দেশসেরা আইসিটি শিক্ষকের স্কুলে নেই আইসিটি ল্যাব

ঢাকা, বুধবার   ২৭ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ১৩ ১৪২৮,   ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

দেশসেরা আইসিটি শিক্ষকের স্কুলে নেই আইসিটি ল্যাব

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:০৩ ১২ অক্টোবর ২০২১  

আইসিটিতে বিশেষ অবদানের জন্য বিভাগীয় সম্মাননা গ্রহণ

আইসিটিতে বিশেষ অবদানের জন্য বিভাগীয় সম্মাননা গ্রহণ

দেশের সেরা আইসিটি শিক্ষকের একজন রাশেদ রায়হান। তিনি ২০১৪ সালে এটুআই ডিজিটাল কন্টেন্টে দেশে দশজনের মধ্যে সপ্তম স্থান অর্জন করেন। তিনি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার দুর্গাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। এখন জেলায় সেরাদের সেরা তিনি। তার সংস্পর্শে একে একে সব বিদ্যালয়ের  শিক্ষকই আইসিটিতে দক্ষতা অর্জন করেছেন।

ফলে ২০১৮ সালে ডিজিটাল কনটেন্ট প্রতিযোগিতায় সারাদেশের ৪৩ জনের মধ্যে ৩২ তম স্থান অর্জন করেন শাহনাজ পারভীন নামে আরো একজন সহকারী শিক্ষক।

কিন্তু দেশসেরা আইসিটি শিক্ষকের স্কুলে নেই আইসিটি বা ডিজিটাল ল্যাব। পর্যায়েক্রমে উপজেলার বিভিন্ন স্কুলে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন করা হলেও সেই তালিকায় স্থান পাইনি দুর্গাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকারিভাবে কোনো সুযোগ সুবিধা না পেলেও যুগোপযোগী শিক্ষার কার্যক্রম থেমে নেই বিদ্যালয়ে। ম্যানেজিং কমিটি ও শিক্ষকদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে স্বল্প পরিসরে হলেও মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। তবে পর্যাপ্ত সরঞ্জাম না থাকায় আইসিটি ল্যাবের কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

এ বিষয়ে সরেজমিন গেলে বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থীরা বলেন, আমাদের বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে ক্লাস হয়। তবে পর্যাপ্ত সরঞ্জাম না থাকায় স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়।

তারা আক্ষেপ করে আরো বলেন, আশেপাশের স্কুলগুলোতে বিজ্ঞানাগার, আইসিটি ল্যাব, শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব থাকলেও আমাদের বিদ্যালয়ে নেই কোনটিই। এতে প্রকৃত আইসিটি জ্ঞানার্জন থেকে বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা।

ডিজিটাল কনটেন্ট প্রতিযোগিতায় ৩২তম স্থান অর্জনকারী ওই স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা শাহনাজ পারভীন বলেন, দেশের সেরা আইসিটি শিক্ষক আমাদের স্কুলে। সে এখন সেরাদের সেরা। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় যে, সেরা আইসিটি শিক্ষকের স্কুলে নেই আইসিটি ল্যাব।

দেশের সেরাদের মধ্যে অন্যতম আইসিটি শিক্ষক রাশেদ রায়হান বলেন, ২০১২ সাল থেকে আইসিটির সঙ্গে আছি। সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থায় ডেভেলপার হিসেবে কাজ করছি। কিন্তু ল্যাব না থাকায় নিজের স্কুলে বাস্তবমুখী শিক্ষা প্রয়োগে ব্যর্থ হচ্ছি। যা অত্যন্ত দুঃখজনক।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মকলেছুর রহমান বলেন, বিদ্যালয়ে প্রায় ৪ শত শিক্ষার্থী এবং ৩৭ জন শিক্ষক, শিক্ষিকা,কর্মচারী। সরকারিভাবে স্কুলে একটা ল্যাপটপ দিয়েছিল অনেক আগে। কিন্তু বিদ্যালয়ের কোনো আইসিটি ল্যাব নেই। বর্তমান সরকারের কাছে জোড় দাবি জানাচ্ছি যুগোপযোগী শিক্ষা কার্যক্রম চালানোর জন্য একটি ডিজিটাল আইসিটি ল্যাব স্থাপনের।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটর সদ্যবিদায়ী সভাপতি দীন মহাম্মদ মন্টু বলেন, ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিদ্যালয়ের ডিজিটাল শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তবে তা পর্যাপ্ত নয়। ল্যাব স্থাপনের জন্য শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা  আব্দুর রশিদ বলেন, পর্যায়ক্রমে উপজেলার স্কুলগুলোতে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন করা হচ্ছে। বরাদ্দ পেলে বিদ্যালয়টিতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ল্যাব স্থাপন করা হবে।

কুষ্টিয়া-৪ আসনের এমপি ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকায় এমন একজন শিক্ষকের জন্য গর্ববোধ করি। পাশাপাশি ওই স্কুলেই ল্যাব না থাকায় দুঃখ প্রকাশ করি। অবশ্যয় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ওই স্কুলে ল্যাব স্থাপন করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ