১৪ বছর পর হত্যা মামলার রায়, একজনের যাবজ্জীবন

ঢাকা, সোমবার   ১৮ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৩ ১৪২৮,   ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

১৪ বছর পর হত্যা মামলার রায়, একজনের যাবজ্জীবন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:২৬ ১২ অক্টোবর ২০২১  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় দেলোয়ার হোসেন দিলু হত্যা মামলায় রায় প্রদান করেছে আদালত। রায়ে একজনের যাবজ্জীবন ও ৫ জনকে এক বছরের সাজা প্রদান করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া অতিরিক্ত দায়রা জজ ২য় আদালতের বিচারক আবু উবায়দা এই মামলার রায় ঘোষণা করেন। দীর্ঘ ১৪ বছর পর এই হত্যা মামলায় রায় প্রদান করা হলো।

মামলার প্রধান আসামি বাবুল মিয়াকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় কারাদণ্ড প্রদান করেছে আদালত। এছাড়া আদালতের রায়ে আরও ৫ জনকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

এক বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, দুলাল মিয়া, সৈয়দ খাঁ, হাসান মিয়া, হানু মিয়া ও মোহাম্মদ আলী। বাকি ৪৬ আসামিকে বেকসুর খালাস দেয় আদালত।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০০৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি বিকেলে পূর্ব বিরোধের জেরে আখাউড়া উপজেলার বনগজ গ্রামে একটি স্কুল মাঠে প্রতিপক্ষের লোকজন দা দিয়ে কুপিয়ে দেলোয়ার হোসেন দিলুকে রক্তাক্ত করেন। আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে আখাউড়া উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়। সেখান থেকে দিলুকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে দিলুকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনার একদিন পর ১৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্হায় দিলু মারা যান। মৃত দেলোয়ার হোসেন দিলু ওই এলাকার বিলাল হোসেনের ছেলে।

এ ঘটনায় ১৭ ফেব্রুয়ারি দেলোয়ার হোসেন দিলুর চাচা মনির মিয়া বাদী হয়ে আখাউড়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় একই এলাকার বাবুল মিয়াকে প্রধান করে ৫৩ জনকে আসামি করা হয়। মামলার তদন্ত শেষে ২০০৭ সালের ১৭ জুলাই আদালতে চার্জশিট প্রদান করে পুলিশ। এরই মাঝে এক আসামি মারা যান। এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ বাদীসহ ১৯ জনের সাক্ষী প্রদান করে এবং বিবাদী পক্ষ ৯ জনের সাফাই সাক্ষী প্রদান করেন। দীর্ঘ যুক্তিতর্ক শেষে এই হত্যা মামলার রায় আদালত প্রদান করে।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মুজিবুর রহমান ভূইয়া বলেন, আমরা প্রত্যাশা করেছিলাম সব আসামির সাজা হবে। খালাশ পাওয়া আসামিদের বিরুদ্ধে আমরা উচ্চ আদালতে যাব।

বিবাদী পক্ষের আইনজীবী জসিম উদ্দিন খাঁ এই রায়ের আদেশে অসন্তোষ প্রকাশ করে জানান, আমরা এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাব।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম