদের।

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও আগামী কমিটির সভাপতি প্রার্থী আব্দুল আহাদ তুষার বলেন, এক কমিটি দীর্ঘ ৫ বছর চলা কোনো দলের জন্যই শুভ নয়।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল বলেন, শুধু হবিগঞ্জ জেলা নয়, দেশের ১০টি জেলা ছাড়া বাকি সবগুলো জেলা কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। তবে আমরা সেগুলো নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ/এইচএন